জাবিতে অপরিকল্পিত উন্নয়নে হুমকিতে জীববৈচিত্র্য - বিশ্ববিদ্যালয় - দৈনিকশিক্ষা

জাবিতে অপরিকল্পিত উন্নয়নে হুমকিতে জীববৈচিত্র্য

জাবি প্রতিনিধি |

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণের জন্য খননকৃত মাটি অপরিকল্পিতভাবে যত্রতত্র ফেলে জীববৈচিত্র্য ধ্বংস করার অভিযোগ উঠেছে। তবে প্রশাসন বলছে, মাটিগুলো পরে সরিয়ে নেয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে চলছে তিনটি ছাত্রী হলের নির্মাণকাজ। হলগুলোর পিলার স্থাপনের জন্য খনন করে তোলা হচ্ছে বিপুল পরিমাণ মাটি। এসব মাটি পরিকল্পনা ছাড়াই ক্যাম্পাসের বিভিন্ন নিচু জায়গা ভরাট করে ঝোপঝাড় ও প্রাণীদের আবাসস্থল নষ্ট করা হচ্ছে। সমাজ বিজ্ঞান ভবনের পেছন থেকে প্রীতিলতা হল পর্যন্ত রাস্তার পাশে অনেকটা জায়গা জুড়ে ৮ থেকে ১০ ফুট উঁচু করে মাটি ফেলা হয়েছে।

একই কাজ করা হয়েছে ওয়াজেদ মিয়া বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্রের উত্তরপাশের এলাকায়। এমন আরও ৮ থেকে ১০ জায়গায় ফেলার কারণে ঘন ঝোপঝাড় ও নানা ধরনের গুল্ম ও তৃণ জাতীয় উদ্ভিদ চাপা পড়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ ও প্রাণী বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর ফলে বিভিন্ন প্রজাতির পাখি, প্রজাপতি, সাপ, গুইসাপ, গিরিগিটি, শিয়ালসহ অন্যান্য বন্যপ্রাণীও হুমকির মুখে পড়েছে।

পরিকল্পনা ও উন্নয়ন অফিসের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক মো. নাসিরুদ্দিন জানান, দুই উপ-উপাচার্যের সঙ্গে পরামর্শ করে বিভিন্ন জায়গায় মাটি ফেলা হচ্ছে। তিনি বলেন, একটা কাজ করতে গেলে তা একশভাগ পারফেক্ট হয় না। আলোচনা-সমালোচনা থাকবেই।

প্রাণীবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মো. মনোয়ার হোসেন বলেন, এ এলাকাগুলোতে অনেক কীটপতঙ্গ, পাখি, প্রাণীর আবাস ছিল। মাটি ভরাট করায় নিঃসন্দেহে এসব জীববৈচিত্র্য ক্ষতির মুখে পড়বে। স্বাভাবিক যে ল্যান্ডস্ক্যাপ তা অপ্রয়োজনে পরিবর্তন করাটা দুঃখজনক।

এ বিষয়ে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক নুরুল আলম জানান, সমাজ বিজ্ঞানের পাশের রাস্তায় একটা ফুটওয়ে হবে সেজন্য মাটি ফেলা হচ্ছে। কিন্তু ফুটওয়ের জন্য যতটুকু জায়গা প্রয়োজন তার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি জায়গা ভরাট করা হচ্ছে কেন তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এগুলো পরে কেটে সমান করা হবে।

আপাতত ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha আপাতত ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন : শিক্ষামন্ত্রী পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস, দু’দিনেই প্রজ্ঞাপন - dainik shiksha পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস, দু’দিনেই প্রজ্ঞাপন ৯ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবিতে একাট্টা হচ্ছে সব সরকারি কর্মচারী সংগঠন - dainik shiksha ৯ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবিতে একাট্টা হচ্ছে সব সরকারি কর্মচারী সংগঠন নো মাস্ক নো স্কুল, ক্লাস হবে শিফটে : দুশ্চিন্তায় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha নো মাস্ক নো স্কুল, ক্লাস হবে শিফটে : দুশ্চিন্তায় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সাংবাদিকতার অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মিজানুর রহমান : স্মরণসভায় জেলা জজ - dainik shiksha সাংবাদিকতার অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মিজানুর রহমান : স্মরণসভায় জেলা জজ প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, দাবি প্রতিমন্ত্রীর - dainik shiksha প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, দাবি প্রতিমন্ত্রীর মাদরাসা শিক্ষার সমস্যার সমাধান দ্রুতই : শিক্ষা উপমন্ত্রী - dainik shiksha মাদরাসা শিক্ষার সমস্যার সমাধান দ্রুতই : শিক্ষা উপমন্ত্রী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন প্রকাশ, তিন ফুট দূরত্বে ক্লাসরুমের বেঞ্চ - dainik shiksha শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন প্রকাশ, তিন ফুট দূরত্বে ক্লাসরুমের বেঞ্চ ক্লাসরুমে সর্বোচ্চ ১৫ শিক্ষার্থী, প্রতি বেঞ্চে ১ জন - dainik shiksha ক্লাসরুমে সর্বোচ্চ ১৫ শিক্ষার্থী, প্রতি বেঞ্চে ১ জন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে - dainik shiksha শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে please click here to view dainikshiksha website