‘টাকার অভাবে নিজের সন্তানকে মানুষ করতে পারছি না’ - সমিতি সংবাদ - দৈনিকশিক্ষা

‘টাকার অভাবে নিজের সন্তানকে মানুষ করতে পারছি না’

শফিকুল ইসলাম |

অন্যের সন্তানকে লেখাপড়া শিখিয়ে মানুষ করলেও টাকার অভাবে নিজের সন্তানকে মানুষ করতে না পারার কষ্ট বয়ে চলছেন প্রধান শিক্ষক লীলা রাণী। পারছি না। দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ডালা গ্রাম বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এভাবেই নিজের অসহায়ত্বের কথা জানালেন দৈনিকশিক্ষাকে।

সোমবার(২২শে জানয়ারি) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে দৈনিশিক্ষার কাছে কান্নাজড়িত কন্ঠে লীলা রাণী বলেন, ‘আমরা শিক্ষকরাই শুধু বঞ্চিত না, আমাদের সন্তানরাও বঞ্চিত। বড় মেয়ে এবার উচ্চ মাধ্যমিক দেবে। মেঝ মেয়ে ও ছোট ছেলে ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ছে। ৭ জনের সংসার। স্বামীর কৃষি কাজের আয়ে বাচ্চাদের ঠিকমত লেখাপড়া করাতে পারছি না। নতুন বছরে সন্তানদের স্কুল ড্রেসও কিনে দিতে পারিনি।’

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান ধর্মঘট ও প্রতীকি অনশন কর্মসূচি পালন করছেন প্রাথমিকের শিক্ষকরা।

লীলা রাণীর মতই চাপাই নবাবগঞ্জের রাহেনুল ইসলাম, রংপুরের পীরগাছার মো: হারুনুর রশীদ,সিলেটের দক্ষিণ সুরমার রংমালা বেগম,বরগুনার মুন্নি বেগম, দিনাজপুরের ইব্রাহিম হোসেন তাদের কষ্টের কথা জানিয়েছেন।

তৃতীয় ধাপে জাতীয়করণ থেকে বাদ পড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে রোববার (২১শে জানুয়ারি) ৯টা থেকে অবস্থান ধর্মঘট ও প্রতিকী অনশন পালন করছেন। প্রধানমন্ত্রীর কাছে থেকে জাতীয়করণের সুনির্দিষ্ট ঘোষণা না আসা পর্যন্ত অবস্থান ধর্মঘটে থাকবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষক নেতৃনবৃন্দ।

চাপাই নবাবগঞ্জের আলদাতপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাহেনুল ইসলাম দৈনিক শিক্ষাকে বলেন,আমার স্কুলে ১৭৯ জন শিক্ষার্থী আছে। তারা যখন জিজ্ঞাসা করে স্যার আমরা কেন উপবৃত্তি পায় না তখন খুব কষ্ট লাগে। নিজের সরকারি চাকরির বয়স শেষ হয়েছে। সরকারের সব শর্ত পূরন করেছি। কিন্তু স্কুল জাতীয়করণ হয়নি। বিনা বেতনে চাকরি করছি। টাকার অভাবে বৃদ্ধ মা-বাবার চিকিৎসা করাতে পারছি না। দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে।

দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার চন্ডিপুর ঊষার আলো বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: শাহানুর ইসলাম বলেন,সংসারে বাবা-মা স্ত্রী এবং ছোট দুই সন্তানসহ ৬ জনের সংসার আর চালাতে পারছি না। নিজের কৃষি জমিতে আবাদ করে কোনোমতে বেঁচে আছি।

সিরেটের দক্ষিণ সুরমার নাজিরগাঁও বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক রংমালা বেগম দৈনিকশিক্ষাকে বলেন, ২০০৬ সাল থেকে তিনি চাকরি করছেন। চার সন্তান,শশুর শাশুড়ীসহ ৭জনের পরিবার চালাতে হয় তাকে। টাকার অভাবে সন্তান লেখাপড়া ঠিকমত চালাতে পারছেন না।

বিরামপুর উপজেলার মিরপুর বেসরকারি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: ইব্রাহিম হোসেন বলেন,চাকরি করে বেতন পায় না কাউকে একথা কাউকে বলতেও পারি না। আমার স্কুলে উপবৃত্তি না থাকায় অবিভাবকরা বাচ্চাদের ভর্তিও করাতেও চায় না। জাতীয়করণ হলে শিক্ষকদের পাশাপাশি শিক্ষার্থীরাও উপকৃত হবে।

বরগুনা মাইঠা হাইসংলগ্ন বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুন্নী বেগম অভিযোগের সুরে বলেন, আমার বিদ্যালয়টি ১৯৭৩ খ্রিস্টাব্দে স্থাপিত। অথচ এই স্কুলটি জাতীয়করণ করা হয়নি। শিক্ষা কর্মকর্তারা স্কুলের তথ্য মন্ত্রণালয়ে সময়মত না পাঠানোর কারণে তার স্কুল জাতীয়করণের তালিকায় আসেনি বলে তিনি জানান।

অবস্থান কর্মসূচিতে অনেক নারী শিক্ষকও এসেছেন।

বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি মোঃ শাহজাহান আলী সাজু দৈনিকশিক্ষাকে বলেন,বিনা বেতনে অনাহারে-অর্ধাহারে তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তাদের চাকরি আছে; কিন্তু বেতন নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৩ সালে ২৬ হাজার ১৯৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের ঘোষণা দেন। কিন্তু তাদের বিদ্যালয়গুলো সব শর্ত পূরণ করেও জাতীয়করণ থেকে বঞ্চিত। দ্রুততম সময়ের মধ্যে দাবি পূরণ না হলে প্রয়োজনে আমরণ অনশনে যাবেন। সোমবার (২২শে জানুয়ারি) তারা প্রতীকী অনশন পালন করেন।

বাংলাদেশ বেসরকারি প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মো. মামুনুর রশিদ খোকন দৈনিকশিক্ষা ডটকমকে বলেন, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর তালিকা মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ এবং কেন্দ্রীয় টাস্কফোর্স জাতীয়করণ কমিটি সরকারিভাবে যাচাই বাছাই করলেও আমাদের বিদ্যালয়গুলো জাতীয়করণের আওতায় আনা হয়নি। তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে জাতীয়করণের ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আমাদের অবস্থান ধর্মঘট অব্যাহত থাকবে।

অবস্থান কর্মসূচিতে শিক্ষক নেতারা বলেন, ২০১৩ সালে সারাদেশে ২৬ হাজার ১৯৩টি স্কুল জাতীয়করণ হয়েছে। কিন্তু জাতীয়করণযোগ্য আরও চার হাজার ১৫৯টি বিদ্যালয় ও এর কর্মরত শিক্ষকরা জাতীয়কারণ হতে বঞ্চিত রয়েছে। এক্ষেত্রে তৃতীয়ধাপে এসব বিদ্যালয় জাতীয়করণের জন্য উপজেলা যাচাই-বাছাই কমিটি সুপারিশ করে মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করলেও এ থেকে মাত্র ৩০৩টি বিদ্যালয়ের গেজেট প্রকাশ করা হয়। এতে আরও চার হাজার ১৫৯টি বিদ্যালয় জাতীয়করণ থেকে বঞ্চিত হয়েছে।

সোমবার (২২শে জানুয়ারি) বেসরকারি শিক্ষকদের জাতীয়করণের দাবির সাথে একাত্মতা ও সংহতি প্রকাশ করেন জাসদের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য শিরিন আক্তার বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন স্বাধীনতার মূলমন্ত্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শিক্ষকদের এই দাবি মেনে নেয়া আহবান জানান তিনি।

জাল সনদধারী শিক্ষক শনাক্তকরণ শুরু - dainik shiksha জাল সনদধারী শিক্ষক শনাক্তকরণ শুরু এমপিও নীতিমালা সংশোধনের চূড়ান্ত সভার যত আলোচনা - dainik shiksha এমপিও নীতিমালা সংশোধনের চূড়ান্ত সভার যত আলোচনা নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করবেন - dainik shiksha নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করবেন এসএসসিতে পাঁচ বিষয়ে পরীক্ষা, সাপ্তাহিক ছুটি দুই দিন - dainik shiksha এসএসসিতে পাঁচ বিষয়ে পরীক্ষা, সাপ্তাহিক ছুটি দুই দিন ঢাবিতে ভর্তি পরীক্ষায় নম্বর বন্টন যেভাবে - dainik shiksha ঢাবিতে ভর্তি পরীক্ষায় নম্বর বন্টন যেভাবে ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে প্রাথমিকের ক্লাস রুটিন - dainik shiksha ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে প্রাথমিকের ক্লাস রুটিন ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন - dainik shiksha ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন please click here to view dainikshiksha website