মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

Sabuj, ০৭ নভেম্বর, ২০১৯
তদন্ত ছাড়া এমপিও দেয়া হয়েছে। সব বাতিল করা হোক। যারা ভুল করেছে তাদের চাকরিচুত করা হোক।
Khurshid alam, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
স্যার, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেমোরিয়াল ট্রাস্টের মাননীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনাকে তার মায়ের নামের একটি মহিলা মহাবিদ্যালয় MPO ভূক্তিকরণ করার দায়িত্ব আপনাকে দিয়েছেন। স্যার, সেই প্রতিষ্ঠানটি সব শর্ত পূরণ করেও কি MPO ভূক্ত হয়েছে স্যার দয়া করে যদি একটু দেখতেন!
Khurshid alam, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
স্যার, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেমোরিয়াল ট্রাস্টের মাননীয় সভাপতি জননেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনাকে তার মায়ের নামের একটি মহিলা মহাবিদ্যালয় MPO ভূক্তিকরণ করার দায়িত্ব দিয়েছেন। সেই প্রতিষ্ঠানটি সব শর্ত পূরণ করেও কি MPO ভূক্ত হয়েছে, স্যার। স্যার, দয়া করে যদি একটু দেখতেন!
Khurshid alam, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
স্যার, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেমোরিয়াল ট্রাস্টের মাননীয় সভাপতি জননেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনাকে তার মায়ের নামের একটি মহিলা মহাবিদ্যালয় MPO ভূক্তিকরণ করার দায়িত্ব দিয়েছেন। সেই প্রতিষ্ঠানটি সব শর্ত পূরণ করেও কি MPO ভূক্ত হয়েছে, স্যার। স্যার, দয়া করে যদি একটু দেখতেন!
MD.NEAYAMUL HAQUE, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
স্তর পরিবর্তন বিশিষ্ট সকল আবেদনগুলো গ্রহণ করে এমপিও দেয়া হোক। এটি জাতীয় শিক্ষানীতি বাস্তবায়নে সহায়ক হবে। যেমন স্কুল এমপিও কিন্তু কলেজ ননএমপিও এমন আবেদনে স্কুলে কাম্য সংক্ষক শিক্ষার্থী পেলেই কলেজকেও এমপিও করা উচিৎ । এতে জাতীয় শিক্ষানীতি বাস্তবায়ন করার ক্ষেত্রে একধাপ এগিয়ে নেয়া যাবে।
Jobrul Islam, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
এই সকল কর্মকর্তার ভুলের কারণে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে তাই বিভাগীয় ভাবে শাস্তির ব্যবস্থা করা হউক।
মোঃমনিরুল ইসলাম, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
যাচাই-বাছায়ের নামে শুধু সময়ক্ষেপন করেছে। যোগ্যতার ভিত্তি দেখা হয়নি।
মোহাম্মদ আরিফুল ইসলাম, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
টাকার কাছে এসব কর্মকর্তারা বিক্রি হয়ে গেছে, এদেশে যোগ্যতার কোনো মূল্যায়ন করা হয় না, অযোগ্যরাই বেশি সুযোগ সুবিধা ভোগ করে
Masud, ২৭ অক্টোবর, ২০১৯
এ কেমন নীতি মালা? গফরগাঁও উপজেলায় হুরমত উল্লাহ কলেজটি ১৯৯৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। একাডেমিক স্বীকৃতি পায় ২০০৪ সালে। আবেদনের সময় শুধু মানবিক শাখায় ছাত্র/ছাত্রী ৪২২ জন। ২০১৭ সালে পরীক্ষার্থী ছিল ১০৮ জন। পাস করেছিল ৮৩ জন। পাশের হার ৭৬.৯৪% তবুও কলেজটি এমপিও ভুক্ত হলনা। শিক্ষক কর্মচারীবৃন্দ হতাশ, মর্মাহত, শোকে নির্বাক। কয়েকজন শিক্ষক কর্মজীবন শেষ করে চলে গেছেন। যারা আছেন তাদের কর্মজীবনও শেষের দিকে।