এসএসসির কেন্দ্র নিয়ে বাণিজ্য, ময়মনসিংহে তোলপাড় - দৈনিকশিক্ষা

এসএসসির কেন্দ্র নিয়ে বাণিজ্য, ময়মনসিংহে তোলপাড়

দৈনিক শিক্ষাডটকম প্রতিবেদক |

দৈনিক শিক্ষাডটকম প্রতিবেদক : শিক্ষা নগরী ময়মনসিংহের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বোর্ডের এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র নিয়ে বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এসএসসি পরীক্ষার আসন বিন্যাস নিয়ে বাণিজ্য হয়েছে বলে অভিভাবকরা অভিযোগ তুলেছেন। তারা বলছেন, প্রতিবছর এ স্কুলের ছাত্রীরা ময়মনসিংহ জিলা স্কুলে এসএসসি পরীক্ষায় বসলেও এবার অন্য দুটি স্কুলে তাদের পরীক্ষার আয়োজন করা হয়েছে। অভিভাবকদের অভিযোগ, বিদ্যাময়ী গার্লস হাইস্কুলের ‘অপেক্ষাকৃত মেধাবী’ ছাত্রীদের সঙ্গে অন্য কয়েকটি স্কুলের ছাত্রীদের পরীক্ষা দেয়ার আয়োজন করে ওই স্কুলগুলোর ছাত্রীদের সুবিধা দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। আর এ নিয়ে কয়েকটি স্কুলের একটি সিন্ডিকেট বাণিজ্য করছে বলে অভিযোগ অভিভাবকদের। স্কুলটির কয়েকজন এসএসসি পরীক্ষার্থীর অভিভাবক এসব অভিযোগ তুলেছেন দৈনিক শিক্ষাডটকমের কাছে।

অভিভাবকরা বলছেন, গত কয়েকবছর বিদ্যাময়ী গার্লস হাইস্কুলের ছাত্রীরা জিলা স্কুলে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছেন। তবে আগামী বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হতে যাওয়া ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দের এসএসসি পরীক্ষায় এ স্কুলটির ছাত্রীদের সিট ফেলা হয়েছে মহিলা সমিতি উদয়ন উচ্চ বিদ্যালয় ও সানফ্লাওয়ার আইডিয়াল হাই স্কুলে। অন্য কয়েকটি স্কুলের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের সুবিধা দিতে এমনটি করা হয়েছে। 

ময়মনসিংহ-১ কেন্দ্রের সচিবের দায়িত্বে থাকা জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও বিদ্যাময়ী গার্লস হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষকসহ কয়েকজনের একটি সিন্ডিকেট কতিপয় অসাধু অভিভাবকের সন্তানকে অনৈতিক সুযোগ দিতে এমনটি করেছেন বলে দাবি অভিভাবকদের।

মহিলা সমিতি উদয়ন উচ্চ বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ওই স্কুলটিতে বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ছাড়াও শহীদ জিয়া হাই স্কুল ও চরনিলক্ষীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার আয়োজন করা হয়েছে। 

সানফ্লাওয়ার আইডিয়াল হাই স্কুল ও মহিলা সমিতি উদয়ন উচ্চ বিদ্যালয়

আর সানফ্লাওয়ার আইডিয়াল হাই স্কুল সূত্রে জানা গেছে, এ প্রতিষ্ঠানে বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সঙ্গে মহিলা সমিতি উদয়ন উচ্চ বিদ্যালয় ও বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ মতিউর রহমান একাডেমি স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার আয়োজন করা হয়েছে।  

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ড সূত্র জানা গেছে, শিক্ষার্থীদের ভেন্যু কেন্দ্র নির্ধারণ করে সংশ্লিষ্ট কেন্দ্র কমিটি। জেলা সদরের ক্ষেত্রে এ কমিটির প্রধান সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক। কমিটির সদস্য সচিবের দায়িত্বে থাকেন কেন্দ্র সচিব। বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্র ময়মনসিংহ-১ বা ময়মনসিংহ জিলা স্কুল। 

তবে, এ বিষয়ে জানতে চাইলে ময়মনসিংহ-১ কেন্দ্রের সচিবের দায়িত্বে থাকা জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক অনিমা রানী সাহা অভিভাবকদের তোলা এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে প্রথমে আগ্রহ নিয়ে দৈনিক শিক্ষাডটকমের সঙ্গে কথা শুরু করলেও অভিযোগের বিষয়টি আসতেই তিনি তা এড়িয়ে যান। তিনি দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, এ ধরনের অভিযোগের বিষয়টি ঠিক না। আমি এখন একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানে আছি, এখন আর কথা বলতে পারবো না। 

জানতে চাইলে বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা নাছিমা আক্তার দৈনিক শিক্ষাডটকমে বলেন, এ ধরনের অভিযোগের বিষয়ে শুনিনি। আর আমার স্কুলের ছাত্রীরা ময়মনসিংহ-১ কেন্দ্রের অধীনে। আমি ময়মনসিংহ-৪ কেন্দ্রের (বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়) সচিবের দায়িত্বে আছি। তাই এ বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবো না। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ময়মনসিংহ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক মো. সামসুল ইসলাম দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, ভেন্যু কেন্দ্র নির্ধারণ করেন কেন্দ্র কমিটি সংশ্লিষ্টরা। জেলা শহরের কেন্দ্রের কমিটির প্রধান জেলা প্রশাসক মহোদয়। আমার মনে হয় এ বিষয়টি আমার এখতিয়ার বহির্ভূত। তাই এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছি না। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক ও ময়মনসিংহ-১ কেন্দ্র কমিটির প্রধান দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, অভিভাবকদের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ আমাদের কাছে আসেনি। তারা এ বিষয়ে আমাদের জানালে আমরা বিষয়টি যাচাই-বাছাই করে দেখবো। 

শিক্ষাসহ সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক আমাদের বার্তার ইউটিউব চ্যানেলের সঙ্গেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক আমাদের বার্তার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক আমাদের বার্তার ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

মসজিদে মাদরাসার শিক্ষক খুন - dainik shiksha মসজিদে মাদরাসার শিক্ষক খুন পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে স্কলারশিপ, আবেদন শেষ ৩০ জুন - dainik shiksha পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে স্কলারশিপ, আবেদন শেষ ৩০ জুন দেশের মানুষের চিকিৎসা ব্যয় বছরে ৭৭ হাজার কোটি টাকা - dainik shiksha দেশের মানুষের চিকিৎসা ব্যয় বছরে ৭৭ হাজার কোটি টাকা ভুল চাহিদায় নিয়োগবঞ্চিত শিক্ষকদের জন্য সুখবর - dainik shiksha ভুল চাহিদায় নিয়োগবঞ্চিত শিক্ষকদের জন্য সুখবর ছুটি শেষে কাল খুলছে সরকারি অফিস, চলবে নতুন সূচিতে - dainik shiksha ছুটি শেষে কাল খুলছে সরকারি অফিস, চলবে নতুন সূচিতে দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে - dainik shiksha কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে - dainik shiksha র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে please click here to view dainikshiksha website Execution time: 0.0032889842987061