মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
মাননীয় সাবেক শিক্ষা সচিব মহোদয়। আপনার সুপারিশ এর মাধ্যমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি প্রথা বিলুপ্তি করা হোক। আর যদি বিলুপ্তি করার কোন পথ না থাকে তাহলে সভাপতির জন্য মাস্টার্স এবং অন্যান্য সদস্যের জন্য কমপক্ষে স্নাতক ডিগ্রী যোগ্যতা হিসেবে নির্ধারণ করা হোক। কারণ ম্যানেজিং কমিটিতে অযোগ্য ও অশিক্ষিত লোকেরা এসে শিক্ষার পরিবেশকে মারাত্মক হুমকির মুখে সম্মুখীন করে ফেলছে। এরা যেন ম্যানেজিং কমিটিতে এসে বিভিন্ন ধরনের আত্মম্ভরিতা, দম্ভোক্তি এবং প্রতিষ্ঠান এর পরিপন্থী কোন আচরণ যেন করতে না পারে তার জন্য একটি টেকসই আইন করা দেশের জন্য সময়ের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হিসেবে দেখা দিয়েছে। উল্লেখ্য যে কমিটির সভাপতি ও সদস্য যেন পরপর দুইবার এ র বেশি সময় তারা ক্ষমতায় থাকতে না পারে তার জন্য তাড়াতাড়ি একটি আইন চাই। কেননা এরা বারবার নির্বাচিত হওয়ার কারণে তাদের মধ্যে একটি অহংকার হিসেবে কাজ করে।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
মাননীয় সাবেক শিক্ষা সচিব মহোদয়। আপনার সুপারিশ এর মাধ্যমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি প্রথা বিলুপ্তি করা হোক। আর যদি বিলুপ্তি করার কোন পথ না থাকে তাহলে সভাপতির জন্য মাস্টার্স এবং অন্যান্য সদস্যের জন্য কমপক্ষে স্নাতক ডিগ্রী যোগ্যতা হিসেবে নির্ধারণ করা হোক। কারণ ম্যানেজিং কমিটিতে অযোগ্য ও অশিক্ষিত লোকেরা এসে শিক্ষার পরিবেশকে মারাত্মক হুমকির মুখে সম্মুখীন করে ফেলছে। এরা যেন ম্যানেজিং কমিটিতে এসে বিভিন্ন ধরনের আত্মম্ভরিতা, দম্ভোক্তি এবং প্রতিষ্ঠান এর পরিপন্থী কোন আচরণ যেন করতে না পারে তার জন্য একটি টেকসই আইন করা দেশের জন্য সময়ের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হিসেবে দেখা দিয়েছে। উল্লেখ্য যে কমিটির সভাপতি ও সদস্য যেন পরপর দুইবার এ র বেশি সময় তারা ক্ষমতায় থাকতে না পারে তার জন্য তাড়াতাড়ি একটি আইন চাই। কেননা এরা বারবার নির্বাচিত হওয়ার কারণে তাদের মধ্যে একটি অহংকার হিসেবে কাজ করে।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
মাননীয় সাবেক শিক্ষা সচিব মহোদয়। আপনার সুপারিশ এর মাধ্যমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি প্রথা বিলুপ্তি করা হোক। আর যদি বিলুপ্তি করার কোন পথ না থাকে তাহলে সভাপতির জন্য মাস্টার্স এবং অন্যান্য সদস্যের জন্য কমপক্ষে স্নাতক ডিগ্রী যোগ্যতা হিসেবে নির্ধারণ করা হোক। কারণ ম্যানেজিং কমিটিতে অযোগ্য ও অশিক্ষিত লোকেরা এসে শিক্ষার পরিবেশকে মারাত্মক হুমকির মুখে সম্মুখীন করে ফেলছে। এরা যেন ম্যানেজিং কমিটিতে এসে বিভিন্ন ধরনের আত্মম্ভরিতা, দম্ভোক্তি এবং প্রতিষ্ঠান এর পরিপন্থী কোন আচরণ যেন করতে না পারে তার জন্য একটি টেকসই আইন করা দেশের জন্য সময়ের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হিসেবে দেখা দিয়েছে। উল্লেখ্য যে কমিটির সভাপতি ও সদস্য যেন পরপর দুইবার এ র বেশি সময় তারা ক্ষমতায় থাকতে না পারে তার জন্য তাড়াতাড়ি একটি আইন চাই। কেননা এরা বারবার নির্বাচিত হওয়ার কারণে তাদের মধ্যে একটি অহংকার হিসেবে কাজ করে।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
মাননীয় সাবেক শিক্ষা সচিব মহোদয়। আপনার সুপারিশ এর মাধ্যমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি প্রথা বিলুপ্তি করা হোক। আর যদি বিলুপ্তি করার কোন পথ না থাকে তাহলে সভাপতির জন্য মাস্টার্স এবং অন্যান্য সদস্যের জন্য কমপক্ষে স্নাতক ডিগ্রী যোগ্যতা হিসেবে নির্ধারণ করা হোক। কারণ ম্যানেজিং কমিটিতে অযোগ্য ও অশিক্ষিত লোকেরা এসে শিক্ষার পরিবেশকে মারাত্মক হুমকির মুখে সম্মুখীন করে ফেলছে। এরা যেন ম্যানেজিং কমিটিতে এসে বিভিন্ন ধরনের আত্মম্ভরিতা, দম্ভোক্তি এবং প্রতিষ্ঠান এর পরিপন্থী কোন আচরণ যেন করতে না পারে তার জন্য একটি টেকসই আইন করা দেশের জন্য সময়ের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হিসেবে দেখা দিয়েছে। উল্লেখ্য যে কমিটির সভাপতি ও সদস্য যেন পরপর দুইবার এ র বেশি সময় তারা ক্ষমতায় থাকতে না পারে তার জন্য তাড়াতাড়ি একটি আইন চাই। কেননা এরা বারবার নির্বাচিত হওয়ার কারণে তাদের মধ্যে একটি অহংকার হিসেবে কাজ করে।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
মাননীয় সাবেক শিক্ষা সচিব স্যার। আপনার মূল্যবান কথাগুলি যারা প্রশাসনের রয়েছে তাদের নোট করে রাখা দরকার। আর তাদের মনে মনে প্রতিজ্ঞা করা প্রয়োজন অতীত জীবনে শিক্ষকদের অধিকার নিয়ে যারা ছিনিমিনি খেলেছেন তাদের তওবা করে ভালো হয়ে যাওয়া দরকার।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
তিনি বলেন, ‘কোনো প্রধান শিক্ষক হয়তা না জেনে অথবা কোনো গুরুত্ব না দিয়ে অবহেলা করে শূন্যপদের তথ্য পাঠিয়ে দিয়েছেন। সেটা ঠিকও করেনি। সুতরাং এটা তো এনটিআরসিএর জানার কথা না, তাহলে হেডমাস্টারের এটা অবহেলা, কিংবা কোনো একটা অন্য কারণে সেটা করেছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক হবে, আর ভুল হবে না। ‘কি করিলে কি হয়’ একটা কন্ডিশনাল রিফ্লেক্স এখানে দরকার।’ এসব মূল্যবান কথা বলার জন্য স্যার আপনাকে জানাই হাজার বার সেলুট। জয় হোক আপনার জয় হোক মানবতার।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
জনাব এন আই খান স্যার। আপনি যখন অবসরে যাচ্ছিলেন তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের বে-সরকারী শিক্ষকদের দাবি-দাওয়ার ব্যাপারে দাবি জানিয়েছিলেন আমাদের চাকরি জাতীয়করণ করার জন্য। তাই ওই দাবি আদৌ বাস্তবায়ন হবে কি? নাকি আপনি অবসর যাওয়ার কারণে আমাদের সেই দাবির কথা ভুলে গিয়েছেন? আপনি হয়তো আমাদেরকে ভুলে যেতে পারেন কিন্তু শিক্ষকরা কখনো আপনাকে ভুলবেনা সেটি আপনি ভাল করে জানেন। আপনি যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যোগ্য ও একান্ত বিশ্বাসভাজন ব্যক্তি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের অধিকারের জন্য যদি একবার বলেন তাহলে তিনি আপনার কথা কিছু মতে অগ্রাহ্য করবেন না। তাই বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলামেলা আলোচনার জন্য ৫০০০০০ লক্ষ শিক্ষক-কর্মচারীদের পক্ষ হতে সবিনয়ে অনুরোধ জানাচ্ছি। সাথে সাথে আপনার দীর্ঘায়ু লাভের জন্যও মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা জানাচ্ছি। হয়তো এই সুবাদে শিক্ষক সমাজে আপনি হতে পারেন একজন মহৎ ব্যক্তি। আর আপনার মৃত্যুর পরেও আপনি পৃথিবীতে অমর হয়ে থাকবেন।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
জনাব এন আই খান স্যার। আপনি যখন অবসরে যাচ্ছিলেন তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের বে-সরকারী শিক্ষকদের দাবি-দাওয়ার ব্যাপারে দাবি জানিয়েছিলেন আমাদের চাকরি জাতীয়করণ করার জন্য। তাই ওই দাবি আদৌ বাস্তবায়ন হবে কি? নাকি আপনি অবসর যাওয়ার কারণে আমাদের সেই দাবির কথা ভুলে গিয়েছেন? আপনি হয়তো আমাদেরকে ভুলে যেতে পারেন কিন্তু শিক্ষকরা কখনো আপনাকে ভুলবেনা সেটি আপনি ভাল করে জানেন। আপনি যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যোগ্য ও একান্ত বিশ্বাসভাজন ব্যক্তি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের অধিকারের জন্য যদি একবার বলেন তাহলে তিনি আপনার কথা কিছু মতে অগ্রাহ্য করবেন না। তাই বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলামেলা আলোচনার জন্য ৫০০০০০ লক্ষ শিক্ষক-কর্মচারীদের পক্ষ হতে সবিনয়ে অনুরোধ জানাচ্ছি। সাথে সাথে আপনার দীর্ঘায়ু লাভের জন্যও মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা জানাচ্ছি। হয়তো এই সুবাদে শিক্ষক সমাজে আপনি হতে পারেন একজন মহৎ ব্যক্তি। আর আপনার মৃত্যুর পরেও আপনি পৃথিবীতে অমর হয়ে থাকবেন।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
জনাব এন আই খান স্যার। আপনি যখন অবসরে যাচ্ছিলেন তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের বে-সরকারী শিক্ষকদের দাবি-দাওয়ার ব্যাপারে দাবি জানিয়েছিলেন আমাদের চাকরি জাতীয়করণ করার জন্য। তাই ওই দাবি আদৌ বাস্তবায়ন হবে কি? নাকি আপনি অবসর যাওয়ার কারণে আমাদের সেই দাবির কথা ভুলে গিয়েছেন? আপনি হয়তো আমাদেরকে ভুলে যেতে পারেন কিন্তু শিক্ষকরা কখনো আপনাকে ভুলবেনা সেটি আপনি ভাল করে জানেন। আপনি যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যোগ্য ও একান্ত বিশ্বাসভাজন ব্যক্তি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের অধিকারের জন্য যদি একবার বলেন তাহলে তিনি আপনার কথা কিছু মতে অগ্রাহ্য করবেন না। তাই বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলামেলা আলোচনার জন্য ৫০০০০০ লক্ষ শিক্ষক-কর্মচারীদের পক্ষ হতে সবিনয়ে অনুরোধ জানাচ্ছি। সাথে সাথে আপনার দীর্ঘায়ু লাভের জন্যও মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা জানাচ্ছি। হয়তো এই সুবাদে শিক্ষক সমাজে আপনি হতে পারেন একজন মহৎ ব্যক্তি। আর আপনার মৃত্যুর পরেও আপনি পৃথিবীতে অমর হয়ে থাকবেন।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
জনাব এন আই খান স্যার। আপনি যখন অবসরে যাচ্ছিলেন তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের বে-সরকারী শিক্ষকদের দাবি-দাওয়ার ব্যাপারে দাবি জানিয়েছিলেন আমাদের চাকরি জাতীয়করণ করার জন্য। তাই ওই দাবি আদৌ বাস্তবায়ন হবে কি? নাকি আপনি অবসর যাওয়ার কারণে আমাদের সেই দাবির কথা ভুলে গিয়েছেন? আপনি হয়তো আমাদেরকে ভুলে যেতে পারেন কিন্তু শিক্ষকরা কখনো আপনাকে ভুলবেনা সেটি আপনি ভাল করে জানেন। আপনি যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যোগ্য ও একান্ত বিশ্বাসভাজন ব্যক্তি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের অধিকারের জন্য যদি একবার বলেন তাহলে তিনি আপনার কথা কিছু মতে অগ্রাহ্য করবেন না। তাই বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলামেলা আলোচনার জন্য ৫০০০০০ লক্ষ শিক্ষক-কর্মচারীদের পক্ষ হতে সবিনয়ে অনুরোধ জানাচ্ছি। সাথে সাথে আপনার দীর্ঘায়ু লাভের জন্যও মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা জানাচ্ছি। হয়তো এই সুবাদে শিক্ষক সমাজে আপনি হতে পারেন একজন মহৎ ব্যক্তি। আর আপনার মৃত্যুর পরেও আপনি পৃথিবীতে অমর হয়ে থাকবেন।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
জনাব এন আই খান স্যার। আপনি যখন অবসরে যাচ্ছিলেন তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের বে-সরকারী শিক্ষকদের দাবি-দাওয়ার ব্যাপারে দাবি জানিয়েছিলেন আমাদের চাকরি জাতীয়করণ করার জন্য। তাই ওই দাবি আদৌ বাস্তবায়ন হবে কি? নাকি আপনি অবসর যাওয়ার কারণে আমাদের সেই দাবির কথা ভুলে গিয়েছেন? আপনি হয়তো আমাদেরকে ভুলে যেতে পারেন কিন্তু শিক্ষকরা কখনো আপনাকে ভুলবেনা সেটি আপনি ভাল করে জানেন। আপনি যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যোগ্য ও একান্ত বিশ্বাসভাজন ব্যক্তি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের অধিকারের জন্য যদি একবার বলেন তাহলে তিনি আপনার কথা কিছু মতে অগ্রাহ্য করবেন না। তাই বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলামেলা আলোচনার জন্য ৫০০০০০ লক্ষ শিক্ষক-কর্মচারীদের পক্ষ হতে সবিনয়ে অনুরোধ জানাচ্ছি। সাথে সাথে আপনার দীর্ঘায়ু লাভের জন্যও মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা জানাচ্ছি। হয়তো এই সুবাদে শিক্ষক সমাজে আপনি হতে পারেন একজন মহৎ ব্যক্তি। আর আপনার মৃত্যুর পরেও আপনি পৃথিবীতে অমর হয়ে থাকবেন।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
জনাব এন আই খান স্যার। আপনি যখন অবসরে যাচ্ছিলেন তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের বে-সরকারী শিক্ষকদের দাবি-দাওয়ার ব্যাপারে দাবি জানিয়েছিলেন আমাদের চাকরি জাতীয়করণ করার জন্য। তাই ওই দাবি আদৌ বাস্তবায়ন হবে কি? নাকি আপনি অবসর যাওয়ার কারণে আমাদের সেই দাবির কথা ভুলে গিয়েছেন? আপনি হয়তো আমাদেরকে ভুলে যেতে পারেন কিন্তু শিক্ষকরা কখনো আপনাকে ভুলবেনা সেটি আপনি ভাল করে জানেন। আপনি যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যোগ্য ও একান্ত বিশ্বাসভাজন ব্যক্তি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের অধিকারের জন্য যদি একবার বলেন তাহলে তিনি আপনার কথা কিছু মতে অগ্রাহ্য করবেন না। তাই বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলামেলা আলোচনার জন্য ৫০০০০০ লক্ষ শিক্ষক-কর্মচারীদের পক্ষ হতে সবিনয়ে অনুরোধ জানাচ্ছি। সাথে সাথে আপনার দীর্ঘায়ু লাভের জন্যও মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা জানাচ্ছি। হয়তো এই সুবাদে শিক্ষক সমাজে আপনি হতে পারেন একজন মহৎ ব্যক্তি। আর আপনার মৃত্যুর পরেও আপনি পৃথিবীতে অমর হয়ে থাকবেন।
rezaemostafa, ১৯ মে, ২০২০
জনাব এন আই খান স্যার। আপনি যখন অবসরে যাচ্ছিলেন তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের বে-সরকারী শিক্ষকদের দাবি-দাওয়ার ব্যাপারে দাবি জানিয়েছিলেন আমাদের চাকরি জাতীয়করণ করার জন্য। তাই ওই দাবি আদৌ বাস্তবায়ন হবে কি? নাকি আপনি অবসর যাওয়ার কারণে আমাদের সেই দাবির কথা ভুলে গিয়েছেন? আপনি হয়তো আমাদেরকে ভুলে যেতে পারেন কিন্তু শিক্ষকরা কখনো আপনাকে ভুলবেনা সেটি আপনি ভাল করে জানেন। আপনি যেহেতু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যোগ্য ও একান্ত বিশ্বাসভাজন ব্যক্তি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের অধিকারের জন্য যদি একবার বলেন তাহলে তিনি আপনার কথা কিছু মতে অগ্রাহ্য করবেন না। তাই বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলামেলা আলোচনার জন্য ৫০০০০০ লক্ষ শিক্ষক-কর্মচারীদের পক্ষ হতে সবিনয়ে অনুরোধ জানাচ্ছি। সাথে সাথে আপনার দীর্ঘায়ু লাভের জন্যও মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা জানাচ্ছি। হয়তো এই সুবাদে শিক্ষক সমাজে আপনি হতে পারেন একজন মহৎ ব্যক্তি। আর আপনার মৃত্যুর পরেও আপনি পৃথিবীতে অমর হয়ে থাকবেন।