মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

রফিকুল ইসলাম, ২৪ এপ্রিল, ২০১৯
আমাদের দেশে আইন আছে শুধু মাত্র অসহায়দেরকে পিষে মেরে ফেলার জন্য তানাহলে শিক্ষকদের টাকা লুঠপাট করে খায় এমন দেশ পৃথিবীতে আর একটা পাওয়া যাবে কিনা আমার সন্দেহ আছে ।আমার দেশের দুদকের কিভাবে এই সব কথা জেনে বসে আছে যারা এই দেশকে গড়ে তোলার চেষ্টা করে তারা আজ প্রতারিত এই দেশ কিভাবে সামনের দিকে এগিয়ে যাবে ।
kabita, ২৩ এপ্রিল, ২০১৯
এর স্বচ্ছতা নেই টাকা কাটলে তো শিক্ষকদের অবসর বা কল্যান বাড়বে না আগের নিয়মেই পাবে এটা হতে দেয়া যাবে না
kabita, ২৩ এপ্রিল, ২০১৯
কিভাবে
মোঃ শাহিদুল ইসলাম, ২৩ এপ্রিল, ২০১৯
এক সময় ব্যাংক সমূহ ৫ বছরে ২গুণ দিত। এখনও ৬ বছরে দ্বিগুণ দিলে কেউ যদি ৩৭/৩৮ বছর চাকুরি করে তবে ৬ বছরে দ্বিগুণ হবে , ১২ বছরে হবে ৪ গুণ ,১৮ বছরে হবে ৮ গুণ ,২৪ বছরে হবে ১৬ গুণ , ৩০ বছরে হবে ৩২ গুণ , ৩৮ বছরে আরোও বেশী হবে। অবশ্য DPS হিসেবেও আরোও বেশী হয়।সুতরাং অনেক দিন ঘুরিয়ে ১৪ গুণ দিয়ে আমাদের টাকাও আমাদের দেয়া হয় কীনা সন্দেহ। ( যদিও সমগ্র টাকা এক কালীন জমার হিসাব এটি)। আমাদের টাকা আমরা ঐ পরিমান DPS এ জমা রাখলে, এবং মাঝে মধ্যে DPS থেকে লোন নিয়ে জমি/বাড়ী করা হলে লাভ বেশী হবে। আমার প্রস্তাব পুর্বের ন্যায় ২% ও ৪% কর্তন করা হোক, নচেত আমাদের টাকা আমাদের নামে ১০% /১৫% /২০% DPS এ জমা রাখার নির্দেশ জারি করে সরকার নিজেও রক্ষা নিক, আমাদেরও রক্ষা করুক।
MD.AZHARUL ISLAM MONDAL, ২৩ এপ্রিল, ২০১৯
শিক্ষক-কর্মচারীদের সংগে কথা না বলে বেতন হতে চাঁদা কর্তন করার অধিকার কাউকে দেয়া হয় নাই যে, তারা যখন তখন তাদের ইচ্ছামত চাঁদা কর্তন করবেন। শিক্ষক-কর্মচারীদের সাথে শিক্ষক নেতারা সারা জীবন বেইমানী করেছে এবং যে সকল শিক্ষক নেতা এই বেসরকারী শিক্ষকদের কষ্ঠের টাকা বিভিন্ন সময়ে লুট করে খেয়েছেন, তাদেরকে অবশ্যই কিয়ামতে সেই কাঠ গড়ায় তাদেরকে হিসেব দিতে হবে।কেননা, যাদের কেউ নাই, তাদের আল্লাহ আছেন ।
Obydul haque, ২৩ এপ্রিল, ২০১৯
উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে, আর কি। অতীত অনিয়মের ফলে ঘাটতি, শোধ করবেন এখনকার শিক্ষকরা। দেশের আইন কি বলে?
mduddin, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
শিক্ষক নেতারা আর কর্মকর্তারা মিলে যে টাকা লুটপাট করে খেয়েছে তার হিসাব আগে দিন! তার পর ১০% কর্তন করুন। আর দুদক কি আঙ্গুল চোষে?
kabita, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
এটা অন্যায়।
হাবিবুর রহমান ,, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
এইভাবে বললেই তো পারেন যে, বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীরা তাদের বেতন ভাতার শতভাগ অবসর ও কল্যান তহবিলে জমা দিলে অবসরের দিনে তাদের প্রাপ্য সমুদয় টাকা পেয়ে যাবেন।
মোঃ হেমায়েত উদ্দিন, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
আপনাদের মত দালাল শিক্ষক নেতাদের কারনে বেসরকারী শিক্ষকদের ভাগ্য পরিবর্তন হয় না।আইনে আছে ৬% কেটে ১০০মাসের সুবিধাপাবে কিন্তু১০% কেটে কেন একজন শিক্ষক ১০০মাসের সুবিধা পাবে? একজন শিক্ষক ২৫ বছরের বেশি চাকুরি করে ৬% হারে কর্ত্ন করলে তার সুষ্পষ্ট ব্যখা আইনে নেই।বর্তমানের মত ৬% কর্তন করে উক্ত খাতে প্রধান মন্ত্রী প্র্যোজনীয় বরাদ চাই যাতে মরার উপর খরার ঘা না আসে।
আ ফ ম দেলোয়ার হোসেন, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
একবার লেখেছিলাম, গ্রহন করেননাই ? দৈনিক শিক্ষার কাছ থেকে এটা আশা করিনাই ? আর খুলবোইনা আপনাদের পত্রিকা ।
Md.Shahjahan Kabir, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
দালালি না করে ঘরে সময় দেন।অতিরিক্ত কর্তন মানি না।
Md Afzal Alam Chowdhury, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
আমাদের বেতন থেকে অতিরিক্ত টাকা কেটে রাখবেন প্রতি মাসে, সেই টাকার আসল ও আমাদেরকে ফেরত দিবেন না। এমন আজগুবী সিদ্ধান্ত পৃথিবীর আর কোন দেশে জারি হয়েছে কি না, জানালে কৃতজ্ঞ হব।
Md.Shahjahan Kabir, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
বেসরকারি কলেজ ও স্কুল এর শিক্ষকসম্প্রদায় জীবন বাঁজি রেখে নির্বাচন এ গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে,অথচ বেশিরভাগ সরকারিরা দূরে থাকে,সুযোগসুবিধা এর ক্ষেত্রে উলটো, এ সব বৈষম্য কি দালাল নেতারা দেখেনা,ওদের চোখ কি অন্ধ,না এরা শুধু টাকা দেখে।অবসর প্রাপ্তদের নেতা হিসাবে মানি না।
Md Afzal Alam Chowdhury, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
সম্মানীত স্যার চাঁদার হার আরো কত শতাংশ বাড়ালে সরকারের কাছে হাত পাততে হবে না? দয়া করে সেই শতাংশ পর্যন্ত কর্তনের প্রজ্ঞাপন জারি করুন। তাতে আমাদেরকে আর কারো কাছে হাত পাততে হবে না। আমরা সাবলম্বী হয়ে যাব। সত্যি স্যার আপনাদের মত আত্নসম্মান বজায় রেখে চলার মত সা্ী শিক্ষকই সমাজে প্রয়োজন। আমরা আপনাদের সিদ্ধান্তে ধন্য। আপনাদের জয় হউক। কর্তনের পরিমান প্রয়োজনে আরো বাড়ুক। জয় হউক কর্তনের, কর্তনের জয়!!!!!! "!""""""!!!!!!
Ahasan Titu, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
আপনারা কর্তিত টাকা ফিক্সড ডিপোজিট না করে কারেন্ট একাউন্টে রেখে দুর্নীতি করবেন আর চাদা দিব আমারাা?
Ahasan Titu, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
ভুয়া
Ahasan Titu, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
বিড়ালের পাহারাদার চাই না। কোন কল্যান ট্রাস্টের দরকার নাই। যা জমা দিয়েছি তা ফেরত চাই। কর্তনের প্রতিবাদ জানাই।
আ ফ ম দেলোয়ার হোসেন, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
মাসে যে টাকা জমা হয়, তার লাভ কতো হয় বছরে ? সেটাকা কোথায় যায় ? আপনারা নেতারা কতো টাকা বেতন নেন ? কতো টাকা বিভিন্ন খাত দেখিয়ে মেরে খান এগুলো শিক্ষকরা সবই বুঝে ! জমা টাকার লাভ্যাংশ দিয়াই অর্ধেক শিক্ষকের টাকা পরিশোধ করা যায় ।
Zaman Khan, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
দালালি বাদ দেন শিক্ষকদের কথা ভাবুন
Obydul haque, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
মহোদয়, ঘাটতি মেটাতে শিক্ষকরা তো আছেন। তাদের ৫০% বেতন কাটুন।
Partha Sarathi Ray, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
সাজু- শরীফের মতো দালালরা কল্যানট্রাস্ট ও অবসর বোর্ডে যতদিন থাকবে ততদিনই শিক্ষকদের এই সমস্যায় পড়তে হবে। তাই এদের বিদায় করা হোক অথবা আমাদের জমানো টাকা সুদে আসলে ফেরত দিয়ে এই প্রতিষ্ঠান দুটি বন্ধ করে দেয়া হোক। আমাদের এমন কল্যানের দরকার নেই। মূল বেতনের ৬% টাকা দিয়ে ব্যাংকে ডিপিএস করলে একজন শিক্ষক চাকুরীর মেয়াদ শেষে জমানো টাকার ১৪ গুন নয় বরং ১৮ গুন ফেরত পাবেন। সেখানে সাজু- শরীফের মতো রাক্ষসদের লোলুপ নি:শ্বাস পড়বেনা।
FARID AHAMED, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
যেখামে বেসরকারি শিক্ষকরা ন্যায্য অনেক পাওনা থেকে বঞ্চিত,সেখানে অতিরিক্ত ৪% কর্তন, এটাকে ডাকাতি, ছিন্তাই,বাটপারী, দালালী নাকি নির্যাতন বলব?
MONNU, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
স্যার আপনি কতটুকু খাবেন , হাফ -না বারো আনা। ইতি পূবে যারা অবসর কল্যান বোর্ডে সদস্য হিসাবে থেকেছেন ,তারা সবাই টাকা ব্যাংকে না রেখে পকেট ভরে রেখেছেন। আর বিনা ভাউচারে খরচ করেছেন। স্যার আপনার হিসাব মতে আরও ২১৬ কোটি টাকা ঘাটতি তো একটা কাজ করুন, । ১০% বেতন কর্তনের পরিবর্তে ২০% বেতন কর্তন করুন। তাহলে আপনাদের সুযোগ সুবিধা কিছুটা হলেও বাড়বে বৈকি । কারণ আপনার স্ত্রী সন্তানের চাহিদার কথাও তো মাথায় রাখতে হবে।