ক্ষতি পোষাতে শিক্ষার গুণগত মান কমানো যাবে না : শেখ শহীদুল - কলেজ - দৈনিকশিক্ষা

ক্ষতি পোষাতে শিক্ষার গুণগত মান কমানো যাবে না : শেখ শহীদুল

দৈনিকশিক্ষা ডেস্ক |

সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ও জাতীয় পার্টি-জেপির সাধারণ সম্পাদক শেখ শহীদুল ইসলাম বলেছেন, করোনা মহামারী শিক্ষা ও অর্থনীতিতে সর্বগ্রাসী রূপ নিয়েছে। প্রায় সাত মাস ধরে শিক্ষার্থীরা স্কুল-কলেজ- বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে। অনলাইন ক্লাসে শিক্ষার্থীদের অল্পবিস্তর পড়াশোনা চলছে। ক্ষতি সামলাতে অটোপ্রমোশনসহ বিভিন্ন বিষয় চিন্তা করা হচ্ছে। তবে উচ্চ শিক্ষায় অটোপ্রমোশন দিয়ে কখনই গুণগত মান কমানো উচিত হবে না। শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

শহীদুল ইসলাম বলেন, দেশে করোনা পরিস্থিতি এখনো স্বাভাবিক পর্যায় থেকে অনেক দূরে। সংক্রমণ হার পাঁচ শতাংশের নিচে এলে তাকে স্বাভাবিক অবস্থা বলা যায়। এর মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা ঝুঁকিপূর্ণ। পূর্ণ সুরক্ষা নিশ্চিত করতে চাইলে ভ্যাকসিন আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। তার মানে প্রায় ডিসেম্বরের কাছাকাছি চলে যেতে পারে এ পরিস্থিতি। দীর্ঘদিন স্কুলের বাইরে থাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এতদিন পড়াশোনার বাইরে থাকায় শিশুদের ক্লাসে মনোযোগী করা কঠিন হয়ে পড়বে। উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা না হওয়ায় ইতিমধ্যেই একটা জট তৈরি হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে করোনা সংকটে তৈরি হবে সেশনজট। কিন্তু সমস্যার সহজ সমাধান খুঁজতে গিয়ে শিক্ষার গুণগত মানের সঙ্গে আপস করা যাবে না। তাহলে বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা যাবে না। বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা অটোপ্রমোশন পেলে চাকরির বাজারের প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়বে। পাল্লা দিতে পারবে না বিশ্বের অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে। শেখ শহীদুল ইসলাম আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের ক্ষতি কিছুটা কমাতে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম আরও জোরদার করতে হবে। শিক্ষার্থীদের জন্য ইন্টারনেট সহজলভ্য করে মোবাইল ও ল্যাপটপের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। তবে প্রাথমিক-মাধ্যমিকের বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থীর জন্য এ সুবিধা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে না। এ জন্য টেলিভিশনের মাধ্যমে ক্লাসের ব্যবস্থা বরং কিছুটা সহজ পদ্ধতি।

শিক্ষক নিয়োগে এনটিআরসিএর ওপর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়লো - dainik shiksha শিক্ষক নিয়োগে এনটিআরসিএর ওপর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়লো ফেব্রুয়ারিতে খুলতে পারে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha ফেব্রুয়ারিতে খুলতে পারে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারি কলেজের ১৮ শিক্ষককে বদলি, নানা প্রশ্ন - dainik shiksha সরকারি কলেজের ১৮ শিক্ষককে বদলি, নানা প্রশ্ন পাঁচটি করে গাছ রোপন করতে হবে সব মাদরাসা শিক্ষার্থীকে - dainik shiksha পাঁচটি করে গাছ রোপন করতে হবে সব মাদরাসা শিক্ষার্থীকে প্রসঙ্গ এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের অবসরকালীন সুবিধা - dainik shiksha প্রসঙ্গ এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের অবসরকালীন সুবিধা ১ হাজার ২১১ শিক্ষক-কর্মচারী এমপিওভুক্ত হচ্ছেন - dainik shiksha ১ হাজার ২১১ শিক্ষক-কর্মচারী এমপিওভুক্ত হচ্ছেন উচ্চতর গ্রেড পাচ্ছেন ২ হাজার ৩৩০ শিক্ষক - dainik shiksha উচ্চতর গ্রেড পাচ্ছেন ২ হাজার ৩৩০ শিক্ষক বিএড স্কেল পাচ্ছেন ৯০৮ শিক্ষক - dainik shiksha বিএড স্কেল পাচ্ছেন ৯০৮ শিক্ষক ডিগ্রি পাস কোর্স ২য় বর্ষের পরীক্ষা শুরু ১৩ ফেব্রুয়ারি - dainik shiksha ডিগ্রি পাস কোর্স ২য় বর্ষের পরীক্ষা শুরু ১৩ ফেব্রুয়ারি please click here to view dainikshiksha website