ইংরেজি মাধ্যমে শিক্ষা ব্যয় আধিক্যের যৌক্তিকতা - দৈনিকশিক্ষা

ইংরেজি মাধ্যমে শিক্ষা ব্যয় আধিক্যের যৌক্তিকতা

ড. মো. মাহমুদুল হাছান |

বাংলাদেশে মূলধারার শিক্ষা বলতে প্রধানত তিন ধারার শিক্ষাকে বোঝানো হয়ে থাকে বাংলা মাধ্যম, ইংরেজি মাধ্যম ও মাদরাসা শিক্ষাধারা। ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষায় আবার দু’টি বিশেষ ধারা রয়েছে; একটি জাতীয় শিক্ষাক্রমের ইংরেজি ভার্সন শিক্ষাধারা এবং অন্যটি হলো আন্তর্জাতিক শিক্ষাক্রমের ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষাধারা। অন্যদিকে, মাদরাসা শিক্ষাধারা আবার দু’টি শিক্ষাক্রমে পরিচালিত হয়ে থাকে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় নিয়ন্ত্রিত আলিয়া মাদরাসা এবং অন্যটি ব্যক্তিগত  ও সাধারণ জনগণের অর্থনৈতিক সহযোগিতায় পরিচালিত ক্বওমি মাদরাসা, যেটি খারেজি মাদরাসা হিসেবেও পরিচিত। অতএব আমাদের দেশের শিক্ষার্থীরা শিক্ষাধারার তিন দিকেই বিভাজ্য হয়ে থাকলেও ইংরেজি মাধ্যম শিক্ষাধারার প্রতি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের আগ্রহ প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে। 

২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের একটি পরিসংখানে দেখা যায়, দেশের সকল ধারার শিক্ষার্থীদের মধ্যে ইংরেজি মাধমের শিক্ষার্থীদের হার ছিলো তখন মাত্র ৫ থেকে ৭ শতাংশ এবং বর্তমানে এর হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ২৫ শতাংশে। সুতরাং ইংরেজি মাধ্যম শিক্ষা এখন বাংলাদেশের তিনটি মূল শিক্ষাধারার মধ্যে সর্বজনবিদিত একটি শিক্ষাধারা। ব্যানবেইসের পরিসংখ্যান অনুযায়ী বাংলাদেশ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের সংখ্যা প্রায় সাড়ে তিন শ। শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় আড়াই লাখ। বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন জানায়, দেশে প্রায় দুই হাজার ইংরেজি মাধ্যমের কিন্ডারগার্টেন স্কুল আছে, যেখানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় সাড়ে চার লাখ।

ইংরেজি মাধ্যম শিক্ষাধারার দ্রুত উন্নয়ন দেখে কিছু স্বার্থান্বেষী ব্যক্তিবর্গ অনেকটা উদ্দেশ্যমূলকভাবে এ শিক্ষাধারার বিরুদ্ধে কুৎসা রটিয়ে চলেছে। সম্প্রতি বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার কিছু সংবাদ পরিবেশনে আমি খুবই বিস্মিত এবং দুঃখিত যে, উক্ত শ্রেণির  ব্যক্তিবর্গ ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষা নিয়ে অনেক নেতিবাচক মন্তব্য করছেন। অনেকে এ শিক্ষাধারাকে দেশীয় কালচারের পরিপন্থি বলে প্রপাগান্ডা করছেন, কেউ এটিকে জাতীয় শিক্ষার জন্য হুমকি মনে করে এর বিরোধিতা করছেন, আবার ইদানিং একশ্রেণি শিক্ষিত মহল ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষাকে অভিজাত শ্রেণিদের বিলাসী শিক্ষাধারা বলে নানাভাবে বিষোদগার করে যাচ্ছেন। 

প্রশ্ন উঠেছে, ইংরেজি মাধ্যমে নাকি বাণিজ্যিক স্বার্থে পড়ালেখা করানো হয়, এখানে টাকাই নাকি শিক্ষার একমাত্র অবলম্বন। বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকার বরাতে প্রেস ব্রিফিংএ যে খবর ছাপা হয়েছে, সেখানে ইংলিশ মিডিয়াম প্যারেন্টস ফোরাম নামে একটি বেসরকারি সংস্থা ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের টিউশন ফি নিয়ে বিভিন্ন মন্তব্য করেছেন, যেটি আমার কাছে বেশ অতিরঞ্জিত ও অযৌক্তিক মনে হয়েছে। 

একটু বিশ্লেষণ করলে আমরা দেখতে পাই আমাদের দেশে মূলধারার যে শিক্ষা-কার্যক্রমগুলো রয়েছে তম্মধ্যে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষাক্রমটি সবচেয়ে যুগোপযোগী,  উপযুক্ত ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত মানসম্পন্ন। সুতরাং এ শিক্ষাধারায় পড়ালেখার খরচ বেশি হবে সেটাই স্বাভাবিক। দেশে থেকে বিদেশি শিক্ষাক্রমে যথোপযুক্ত দক্ষতাভিত্তিক শিক্ষা অর্জন করার ইচ্ছা পূরণ করতে দেশীয় শিক্ষাধারার চেয়ে টিউশন ফি বেশি হওয়াটা মোটেও অযৌক্তিক নয়। উল্লেখ্য যে, দেশের অন্যান্য শিক্ষাধারায় মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে যে একেবারে কম খরচ হয়, তা কিন্তু নয়। 

আমাদের দেশে ভালো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে ক্যাডেট কলেজগুলোকে সেরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বলে বিবেচনা করা হয় এবং সেখানকার শিক্ষাকে সঠিক শিক্ষার উচ্চতর মানদণ্ড বলেও ধরে নেয়া হয়, যদিও বাংলাদেশে ভালো ভালো আরো অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। বলতে দ্বিধা নেই যে, এ সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষা খরচ এতো বেশি  যা অনেক ইংলিশ মিডিয়াম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নেই। ৭ জুলাই ২০২৩ অনেক জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত এক তথ্যে জানা যায় যে, ক্যাডেট কলেজের প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য সরকারের বছরে ৫ লাখ ৩৪ হাজার টাকা ব্যয় হয়, যার পরিমাণ মাসে দাঁড়ায় ৪৪ হাজার ৫০০ টাকা। হ্যা, এ টাকার বরাদ্দ স্বয়ং সরকার দিলেও সেটি শিক্ষার্থীর পিছনেই তো খরচ হচ্ছে। এ ছাড়া এর বাইরেও অভিভাবকদের খরচ রয়েছে আরো অনেক। অথচ, আমাদের দেশের অধিকাংশ ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে মাসিক টিউশন ফি মাত্র ৬ থেকে ১৫ হাজার টাকার মধ্যে, যদিও হাতে গোণা কয়েকটিতে একটু বেশি পরিমাণ অর্থ নিয়ে থাকেন, সেটি নেয়ার পেছনে অবশ্যই তাদের কোনো ভ্যালিড কারণ রয়েছে। বাস্তবতার নিরীখে ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে শিক্ষা বাবদ যে খরচ নেয়া হয়, তা মোটেও অযৌক্তিক নয়। নিম্নে এর কয়েকটি যুক্তি ব্যাখ্যা করা হলো:

১. ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের শিক্ষা-কার্যক্রম আন্তর্জাতিক মানের, যেখানে বইয়ের মুদ্রণ মান, কন্টেন্ট ডেভেলপমেন্ট,  শিক্ষাক্রমের মান এবং উন্নত শিখন-শিক্ষণ পদ্ধতি সমাদৃত। 

২.  এখানে যোগ্যতা মূল্যায়ণ পরীক্ষা, ইনভিজিলেশন সিস্টেম, উত্তরপত্র নীরিক্ষা ও শিক্ষার্থীদের কেন্দ্রীয় চূড়ান্ত পরীক্ষা গ্রহণ প্রক্রিয়া  বিশেষভাবে গ্রহণ করা হয়ে থাকে, যা যথেষ্ট ব্যয়বহুল।

৩. ইংলিশ মিডিয়ামে শিক্ষকের মান নিয়ন্রণ ও দক্ষতা উন্নয়নকল্পে যে প্রফেশনাল প্রশিক্ষণ দেয়া হয় তা যথেষ্ট ব্যয়বহুল। শিক্ষার মান উন্নত রাখতে শিক্ষকদের পেছনে প্রচুর অর্থ ব্যয় করা হয়ে থাকে, যা অন্য ধারার শিক্ষায় করা হয় না।

৪. শিক্ষার্থীদের উন্নত পরিবেশ, আরামদায়ক ক্লাসরুম,  সিটিং চেয়ার-টেবিল, সার্বক্ষণিক শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত স্কুলাঙ্গন,  শিক্ষা সহায়ক সামগ্রী, বিজ্ঞানাগারের আপ-টু-ডেট যন্ত্রপাতি  এবং লেখা-পড়ার অন্যান্য সরঞ্জামের সরবরাহ নিসন্দেহে দেশের অন্যান্য ধারার শিক্ষা-কার্যক্রম থেকে দামি ও ব্যয়সাপেক্ষ। 

৫.  ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলগুলির লোকেশন, পারিপার্শ্বিক অবস্থা, ভৌত কাঠামো,  দৃষ্টিনন্দন বিল্ডিং, স্বাস্থ্যকর পরিবেশের নিশ্চয়তা এবং উন্নত যোগাযোগ মাধ্যম বিবেচনায় রেখে যে সুযোগ-সুবিধা শিক্ষার্থীদেরকে প্রদান করা হয়, তাতে এ খরচ বহুগুনে বেড়ে যায়। ধরুন, যে প্রতিষ্ঠানগুলো রাজধানীর অভিজাত এলাকাতে অবস্থিত সেখানকার ব্যয়ভার, আর অন্যান্য শহর বা বিভাগীয় পর্যায়ের কোনো জায়গাতে অবস্থিত কোনো প্রতিষ্ঠানের ব্যয়ভার কোনোভাবেই সমান হতে পারে না। রাজধানীর অভিজাত এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ব্যয় অবশ্যই বেশি হতে হবে।

৬. জাতীয় সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যগত বিভিন্ন অনুষ্ঠান উদযাপনের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মান ঠিক রাখতে বিভিন্ন জাতীয় ও বিশ্বদিবসগুলোর প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে যে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়, তা অন্য শিক্ষাধারা থেকে ব্যতিক্রম এবং সেগুলো অনেক ব্যয়বহুল। 

৭. ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলোতে পাঠ্যক্রমের বাইরেও সহপাঠ্যক্রমিক শিক্ষা কার্যক্রম যেভাবে সম্পন্ন করা হয়, তা নিসন্দেহে ব্যয়সাপেক্ষে। এখানে ইনডোর ও আউটডোর কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ক্লাবভিত্তিক শিক্ষার্থীদেরকে বিভক্ত করে বহুমাত্রিক সৃষ্টিশীল কাজকর্মের যে আয়োজন করা হয় তার ব্যয় মেটাতে নিশ্চয়ই অনেক অর্থের প্রয়োজন হয়। এ ছাড়া, অধিকাংশ ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলো তাদের বড় বড় অনুষ্ঠানগুলো লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যয় করে ভাড়াকৃত কোনো নামীদামি হোটেলে উদযাপন করে থাকে। এ ছাড়া, তাদের ক্রীড়ানুষ্ঠানগুলোও  শহরের বড় বড় মাঠ ভাড়া করে সম্পন্ন করতে হয়। 

৮. ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলে শিক্ষার্থীদেরকে বিশ্বমানে তৈরি করতে তাদের ইংরেজিতে কমিউনিকেশন স্কিল উন্নত করার পাশাপাশি তৃতীয় ভাষা হিসেবে একাধিক ভাষা শেখানো হয়ে থাকে, যেটি অন্য ধারার শিক্ষায় শেখার সুযোগ থাকে না। বহুভাষিক শিখনে শিক্ষকদেরকে উচ্চ বেতনে নিয়োগ দেয়া হয়ে থাকে।

৯. চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের এ যুগে জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জন করতে শিক্ষার্থীদেরকে এমনভাবে শিক্ষা দেয়া হয়, যেনো তারা ইংলিশ মিডিয়াম থেকে লেখাপড়া শেষ করে বহির্বিশ্বে উচ্চশিক্ষার জন্য নিজেদেরকে যোগ্য প্রার্থী হিসেবে প্রস্তুত করতে পারে। শিক্ষার্থীদেরকে নেতৃত্বের গুণাবলি অর্জন, উদ্যোক্তা তৈরির প্রশিক্ষণ, শারীরিক ফিটনেসসহ অন্যান্য বহুমাত্রিক শিক্ষায় শিক্ষিত করা হয় এ ইংলিশ মিডিয়াম শিক্ষাধারায়।

১০. ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল পরিচালনার সঙ্গে যারা জড়িত প্রিন্সিপালসহ অন্যান্য শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন কাঠামো অন্যান্য শিক্ষাধারার ব্যক্তিবর্গের বেতন কাঠামো থেকে অনেক উন্নত। এখানে শিক্ষক শিক্ষার্থীর আনুপাতিক হার ১:১০, ফলে বেশি শিক্ষক নিয়োগদানের মাধ্যমে শিক্ষাকে অত্যাধুনিক মানে নিশ্চিত করা হয় এবং এর পেছনে অনেক অর্থ ব্যয় করতে হয়।

১১. একবিংশ শতাব্দি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় শিক্ষার্থীদেরকে যোগ্য প্রার্থী হিসেবে তৈরি করতে যে সকল দক্ষতার বিকাশ লাভ  প্রয়োজন ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলোতে সেদিকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়ে থাকে। এমনকি শিক্ষার্থীদেরকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রতিযোগিতয় টিকে রাখার যোগ্যতা উন্নয়নে শিক্ষার্থীদেরকে বিভিন্ন দেশে এক্সচেঞ্জ প্রগ্রামের মাধ্যমে কোলাবরেশন বৃদ্ধি করা হয়। ফলে বিদেশে উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য পরবর্তিতে তাদের আর কোনো সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় না। এ ছাড়া স্কুল জীবন থেকে তাদের মধ্যে যোগাযোগ দক্ষতা উন্নত হওয়ার কারণে তাদের  ক্যারিয়ার জগতে অনেক সাফল্য অর্জন করতে সহজ হয়। আর এভাবে তাদেরকে প্রস্তুত করতে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে প্রচুর বাজেট বরাদ্দ করতে হয়।

সর্বোপরি,  এটি বলা বাহুল্য যে, আমাদের দেশের অধিকাংশ অর্থনৈতিকভাবে স্বচ্ছল অভিভাবকের ইচ্ছা থাকে তাদের সন্তান বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য গমন করুক। তাই তারা উন্নত শিক্ষাধারা হিসেবে ইংরেজি মাধ্যমকে বেছে নেয়। কারণ, এটি প্রমাণিত সত্য যে, বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে হলে যে সকল শিক্ষার্থী ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ে ‘ও’ লেভেল এবং ‘এ’ লেভেলে উত্তীর্ণ হয়, তাদের জন্য বিদেশ যাত্রা অনেক সহজ হয়। সুতরাং, উপরে উল্লেখিত যৌক্তিক উপস্থাপনাগুলো বিশ্লেষণ করলে এটি সহজেই অনুধাবন করা যায় যে, আপাতত দৃষ্টিতে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষা ব্যয়বহুল মনে হলেও তা কোনোভাবেই বেশি নয়। কারণ, ভালো শিক্ষা নিশ্চিত করতে যে বেশি অর্থের প্রয়োজন হয়, তা আমাদের দেশের ক্যাডেট কলেজগুলোর শিক্ষাব্যবস্থার সঙ্গে তুলনা করলে বোঝা যায়, ইংরেজি মাধ্যমে শিক্ষাব্যবস্থা কেনো ব্যয়বহুল এবং এর টিউশন ফি ও ভর্তি ফি’র আধিক্য কেনো যৌক্তিক। যারা অযথা ইংরেজি মাধ্যমে ধার্যকৃত টিউশন ও ভর্তি ফি নিয়ে বিতর্ক তোলেন, এটি তাদের অজ্ঞতা ও পক্ষপাতমূলক আচরণ বৈ কিছুই নয়। দেশের মূলধারার ইংরেজি মাধ্যম শিক্ষার ক্রমোন্নতি ও অগ্রগতি নিয়ে তাদের পরামর্শ ও সুচিন্তিত মতামত আমাদের জন্য অতীব সুফল বয়ে আনতে পারে। তবে এটিও সত্য, যারা পর্যাপ্ত পরিমাণে টিউশন ফি চার্জ করেন, তা থেকে বিরত থাকার জন্য কর্তৃপক্ষের প্রতি আমাদের আবেদন থাকবে সদা সবল।

লেখক: প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ স্মার্ট এডুকেশন নেটওয়ার্ক (বিডিসেন)

 

বিদেশি শিক্ষার্থীদের গ্রিন কার্ড দেবেন ট্রাম্প - dainik shiksha বিদেশি শিক্ষার্থীদের গ্রিন কার্ড দেবেন ট্রাম্প বেসরকারি মেডিক্যালে ভর্তি: নিশ্চায়নের এসএমএস শুরু ২৩ জুন - dainik shiksha বেসরকারি মেডিক্যালে ভর্তি: নিশ্চায়নের এসএমএস শুরু ২৩ জুন আমলাদের একাংশ দুর্নীতিপরায়ণ হয়ে উঠেছে - dainik shiksha আমলাদের একাংশ দুর্নীতিপরায়ণ হয়ে উঠেছে কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তথ্য বাতায়ন হালনাগাদ নিশ্চিতের নির্দেশ - dainik shiksha কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তথ্য বাতায়ন হালনাগাদ নিশ্চিতের নির্দেশ মাধ্যমিক পর্যায়ে স্কুল খুলছে ২৬ জুন, শনিবারও ছুটি - dainik shiksha মাধ্যমিক পর্যায়ে স্কুল খুলছে ২৬ জুন, শনিবারও ছুটি শিক্ষা আমাদেরকে আমলাতান্ত্রিক করছে নাকি আমলাতন্ত্রই শিক্ষাব্যবস্থা সৃষ্টি করেছে - dainik shiksha শিক্ষা আমাদেরকে আমলাতান্ত্রিক করছে নাকি আমলাতন্ত্রই শিক্ষাব্যবস্থা সৃষ্টি করেছে গাজায় ৬ লাখেরও বেশি শিশু শিক্ষা থেকে বঞ্চিত: জাতিসংঘ - dainik shiksha গাজায় ৬ লাখেরও বেশি শিশু শিক্ষা থেকে বঞ্চিত: জাতিসংঘ দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে - dainik shiksha কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে - dainik shiksha র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে please click here to view dainikshiksha website Execution time: 0.0029799938201904