মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

মোঃআলী রাজ, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০
রাজু ভাই আপনার মন্তব্যটি আমার বোধগম্য নয়। আপনি বলেছেন স্ব স্ব প্রার্থীরা তাদের নিজ নিজ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নিয়োগ পাবে। এখানে কোন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নিয়োগের কথা বলছেন? মাদ্রাসায় শুধুমাত্র ইসলামী শিক্ষাকেন্দ্র কে বোঝানো হয়। এখানে কোন হিন্দুর সুযোগ নেই বা অন্য ধর্মের লোকেদের কোন প্রকার সুযোগ নেই। বিশেষ করে লাইব্রেরিয়ান এর ক্ষেত্রে। বিশেষ করে গ্রন্হগারিকের ক্ষেত্রে কোন বিধর্মীদের সুযোগ নেই। কারণ এখানে সব ইসলামী বিষয়ে কিতাব থাকে। আপনি বাংলা, ইংরেজি শিক্ষক হিসেবে আসতে পারেন। কিন্তু গ্রন্থগারিক হিসেবে না।
raju, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
সহকারী গ্রন্থাাাগারিক এর বেলায় এটা করলে সমস্যা নেই স্ব স্ব প্রার্থীরা তাদের নিজ নিজ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ পাবে,তাহলে তো হিন্দুদের দোহাই আসে না।
মোঃআলী রাজ, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
মাদ্রাসা শিক্ষায় শিক্ষিত গ্রন্থগারিক ছাড়া কোনভাবেই মাদ্রাসায় নিয়োগ দেয়া উচিত নয়। সেটা বাদে নিয়োগ দিলে বোকামি ছাড়া আর কিছুই হবে না। কেননা মাদ্রাসায় যদি সমমানের সুযোগ দেওয়া হয়, সেক্ষেত্রে একজন হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান অথবা অন্য ধর্মের লোক ও সমমানের অন্তর্ভুক্ত হবে সে ক্ষেত্রে মাদ্রাসায় ধর্মীয় কিতাব রয়েছে এবং এই ধর্মিয় কিতাবের অবমাননা হবে। তারা আরবি পড়তে পারে না বা জানে না তখন তারা ও আবার রীট করবে। যে আমাদের কেন নিয়োগ করা হচ্ছে না। আশা করি মহামান্য হাইকোর্ট এ বিষয়ে নজর দিবেন এবং মাদ্রাসা ছাত্রদের পক্ষে রায় দিবেন ইনশাআল্লাহ।
Jasim Uddin, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
এটা দলাদলী না ক‌রে সবার জন‌্য সমান সু‌যোগ দেওয়া উক ।
MD.ZAHIDUL ISLAM, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
যারা মাদ্রাসায় দাখিল পাশ করেছেন । আর বাকিগুলা জেনারেলে পড়াশুনা করেছেন তাদেরকে মাদ্রাসায় সহকারী লাইব্রেরিয়ান পদে নিয়োগ দিলে সমস্যা নাই।zqhid
MD.ZAHIDUL ISLAM, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
যারা মাদ্রাসায় দাখিল পাশ করেছেন । আর বাকিগুলা জেনারেলে পড়াশুনা করেছেন তাদেরকে মাদ্রাসায় সহকারী লাইব্রেরিয়ান পদে নিয়োগ দিলে সমস্যা নাই।
Abdul Hamid, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
লাইব্রেরিয়ান/ ক্যাটালগার পদে যে কোনো স্বীকৃত বিশ্বঃবিদ্যালয় হতে স্নাতক করে ডিপ্লোমাপাস করলে মাদ্রাসা/স্কুলে নিয়োগ দেওয়া উচিত!!! যে মাদ্রাসায় থেকে পাস করে ডিপ্লোমা পাসকরে যদি হাই স্কুলে নিয়োগ নিতে পারে!!! তাহলে জেনারেল/বাংলা থেকে স্নাতককরে ডিপ্লোমা পাস করে মাদ্রাসায় নিয়োগ নিতে পারবে না কেন???? এখানে জামিয়াতুল মোদার্রেছিনের দূর অভিসন্ধি / আত্নকেন্দ্রিক সিধান্ত!!! ২০১৮ প্রজ্ঞাপনসব ঠিক থাকলেও লাইব্রেরিয়ান পোস্টটি সবার জন্য উন্মুক্ত হওয়া উচিত!!! হাই কোর্ট যা সিধান্ত দিবে অবশ্যি সবার কথা বিবেচনা করবেন ইনশাআল্লাহ!!! আর মাদ্রাসায় জেনারেল শিক্ষকরাও অনেক শিক্ষিত তারাও যেন প্রতিষ্ঠানএর প্রধান/ সহঃ প্রধান হতে পারে এটার জন্য জোড় দাবি জানাচ্ছি দৈনিক শিক্ষা ডটকম এর কাছে.... এটা জেনাজেনারেলদের প্রানের দাবি, সময় উপযোগী দাবি......!
raju, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
গ্রন্থাগারিক কোনো শিক্ষক নয়,যে তাকে আরবি জানতে হবে,তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী মাএ,আরবি ক্লাস নেওয়ার জন্য তো সরকার আরবির শিক্ষক দিয়েছে,গ্রন্থাগারিক দিয়ে ক্লাশ নেয়ার অনিয়মের চিন্তা, বদ অভ্যাস মাথা থেকে জেরে ফেলুল, মুসলিম এ দেশে সকল মুসলিম আরবি ভাষায় পবিএ কুরআন শরীফ পড়তে পারে আর তাদের সাথে প্রতিহিংসা করা জামিয়াতুলের ঠিক না, দাখিল,আলেমের বইয়ের ওপরে বাংলায় ও বইয়ের নাম আছে তাই সংরক্ষণে সমস্যা নেই, শুধু আরবির দোহাই দিলে হবে? মাদরাসার শিক্ষা র্থীরা কি বিশ্বের ২৯ টি ভাষা জানে,২০১০ সালের নীতিমালা পরিবর্তন করে ২০১৮ সালে সংবিধান লংঘন করে বৈষম্যমূলক নীতিমালা করা হয়েছে আমারা এর তীব্র নিন্দা জানাই,এই নীতিমালায় জেনারেলদের সাথে প্রতারনা করা হয়েছে এটা জমিয়াতুলের একক পক্ষপাতিত্ব। মহামান্য হাইকোর্ট স্থগিতাদেশ দিয়েছেন তাতে সত্যের জয় হয়েছে,এখন সমমান হবে ইনশাআল্লাহ।
Md. Quamruzzaman, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
সহকারী লাইব্রেরিয়ান/ক্যাটালগার মাদরাসায় লাইব্রেরিয়ান পদ মাদরাসা থেকে পাশ থাকতে হবে এই নীতি মালা বাতিল করে স্নাতক/সমমান করতে হবে
Kamal Pasha, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
যারা মাদ্রাসায় দাখিল পাশ করেছেন তারা কুরআন-হাদিস, ফিকহ-উসুল, বালাগাত-মানতেক-ফারায়েজ, উসুলে তাফসির, উসুলে হাদিস, আরবি সাহিত্য বিভাগের রেফারেন্স গ্রন্থসমূহ আরবি-ফারসি ভাষায় রচিত। সকল বই বুঝতে ও লিখতে পারবেন।
Kamal Pasha, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
যারা মাদ্রাসায় দাখিল পাশ করেছেন । আর বাকিগুলা জেনারেলে পড়াশুনা করেছেন তাদেরকে মাদ্রাসায় সহকারী লাইব্রেরিয়ান পদে নিয়োগ দিলে সমস্যা নাই।