ছয় শিক্ষকের পর জানা গেল সভাপতির সনদও ‘ভুয়া’! - এমপিও - দৈনিকশিক্ষা

ছয় শিক্ষকের পর জানা গেল সভাপতির সনদও ‘ভুয়া’!

কুড়িগ্রাম প্রতি‌নি‌ধি |

কুড়িগ্রামের মজিদা আদর্শ ডিগ্রি কলেজের ছয় জন শিক্ষকের নিবন্ধন সনদ নিয়ে বিতর্ক ওঠার কয়েক মাস পর এবার জানা গেল প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান গভর্নিং বডির সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম টুকুর শিক্ষাগত যোগ্যতার ডিগ্রি পাস সনদটি ‘জাল’! এ নিয়ে কয়েকদিন ধরে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা।

জানা গেছে, ডিগ্রি পর্যায়ের এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডির সভাপতি হতে হলে শিক্ষাগত যোগ্যতা ডিগ্রি পাস হতে হবে। চলতি বছরের মে মাসে মজিদা আদর্শ ডিগ্রি কলেজের দুই বছর মেয়াদি গভর্নিং বডি গঠিত হয়। এতে সভাপতি নির্বাচিত হন সিরাজুল ইসলাম (টুকু)। এরপরই তার শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। এ নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে সমালোচনা সৃষ্টি হয়। পরে এ নিয়ে একাধিক শিক্ষার্থী জেলা প্রশাসক ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। সেসব অভিযোগপত্রের প্রাপ্তি স্বীকারপত্রের কপি প্রতিবেদকের হাতে এসেছে।

কলেজ সূত্রে জানা যায়, গভর্নিং বডির সভাপতি নির্বাচিত হতে সিরাজুল ইসলাম (টুকু) নিজেকে ডিগ্রি পাস দাবি করে ১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দের বিএসসি পাসের একটি সনদ দাখিল করেন। কিন্তু লিখিত অভিযোগকারীরা বলছেন, ওই সনদটি ‘জাল’। কারণ সিরাজুল ইসলাম টুকু ১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দে কুড়িগ্রাম কলেজ থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বিকম পরীক্ষায় অংশ নিয়ে অকৃতকার্য হয়েছিলেন। আর সে সময় কুড়িগ্রাম কলেজ সরকারি ঘোষণা হয়নি। অথচ সিরাজুল ইসলামের সনদে ‘কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ’ থেকে বিএসসি পা, করেছেন লেখা রয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধানে জানা গেছে, সিরাজুল ইসলাম বিএসসি পাসের সনদ দাখিল করলেও তিনি ১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দে কুড়িগ্রাম কলেজ থেকে বিকম পরীক্ষায় অংশ নিয়ে অকৃতকার্য হয়েছেন। তার রোল নম্বর ১৪২৫০ এবং শিক্ষাবর্ষসহ নিবন্ধন নম্বর ১৫৬১৪/৭৪। বাবার নাম আব্দুল গফুর। এ রোল ও নিবন্ধন সংশ্লিষ্ট ট্যাবুলেশন শিটের (নম্বরপত্র) একটি কপিও এই প্রতিবেদকের হাতে এসেছে।

কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ কর্তৃপক্ষ জানায়, কুড়িগ্রাম কলেজ ১৯৭৯ খ্রিষ্টাব্দে সরকারি ঘোষণা হয়। ১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দে এ কলেজ সরকারি ছিল না। অথচ সিরাজুল ইসলাম টুকুর দাখিলকৃত সনদে ‘কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ’ থেকে পাস করার কথা লেখা রয়েছে। সনদটি ‘জাল’। 

তবে নিজেকে বিএসসি উত্তীর্ণ দাবি করেছেন গভর্নিং বডির অভিযুক্ত সভাপতি সিরাজুল ইসলাম টুকু। সনদের সঠিকতা নিয়ে তিনি দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, সনদ সঠিক আছে। ১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দে কলেজ সরকারি না হলেও সনদে ‘কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ’ লেখা সম্পর্কে জানতে চাইলে সিরাজুল ইসলাম বলেন, আপনার সঙ্গে সামনাসামনি কথা বলবো।

কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আব্দুস সালাম দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, আমি বিষয়টি নিয়ে কোনও অভিযোগ পাইনি। গভর্নিং বডির সভাপতি হতে হলে ডিগ্রি পাস হতে হবে। আমি কিছুদিন আগে দায়িত্ব নিয়েছি। আগের অধ্যক্ষ কী করেছেন সেটা আমি জানি না।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত কলেজ পরিদর্শক ফাহিমা সুলতানা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, সভাপতি হতে হলে শিক্ষাগত যোগ্যতা ন্যূনতম ডিগ্রি পাস হতে হবে। গভর্নিং বডির সভাপতির সনদ যদি জাল হয়ে থাকে তাহলে আমাদেরকে অভিযোগ দিলে আমরা তা যাচাই করে দেখবো। সনদ জাল প্রমাণিত হলে আমরা বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো।

প্রসঙ্গত, মাজিদা আদর্শ ডিগ্রি কলেজের ছয় শিক্ষকের শিক্ষক নিবন্ধন সদনের সঠিকতা নিয়ে অভিযোগ রয়েছে। এর মধ্যে এক শিক্ষক চাকরি থেকে ইস্তফা দিয়েছেন। বাকি পাঁচ শিক্ষকের মধ্যে দুই শিক্ষক এমপিওভুক্ত। অপর তিন শিক্ষক অনার্স পর্যায়ে চাকরিরত এবং কলেজের আয় থেকে নিয়মিত মাসিক সম্মানি পান বলে কলেজ সূত্রে জানা গেছে।

দৈনিক শিক্ষাডটকম-এর যুগপূর্তির ম্যাগাজিনে লেখা আহ্বান - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষাডটকম-এর যুগপূর্তির ম্যাগাজিনে লেখা আহ্বান লাইব্রেরিতে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার পরিবেশ তৈরি করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha লাইব্রেরিতে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার পরিবেশ তৈরি করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তার বই গছানোয় ক্যাডারভুক্ত শিক্ষকদের অসন্তোষ - dainik shiksha শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তার বই গছানোয় ক্যাডারভুক্ত শিক্ষকদের অসন্তোষ পাঠ্যবইয়ে চুরি করা প্রবন্ধ, সচেতন মহলে শোরগোল - dainik shiksha পাঠ্যবইয়ে চুরি করা প্রবন্ধ, সচেতন মহলে শোরগোল ভুয়া সনদে এমপিও ভোগ : দুদকের জালে ধরা সেই শিক্ষক - dainik shiksha ভুয়া সনদে এমপিও ভোগ : দুদকের জালে ধরা সেই শিক্ষক আইডিয়াল কলেজ শিক্ষকদের ক্লাস বর্জন - dainik shiksha আইডিয়াল কলেজ শিক্ষকদের ক্লাস বর্জন আইডিয়াল কলেজ শিক্ষকদের ক্লাস বর্জন - dainik shiksha আইডিয়াল কলেজ শিক্ষকদের ক্লাস বর্জন please click here to view dainikshiksha website Execution time: 0.0039980411529541