মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

sreechail madrasha, ১৮ আগস্ট , ২০২০
আপনার যুক্তি সঠি। শফিকুল ইসলাম
মোহাম্মাদ হাবিবুর রহমান, ১৬ আগস্ট , ২০২০
প্রভাষকদের আবেদনের সুযোগ দিলে প্রতিযোগিতা বাড়বে ।সুপার/ সহ:সুপারগণ সবাই আলিম ক্লাস এর বিষয়ে পাঠদানের অভিজ্ঞতা না থাকায় অনেকেই আবেদন করতে চাইবে না। এ ব্যাপারে অনতিবিলম্বে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ/উপাধ্যক্ষ পদে নিয়োগের বিধান সংশোধন করা ফরজ। অধ্যক্ষ মোঃ হাবিবুর রহমান মেহারী ওবায়দিয়া আলিম মাদ্রাসা, কসবা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ।
Sanjoy Kumar Roy, Lecturer in English, Bijoynagar Islamia Alim Madrasah, Kawkhali, Pirojpur., ১৬ আগস্ট , ২০২০
বেসরকারি প্রভাষকদের সকল প্রকার বৈষম্য দুর করা হোক...
মোঃ আশরাফুল হক, প্রভাষক(গণিত), ১৬ আগস্ট , ২০২০
নীতি নির্ধারনীদের বোধগম্য হউক। দাখিল শিক্ষক অালিমের বস এটা চরম লজ্জার। সংশোধন করে প্রভাষকদেরকে সুযোগ দিয়ে সঠিক মূল্যায়ন করা হউক।
মোঃ আবুল হোসেন, ১৫ আগস্ট , ২০২০
বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রভাষকদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন এমন বিষয়টি দৈনিক শিক্ষার মাধ‍্যমে উপস্থাপনের জন‍্য প্রথমে লেখককে অশেষ ধন‍্যবাদ জানাচ্ছি। বেসরকারি প্রভাষকদের সারাচাকরিজীবনের গ্লানি ও দীর্ঘশ্বাস অনুপাত প্রথা । যা তাদের সারাজীবনের অর্জন ( দক্ষতা, যোগ‍্যতা, অভিজ্ঞতা, মেধা ) - কে কোন মূল‍্যায়ন না করে অসম্মানজনকভাবে কলুরবলদের ন‍্যায় খাটিয়ে নিচ্ছে। না দিচ্ছে মর্যাদা, না অর্থ। তাই প্রথমে অনুপাত প্রথা বাতিল করে সকল প্রভাষকদেরকে সহকাীঅধ‍্যাপক পদে উন্নীত হওয়ার সমান সুযোগ করে দিতে হবে। এক্ষেত্রে অভিজ্ঞতা, শিক্ষাগত যোগ‍্যতা ও বিষয় ভিত্তিক মেধা ( পরীক্ষার মাধ‍্যমে )-কে বিবেচনা করা যেতে পারে। অতঃপর যদি সহকারীঅধ‍্যাপক পদ থেকে উপাধ‍্যক্ষ ও অধ‍্যক্ষের পদ পূরন করা হয়, তবে সকলের সমান সুযোগ অবারিত হবে এবং সকলে সমান গুরুত্ব পাবে। ফলশ্রুতিতে আমাদের শিক্ষাখাত একদিকে অত‍্যন্ত দক্ষ, যোগ্য ও অধিক মানসম্পন‍্য প্রশাসন পাবে এবং অন‍্যদিকে একদল অধিক দক্ষ, যোগ‍্য, অভিজ্ঞত ও মেধাবী শিক্ষক পাবে। যা আমাদের শিক্ষার মান উন্নয়নে অত‍্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আমি মনে করি।
মোঃ আবুল হোসেন, ১৫ আগস্ট , ২০২০
বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রভাষকদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন এমন বিষয়টি দৈনিক শিক্ষার মাধ‍্যমে উপস্থাপনের জন‍্য প্রথমে লেখককে অশেষ ধন‍্যবাদ জানাচ্ছি। বেসরকারি প্রভাষকদের সারাচাকরিজীবনের গ্লানি ও দীর্ঘশ্বাস অনুপাত প্রথা । যা তাদের সারাজীবনের অর্জন ( দক্ষতা, যোগ‍্যতা, অভিজ্ঞতা, মেধা ) - কে কোন মূল‍্যায়ন না করে অসম্মানজনকভাবে কলুরবলদের ন‍্যায় খাটিয়ে নিচ্ছে। না দিচ্ছে মর্যাদা, না অর্থ। তাই প্রথমে অনুপাত প্রথা বাতিল করে সকল প্রভাষকদেরকে সহকাীঅধ‍্যাপক পদে উন্নীত হওয়ার সমান সুযোগ করে দিতে হবে। এক্ষেত্রে অভিজ্ঞতা, শিক্ষাগত যোগ‍্যতা ও বিষয় ভিত্তিক মেধা ( পরীক্ষার মাধ‍্যমে )-কে বিবেচনা করা যেতে পারে। অতঃপর যদি সহকারীঅধ‍্যাপক পদ থেকে উপাধ‍্যক্ষ ও অধ‍্যক্ষের পদ পূরন করা হয়, তবে সকলের সমান সুযোগ অবারিত হবে এবং সকলে সমান গুরুত্ব পাবে। ফলশ্রুতিতে আমাদের শিক্ষাখাত একদিকে অত‍্যন্ত দক্ষ, যোগ্য ও অধিক মানসম্পন‍্য প্রশাসন পাবে এবং অন‍্যদিকে একদল অধিক দক্ষ, যোগ‍্য, অভিজ্ঞত ও মেধাবী শিক্ষক পাবে। যা আমাদের শিক্ষার মান উন্নয়নে অত‍্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আমি মনে করি।
আবু কামাল আজাদ, ১৪ আগস্ট , ২০২০
জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা২০১৮ তে সকল যোগ্য ও অভিজ্ঞতা সম্পন্ন প্রভাষকদের ঠকানো হয়েছে।যা মেধাবিকাশের অন্তরায়।আমরা চাই সকল অভিজ্ঞতা সম্পন্ন প্রভষককে সহকারী অধ্যাপক,উপাধ্যক্ষ ও ওঅধ্যক্ষ হওয়ার সুযোগ দেয়া হোক।
আবু কামাল আজাদ, ১৪ আগস্ট , ২০২০
জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা২০১৮ তে সকল যোগ্য ও অভিজ্ঞতা সম্পন্ন প্রভাষকদের ঠকানো হয়েছে।যা মেধাবিকাশের অন্তরায়।আমরা চাই সকল অভিজ্ঞতা সম্পন্ন প্রভষককে সহকারী অধ্যাপক,উপাধ্যক্ষ ও ওঅধ্যক্ষ হওয়ার সুযোগ দেয়া হোক।
Md. Ruhul Amin, ১৪ আগস্ট , ২০২০
সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন ছিল জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর। জননেত্রী শেখ হাসিনা বড্ড একা। এ সকল বিষয়ে তার হযত জানা নেই। শিক্ষা স্তরের নীতি নির্ধারকরা মনে করেন আমরা যেমন ইচ্ছা তেমন করব। এতে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বা জননেত্রীর সোনার বাংলা বাস্তবায়ন হোক বা না হোক তাতে কোন চিন্তা নেই। সুতরাং বিষয়টি দৈনিক শিক্ষার মাধ্যমে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীকে অবহিত করার অনুরোধ করছি।
sreechail madrasha, ১৪ আগস্ট , ২০২০
Thanks
Abdullah, ১৩ আগস্ট , ২০২০
আরবী বিষয়ের অযৌক্তিক শর্তারোপ করা হয়েছে । কাম্য যোগ্যতা থাকলে মাদরাসার জেনারেল প্রভাষকেরা কেন প্রশাসনিক পদে যেতে পারবেনা ।
Abdullah, ১৩ আগস্ট , ২০২০
কাম্য যোগ্যতা যদি থাকে তাহলে আরবী বিষয়সমুহের শর্ত কেন । মাদরাসার আরবী বিষয়ের সাথে প্রধানের সম্পর্ক কী । প্রভাষক যে কোন বিষয়ের হতে পারে ।
khondoker abdul mannan, ১৩ আগস্ট , ২০২০
যুক্তি সঙ্গত,
Md Babor Ali, ১৩ আগস্ট , ২০২০
I think the author has rightly said .Senior lecturers should be given the chance to submit their applications for being principal as well as vice principal as they are seriously loser due to a black law for the non government college teachers named " Anupat protha :" . Length of service 20 or more than 20 years ,many teachers of our country are still today working as a lecturer .It is pathetic & heart rending .On the other hand ,their students from newly established colleges are being Assistant Professor after completing 8 years . I would like to express heartfelt thanks to our visionary PM & our education minister for taking steps to remove Anupat Protha for the betterment of the non government college teachers .If it is it will be a historic step because no previous government did it as the present govt: is doing considering the problems of college teachers .
Md Babor Ali, ১৩ আগস্ট , ২০২০
I think the author has rightly said .Senior lecturers should be given the chance to submit their applications for being principal as well as vice principal as they are seriously loser due to a black law for the non government college teachers named " Anupat protha :" . Length of service 20 or more than 20 years ,many teachers of our country are still today working as a lecturer .It is pathetic & heart rending .On the other hand ,their students from newly established colleges are being Assistant Professor after completing 8 years . I would like to express heartfelt thanks to our visionary PM & our education minister for taking steps to remove Anupat Protha for the betterment of the non government college teachers .If it is it will be a historic step because no previous government did it as the present govt: is doing considering the problems of college teachers .
MUHAMMAD DELAWAR HUSAIN, ১৩ আগস্ট , ২০২০
আপনি সঠিক কথা বলেছেন। প্রভাষকদের ক্ষেত্রে সকল বৈষম্যের অবসান চাই। কেউ বয়েসে বড় হলেই সহকারী অধ্যাপক। আর ছোট হলে আজীবন প্রভাষক হয়ে অবসর। অধ্যক্ষ হওয়ার আশা নিরাশা হয়ে থেকে যাবে।
Jewel Khan, ১৩ আগস্ট , ২০২০
Keep Writing Regularly...(Nice)
মো. সাইফুল ইসলাম।, ১৩ আগস্ট , ২০২০
প্রভাষকদের এই অবস্থা কবে ঘুচবে জানিনা।
মু.মাহফুজার রহমান, ১৩ আগস্ট , ২০২০
২০১৮ নীতিমালা অনুয়ায়ী শিক্ষক নিয়োগ দ্রুত কার্যকর কর হউক ।