মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

আশরাফুল ইসলাম, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠান জাতীয়করন চাই। আশরাফুল, জামালপুর
আশরাফুল ইসলাম, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নিয়োগের অভিজ্ঞতা চাওয়া হয়¬- ৩ (তিন )বছরের সহঃপ্রধান হিসেবে অভিজ্ঞতা যাহা অমানবিক। তাই ইহা সংশোধন করে পুনরায় এমপিও নীতিমালা ২০১৫ চালু করার জন্য মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর সদয় দৃষ্টি কামনা করছি। আশরাফুল ইসলাম সহকারী শিক্ষক, ফুলকোচা উচ্চ বিদ্যালয় মেলান্দহ, জামালপুর।
MD.MIZANUR RAHMAN, ০৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
নতুন এমপিও নীতি মালাতে নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিও ভুক্তির ক্ষেত্রে ৩(তিন) বছর মেয়াদে শিক্ষার্থী ও পাশের যোগ্যতা সর্বচ্চ ৪০% ( শতকরা চল্লিশ ভাগ ) থাকা উচিত । যাহা জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা মানবতার মা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাই বোঝার যোগ্যতা বহন করে ।
Habibur Rahman Khan, ০৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
প্রধান শিক্ষক নিয়োগে বার লাখ, সহ-প্রধান শিক্ষক আট লাখ, সহ-,লাইব্রেরীয়ান পনের লাখ , অফিস সহকারি বার লাখ , পিওন দশ লাখ এছাড়া অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষ নিয়োগে তো টাকার হিসাব করাই যায় না । সভাপতি , সদস্য ছাড়াও এলাকার আরো অনেকেই নিয়োগ দিতে পারে । আসলে নিয়োগ যে কে দিতে পারে তা ভূক্তভুগিই জানে । এসকল সমস্যার সমাধান স্থানীয় নিয়োগ বন্ধ করে সরকারিভাবে নিয়োগ দেয়া এবং শিক্ষা ব্যবস্থার জাতীয়করণ ।
Habibur Rahaman, ০৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
চারটাতেই প্রথম বিভাগ/শ্রেণী প্রাপ্ত এবং এমফিল বা পিএইচডি ডিগ্রীধারী সকল শিক্ষককে (ডিগ্রী কলেজ বা ইন্টারমিডিয়েট কলেজ) নিঃশর্ত সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি দেয়ার জন্য মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।
sreechail madrasha, ০৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সহকারী অধ্যাপ, উপাধ্যক্ষ ও অধ্যক্ষ নিয়োগ জাতীয় পর্যায়ের ব্যবস্থাপনায় হোক। স্থানীয় পর্যায়ে দুনীতি হয়। সকল ক্ষেত্রে একটি তৃতীয় বিভাগ গ্রহণযোগ্য করা হোক অথবা নিয়োগ কালীন যোগ্যতা প্রযোজ্য হোক। আমার অনুরোধটি রাখার জন্য কতৃপক্ষের কাছে বিনীতভাবে অনুরোধ করছি।
মাহাবুবুর রহমান, ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
বদলির ব্যবস্থা চালু করা হোক।
Md.Golam faruk mithun, ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
বেসরকারি শিক্ষকদের নিভৃত কান্নার শব্দ কেউ শুনতে পায়না। শুধুমাত্র জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা মানবতার মা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাই শুনতে পেলে পান। ২০১০ সালের শিক্ষানীতি অনুযায়ী সহযোগী অধ্যাপকের পদে পদোন্নতির জন্য নীতিমালা প্রণয়ন করে বাস্তবায়নের কথা বলা ছিল।সে অনুযায়ী সহযোগী অধ্যাপক পদে পদোন্নতির বিষয়ে নীতিমালা প্রণয়ন করে বাস্তবায়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু জানিনা কোন অদৃশ্য কারণে তা বাস্তবায়ন করা হয় নি।২০২১সালে মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪১সালে উন্নত দেশের কাতারে যাবার জন্য শিক্ষকদের বৈষম্য ও বঞ্চনা দূর করতে হবে। না হলে তা বাস্তবায়ন সম্ভব নয়।তাই জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা মানবতার মা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট আকুল আবেদন এই নীতিমালায় সহযোগী অধ্যাপকের পদোন্নতির বিষয়ে নীতিমালা অনুমোদন করা হোক। জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে অর্থাৎ মুজিববষে মানবতার মা এর নিকট আমরা উপহার হিসেবে জাতীয়করণ এর ঘোষণা একান্ত ভাবে প্রত্যাশা করছি। তবেই তিনি জনগণের কাছে চির উজ্জ্বল নক্ষত্র হয়ে বেঁচে থাকবেন।
মোঃ মাহবুবুর রহমান, ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
শিক্ষা আইন বা নীতিমালা তৈরী করতে যদি বছরের পর বছর সময় লাগে। যারা বিনা টাকায় শিক্ষকতা করতেছেন, তাদের অবস্থাটা কি হবে। একবার কি ভেবে দেখেছেন....শিক্ষামন্ত্রীর দৃষ্টি কামনা করছি।
Habibur Rahaman, ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
শিক্ষক নিয়ে খেলে খেলে, শিক্ষাকে একবারে ধ্বংশের দারপ্রান্তে নিয়ে আসা হয়েছে। কেন জানি শিক্ষাটা এখন অপ্রয়োজনীয় বা হলেও চলে না হলেও চলে এমন একটি পণ্যে পরিণত হয়েছে। সে কারণেই আজ জাতী সভ্যতা হারাচ্ছে। আজ বৃদ্ধ বাবা মা সন্তানের কাছে বোঝা হয়েে দাড়াচ্ছে, বড়দের সম্মান ছোটদের স্নেহ করা চুলোয় যেতে বসেছে, সমাজে কেউ কারো উপকারের সুযোগ পেলে নিজের লাভ খুঁজতে শুরু করেছে, সরকারী অফিসের সকল কর্মকর্তা কর্মচারীর কাছে প্রাপ্য সেবার জন্য গেলেই চটকরে ১০০/৫০০/১০০০ বা লক্ষ টাকা চেয়ে বসার ন্যায় মারাত্বক অসভ্য হয়ে উঠছে। প্লিজ শিক্ষাকে গুরুত্ব দিন, নয়তো আমরা সকলেই কোন না কোনভাবে এই ভয়ানক অসভ্যতার স্বীকার হবোই হবো। ভালো শিক্ষক জাতীর কাঠামো গঠনের কারিগর।
Habibur Rahaman, ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
নতুন এমপিও নীতি মালাতেও নাকি ইন্টারমিডিয়েট কলেজের প্রভাষকগণের পদোন্নতি অর্থাৎ সহকারী অধ্যাপক পদে নতুনভাবে পদোন্নতি থাকছে না। যদি সত্য হয় তবে অনুপাত প্রথার মতো একই কালোনীতি পূণঃ প্রতিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে যা মোটেই ঠিক না। আমি ইন্টারমিডিয়েট কলেজের প্রভাষক বলে কেন পাবো না?? আবার এমফিল পিএইচডি ডিগ্রীধারী শিক্ষক ইন্টারমিডিয়েট কলেজেও আছে, তাদের প্রতি কি বৈমাত্রেয় আচরণ হবে না??? তাহলে এমফিল পিএইচডি ডিগ্রীধারী শিক্ষককে নিকটবর্তী ডিগ্রী কলেজে বদলী করা হোক!
sreechail madrasha, ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতির জন্য প্রস্তাবিত ১ঃ১ অনুপাত প্রথা গ্রহণযোগ্য হবে না, যদি জাতীয় পর্যায়ে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা না হয়। অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ ও সহকারী অধ্যাপক নিয়োগ জাতীয় পর্যায়ে পরীক্ষার মাধ্যমে হোক। স্থানীয় পর্যায়ে দুনীতি হয়।
মোঃ শাহাদাত হোসাইন, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
জাতীয় পর্যায়ে পরীক্ষা নিয়ে মেধাতালিকা প্রস্তুত করে প্রতিষ্ঠান প্রধান /সহ প্রধান নিয়োগ দেয়া হোক।
মোঃ শাহাদাত হোসাইন, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
বদলি ব্যবস্থা চালু করা হোক।
uzzwal mollick, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
স্নাতক পাস অফিস সহকারীদের প্রমোশনের ব্যাবস্থা রাখা হোক।শিক্ষকদের কথা সবাই বলে কিন্তু আমরা যারা সবার সমস্যা সমাধান করি তাদের কথাটা বলা উচিত নয় কি?
মো: সুমন হোসেন, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
শিক্ষকদের বাড়ি ভাড়া % এ আনা হোক
দেলোয়ার হোসেন সরকার, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
ব্যবসায় শিক্ষা বিষয়ে যে সকল শিক্ষক ম্যানেজিং কমিটির মাধ্যমে বৈধভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়েছেন তাদের এমপিও ভুক্তির জন্য আবেদন জানাচ্ছি।
MD.EDRISH ALI, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
আশা করে আছেন সবাই স্বীকৃতিপ্রাপ্ত হয়ে যুগ চলে যায় তবুও এমপিওর দেখা না পায়!দেখা যাক নীতি পরিবর্তন ও সংশোধন করে তাদের এমপিও পাওয়ার ভাগ্য হয় না কি?আলোর সকাল আসতে আর কত দেরি পানজেরি?রাত পোহাতে আর কত দেরি পানজেরি?
Rezaul Karim, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
দূর্নীতি রোধে সকল নিয়োগ NTRCA এর মাধ্যমে দেওয়ার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি ।
Amiya Roy, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন বেসরকারি শিক্ষদের বদলী প্রথা চালু করে স্থানীয় শিক্ষকদের দৌরাত্ম থেকে মুক্তি দিন।
Md Naimur Rahman, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী ও এমপিও নীতিমালা সংশোধন কমিটির সদস্যদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি যে, ০৪/১০/২০১০ থেকে ৩১/০২/২০১৬ পর্যন্ত বিধি সম্মত নিয়োগ প্রাপ্ত ডিগ্রী তৃতীয় শিক্ষকদের দয়া করে এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামোর অধীনে আনা হোক।
Jewel Khan, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
May All the Teachers Get Their Right.
Md Amirul islam, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
শিক্ষকদের প্রমোশনের ব্যবস্থা করা হল অথচ একই প্রতিষ্ঠানে তৃতীয় শ্রেণির / অফিসসহকারীকামকম্পিউটারঅপারেটর যারা রাত-দিন পরিশ্রম করে তাদের প্রমোশনের ব্যবস্থা করা হলো না। কি আর বলব আমাদের ভাগ্য খারাপ
sreechail madrasha, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সহকারী অধ্যাপক, উপাধ্যক্ষ ও অধ্যক্ষ নিয়োগ জাতীয় পর্যায়েপরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ দেওয়া হোক। স্থানীয় পর্যায়ের পরীক্ষায় দুর্নীতি হয়। সকল ক্ষেত্রে একটি তৃতীয় বিভাগ গ্রহণযোগ্য করা হোক অথবা নিয়োগকালীন যোগ্যতা প্রযোজ্য হোক। দয়া করে আমার অনুরোধটি বিবেচনা করলে কৃতজ্ঞ থাকব।