এইচএসসির প্রশ্ন নিয়ে অবহেলা, শিক্ষার দুই ক্যাডার শাস্তির খাঁড়ায় - দৈনিকশিক্ষা

এইচএসসির প্রশ্ন নিয়ে অবহেলা, শিক্ষার দুই ক্যাডার শাস্তির খাঁড়ায়

ইয়াসমীন আরা ইতি, দৈনিক শিক্ষাডটকম |

ইয়াসমীন আরা ইতি, দৈনিক শিক্ষাডটকম: এইচএসসি পরীক্ষার মতো অতি গুরুত্বপূর্ণ পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের নিরাপত্তা রক্ষায় ব্যর্থতার দায়ে কঠোর শাস্তি পাচ্ছেন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারভুক্ত সরকারি কলেজের দুই শিক্ষক। তারা হলেন- বাগেরহাট সরকারি মহিলা কলেজের

উপাধ্যক্ষ প্রকাশ কুমার মালাকার ও একই কলেজের উদ্ভিদবিজ্ঞানের প্রভাষক মেরাজ সরদার। তাদের বিরুদ্ধে জীববিজ্ঞান প্রথমপত্রের প্রশ্নের পরিবর্তে জীববিজ্ঞান দ্বিতীয়পত্রের প্রশ্ন ও সেট বদল করে ফয়েল প্যাকেট খোলার অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে বলে জানা গেছে। আর তাই তাদেরকে শাস্তি দেয়া হচ্ছে।

ইতোমধ্যেই ওই দুই ক্যাডারকে কারণ দশার্নোর নোটিস দিয়েছেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খান। গত ১৪ মে জারি করা নোটিসে তাদেরকে কেনো বরখাস্ত করা হবে না বা উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হবে না নোটিস পাওয়ার ১০ কর্মদিবসের মধ্যে তা জানাতে বলা হয়েছে।
দৈনিক আমাদের বার্তার অনুসন্ধানে জানা গেছে, গত বছরের উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষায় একদিনের পরীক্ষার প্রশ্ন ওই পরীক্ষা অনুষ্ঠানের কমপক্ষে তিনদিন আগে খুলে ধরা পড়েছেন এই দুই শিক্ষক। এ ঘটনাকে অসদাচরণ ও সরকারি দায়িত্ব পালনে অবহেলা হিসেবে গণ্য করে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ‍অভিযুক্ত উপাধ্যক্ষ প্রকাশ কুমার মালাকার দৈনিক আমাদের বার্তাকে বলেন, ‘সচিব মহোদয়ের দেওয়া নোটিস পেয়েছি। জবাব প্রস্তুত করেছি। দুএকদিনের মধ্যে জমা দেবো।’

পরীক্ষার তিন দিন আগে প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খোলার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সেটা ভুলক্রমে হয়েছিলো। প্রশ্ন আউট হয়নি, কেউ ক্ষতিগ্রস্ত বা লাভবান হননি।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে সয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল  SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

ছাত্রদলের ২৬০ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা - dainik shiksha ছাত্রদলের ২৬০ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা ছাত্রলীগের মাধ্যমে শিক্ষামন্ত্রী কওমি মাদরাসার ঐতিহ্য নষ্ট করতে চান - dainik shiksha ছাত্রলীগের মাধ্যমে শিক্ষামন্ত্রী কওমি মাদরাসার ঐতিহ্য নষ্ট করতে চান ঈদে চার বিভাগে বেশি বৃষ্টিপাত হতে পারে - dainik shiksha ঈদে চার বিভাগে বেশি বৃষ্টিপাত হতে পারে সব সময় গাছ লাগানো আমাদের নীতি ছিলো: প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha সব সময় গাছ লাগানো আমাদের নীতি ছিলো: প্রধানমন্ত্রী কখনো বিদ্যালয়ে যায়নি তিন কোটি মানুষ - dainik shiksha কখনো বিদ্যালয়ে যায়নি তিন কোটি মানুষ বিসিএস ছেড়ে নন-ক্যাডারে যোগ দিলেন কর্মকর্তা - dainik shiksha বিসিএস ছেড়ে নন-ক্যাডারে যোগ দিলেন কর্মকর্তা ১৯ জন শিক্ষক বেতন পান না ৭ মাস ধরে - dainik shiksha ১৯ জন শিক্ষক বেতন পান না ৭ মাস ধরে দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে - dainik shiksha কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে - dainik shiksha র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে please click here to view dainikshiksha website Execution time: 0.0029227733612061