মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

MD.EDRISH ALI, ০৯ জুলাই, ২০১৯
হাইরে সোনার বাংলা নন এম পিও স্বীকৃতিপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানে প্রবেশ করে নষ্ট হলাম কামলা|কারণ জীবনের শ্রমশক্তির যা ছিল সব এখন শেষ|হয় তো যে কোনো সময় ঘোষনা হবে তোমাদের প্রয়োজন শেষ|তবু আমরা শিক্ষক এইটা না কি বঙ্গবন্ধুর স্বপনের সোনার বাংলা|তাই আমাদের আশা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি সকল প্রতিষ্ঠান এক যোগে ঘোষনা দিবেন|
md,abulkhair, ০৮ জুলাই, ২০১৯
ভাই যাদের লোক আছে তাদের সব আছে। আমাদের লোক নেই আমাদের কিছু নেই। গন প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী জন নেত্র শেখ হাচিনা আমাদের জাতির জন‌্য স্বচ্ছ কিছু করতে চাইলে ও .............। 2018 সনে নবম ভোকেশনালে 88 (আটআশি) জন পরীক্ষা দেওয়ালাম 2019 সনে এসএসসি ভোকেশনালে 62 জন তার পর ও এমপিও বঞ্চিত হচ্ছি। এই সেই সোনার বাংলাদেশ । কি করে সুন্দর পাঠদান সম্ভব। 2003 সনে স্বীকৃতি পাওয়া সনামধন‌্য প্রতিষ্ঠান। দৃষ্টি আকর্ষন করছি সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে।
Nitya Kumar Kundu, ০৮ জুলাই, ২০১৯
কুড়িগ্রাম জেলা রাজারহাট উপজেলার একটি কলেজ আছে নাম বিদ্যানন্দ মহাবিদ্যালয়, এই কলেজটি ও একাডেমিক স্বীকৃতি পায়নি, তবে একাডেমিক স্বীকৃতির জন্য আবেদন করা হয়েছে মন্ত্রনালয় বরাবর। দুরভাগ্য কলেজটি একাডেমিক স্বীকৃতি ও পাবে না এমপিও হবে না । কারণ এই কলেজের পক্ষে কথা বলার কেউ নেই। যে সব শিক্ষকের বেতন নেই তারা টাকা পয়সা খরচ করে লোক ধরবে কি করে । অথচ ৬ বছর ধরে ছাত্র/ছাত্রী পরিক্ষায় অংশগ্রহণ করছে এবং ভাল ফলাফল ও করছে। আবার দেখেন দীর্ঘদিন ধরে কিন্তু একাডেমিক স্বীকৃতি বন্ধ করে রেখেছে। যদিও ২/১ একাডেমিক স্বীকৃতি পাচ্ছে তাদের হয় মন্ত্রনালয়ে সচিব , না হয় এমপি, না হয় বড় পর্যায়ে কেউ চাকরি করে তারাই পাইয়ে দিচ্ছে । এখন বলেন বলেন এই সব কলেজ কি করবে ?