২১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে অ্যাডহক নিয়োগের দাবিতে সরকারিকৃত শিক্ষকদের স্মারকলিপি - কলেজ - দৈনিকশিক্ষা

২১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে অ্যাডহক নিয়োগের দাবিতে সরকারিকৃত শিক্ষকদের স্মারকলিপি

নিজস্ব প্রতিবেদক |

আগামী ২১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে আত্তীকরণ ও অ্যাাডহক নিয়োগের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি দিয়েছেন সরকারিকৃত কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীরা। বরিশালের বিভাগীয় কমিশনারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর দেয়া স্মারকলিপিটি জমা দিয়েছেন বাংলাদেশ সরকরি  কলেজ শিক্ষক পরিষদের (বাসকশিপ) নেতারা।

বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা, ভোলা, ঝালকাঠি, পিরোজপুরসহ বিভাগের ৬ জেলার ২৪টি সরকারিকৃত কলেজের শিক্ষক কর্মচারীদের পক্ষ থেকে স্মারকলিপিটি বিভাগীয় কমিশনারের হাতে তুলে দেয়া হয়।

স্মারকলিপি জমা দিয়ে শিক্ষকরা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকদের পদসৃজন ও অ্যাডহক নিয়োগের কাজ থেকে সরকারিকরণ বিরোধী, প্রতিহিংসাপরায়ণ ও মামলাবাজ শিক্ষা ক্যাডার কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করার দাবি জানিয়েছেন তারা। একইসাথে পরিদর্শন প্রতিবেদন অনুযায়ী দ্রুত সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষক-কর্মচারীদের পদসৃজন ও অ্যাডহক নিয়োগের দাবি জানিয়েছেন তারা। 

শিক্ষক নেতারা আরও বলেন, ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিটি উপজেলায় একটি করে স্কুল-কলেজ সরকারিকরণের ঘোষণা দেন। প্রধানমন্ত্রীর সেই ঘোষণার পাঁচ বছর অতিবাহিত হলেও এখনো পর্যন্ত একটি কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীদের পদসৃজন ও অ্যাডহক নিয়োগের কাজ সম্পন্ন হয়নি। ফলে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা সরকারিকরণের সুবিধা পাচ্ছেন না। ইতোমধ্যে এসব প্রতিষ্ঠান থেকে ৩ হাজারের বেশি শিক্ষক-কর্মচারী অবসরে গেছেন কোনো সরকারি সুযোগ সুবিধা ছাড়াই। প্রধানমন্ত্রীর নেয়া স্কুল-কলেজ সরকারিকরণ করার ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে মামলা করে বাধা সৃষ্টি করা শিক্ষা ক্যাডারের কতিপয় চিহ্নিত কর্মকর্তা শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা অধিদপ্তরের গুরুত্বপূর্ণ পদে বসে আত্তীকরণ প্রক্রিয়া আটকে রেখেছে বলেও অভিযোগ করেছেন শিক্ষকরা।
 
শিক্ষকরা আরও বলেন, এসব কর্মকর্তা বেশিরভাগ শিক্ষকদের নামের পাশে মন্তব্য কলামে অযাচিত নোট দিয়ে আত্তীকরণ ও অ্যাডহক নিয়োগে দেরি করছেন। তাই, সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকদের পদসৃজন ও অ্যাডহক নিয়োগের কাজ থেকে সরকারিকরণ বিরোধী, মামলাবাজ শিক্ষা ক্যাডার কর্মকর্তাদের বাদ দেয়ার দাবি জানিয়েছেন তারা।


 
একইসাথে সদ্য সরকারিকৃত কলেজগুলোর পরিদর্শন রিপোর্টের ভিত্তিতে সব শিক্ষক-কর্মচারীদের আগামী ২১ ফেব্রুয়ারির আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মধ্যেই শিক্ষকদের অ্যাাডহক নিয়োগের দাবি জানিয়েছেন তারা। দাবি আদায়ে সংগঠনের পক্ষ থেকে আগামী ২১ জানুয়ারি পর্যন্ত দেশের ৮ বিভাগীয় কমিশনারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে  স্মারকলিপি দেয়া হবে। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মধ্যে ৩০৫ টি কলেজের শিক্ষক কর্মচারীদের পদসৃজন ও অ্যাডহক নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন না হলে একই দাবিতে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হবে বলেও তারা জানান।

স্মারকলিপি জমা দেয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি এ কে এম দেলোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন মৃধা, সহ-সভাপতি মোঃ শামসুল আলম, টি আই এম  কামরুল আলম মিয়া, যুগ্ন সাধারণ সম্পদক মো. মানিক মিয়া বরিশাল জেলা সভাপতি  আবুল কালাম আজাদ, বাবু অরবিন্দ রায়, গোলাম মোস্তফ, ইয়াসিন, আক্তার হোসেন, গোকুল শিকদার, ঝালকাঠি জেলার মো. মনুরুজ্জামান  হোসেন, পিরোজপুর জেলার প্রশান্ত রায়, পটুয়াখালী জেলার মো. নাসির উদ্দীন বরগুনা জেলার মো. আব্দুর রহমানসহ সরকারিকৃত কলেজগুলোর শিক্ষকরা।

আপাতত ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha আপাতত ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন : শিক্ষামন্ত্রী পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস, দু’দিনেই প্রজ্ঞাপন - dainik shiksha পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস, দু’দিনেই প্রজ্ঞাপন ৯ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবিতে একাট্টা হচ্ছে সব সরকারি কর্মচারী সংগঠন - dainik shiksha ৯ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবিতে একাট্টা হচ্ছে সব সরকারি কর্মচারী সংগঠন নো মাস্ক নো স্কুল, ক্লাস হবে শিফটে : দুশ্চিন্তায় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha নো মাস্ক নো স্কুল, ক্লাস হবে শিফটে : দুশ্চিন্তায় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সাংবাদিকতার অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মিজানুর রহমান : স্মরণসভায় জেলা জজ - dainik shiksha সাংবাদিকতার অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মিজানুর রহমান : স্মরণসভায় জেলা জজ প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, দাবি প্রতিমন্ত্রীর - dainik shiksha প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, দাবি প্রতিমন্ত্রীর মাদরাসা শিক্ষার সমস্যার সমাধান দ্রুতই : শিক্ষা উপমন্ত্রী - dainik shiksha মাদরাসা শিক্ষার সমস্যার সমাধান দ্রুতই : শিক্ষা উপমন্ত্রী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন প্রকাশ, তিন ফুট দূরত্বে ক্লাসরুমের বেঞ্চ - dainik shiksha শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন প্রকাশ, তিন ফুট দূরত্বে ক্লাসরুমের বেঞ্চ ক্লাসরুমে সর্বোচ্চ ১৫ শিক্ষার্থী, প্রতি বেঞ্চে ১ জন - dainik shiksha ক্লাসরুমে সর্বোচ্চ ১৫ শিক্ষার্থী, প্রতি বেঞ্চে ১ জন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে - dainik shiksha শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে please click here to view dainikshiksha website