একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি বাণিজ্যের অভিযোগ - এইচএসসি/আলিম - দৈনিকশিক্ষা

একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি বাণিজ্যের অভিযোগ

ফুলবাড়িয়া প্রতিনিধি |

সরকারি নীতিমালা তোয়াক্কা না করে ফুলবাড়িয়ায় একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি বাণিজ্য করার অভিযোগ রয়েছে কলেজগুলোর বিরুদ্ধে।

উপজেলার প্রায় প্রতিটি কলেজে ২৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ৪৩০০ টাকা পর্যন্ত ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেয়া হয়েছে। অথচ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র অনুযায়ী একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি বাবদ নির্ধারণ করা হয়েছে ১০০০ টাকা।

রোববার সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, ফুলবাড়িয়া ডিগ্রি কলেজে একাদশ শ্রেণির মানবিক শাখায় ভর্তি বাবদ ৪০৯০ টাকা, বিজ্ঞান ও ব্যবসায় বাণিজ্য শাখা ৪২০০ টাকা করে নেয়া হচ্ছে। এ ছাড়াও ভর্তি ফরম বাবদ নেয়া হচ্ছে আরও ১০০ টাকা।

আছিম শাহাবুদ্দীন ডিগ্রি কলেজে মানবিক শাখায় ৩০০০ টাকা, বিজ্ঞান ও ব্যবসায় বাণিজ্য শাখা ভর্তি বাবদ ৩৫০০ টাকাসহ ভর্তি ফরম বাবদ নেয়া হচ্ছে ২০০ টাকা। কেশরগঞ্জ ডিগ্রি কলেজে মানবিক শাখায় ২৭০০ টাকা, বিজ্ঞান ও ব্যবসায় বাণিজ্য শাখা ২৮০০ টাকা।

আছিম শাহাবুদ্দীন ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মকবুল হোসেন বলেন, কলেজে গভর্নিং বডির সিদ্ধান্তেই একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির ফি ৩০০০ থেকে ৩৫০০ টাকা।

ফুলবাড়িয়া ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবুল কালাম বলেন, ভর্তির জন্য যে টাকা নেয়া হচ্ছে তা গভর্নিং বডির সিদ্ধান্তেই হচ্ছে। এখানে আমার কিছু করার নেই।

ফুলবাড়িয়া উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নাসরিন আক্তার বলেন, যেসব কলেজের বিরুদ্ধে একাদশ শ্রেণির ভর্তির জন্য অতিরিক্ত টাকা নেয়ার অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানানো হবে।

আসছে বছর থেকেই পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে প্রোগ্রামিং - dainik shiksha আসছে বছর থেকেই পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে প্রোগ্রামিং ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন - dainik shiksha ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন এসএসসির ৭৫ শতাংশ ও জেএসসির ২৫ শতাংশে এইচএসসির ফল - dainik shiksha এসএসসির ৭৫ শতাংশ ও জেএসসির ২৫ শতাংশে এইচএসসির ফল ইবতেদায়ি ও দাখিল শিক্ষার্থীদের পঞ্চম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ - dainik shiksha ইবতেদায়ি ও দাখিল শিক্ষার্থীদের পঞ্চম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতনও ইএফটিতে - dainik shiksha প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতনও ইএফটিতে ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার দায়িত্ব মাদরাসা বোর্ডের - dainik shiksha ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার দায়িত্ব মাদরাসা বোর্ডের প্রতি স্কুলের তিন শিক্ষককে করতে হবে কৈশোরকালীন পুষ্টি প্রশিক্ষণ - dainik shiksha প্রতি স্কুলের তিন শিক্ষককে করতে হবে কৈশোরকালীন পুষ্টি প্রশিক্ষণ please click here to view dainikshiksha website