দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যায় একজনের মৃত্যুদণ্ড - মাদরাসা - দৈনিকশিক্ষা

দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যায় একজনের মৃত্যুদণ্ড

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি |

লক্ষ্মীপুরে চাঞ্চল্যকর সাত বছরের শিশু নুসরাত জাহান ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় আসামি শাহ আলম রুবেলকে (২৫) মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। অপর আসামি বোরহান উদ্দিনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে। 

মঙ্গলবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে জেলার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহা. সিরাজুদ্দৌলাহ কুতুবী এই রায় দেন। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) আবুল বাশার। তিনি জানান, সাত বছরের শিশু দ্বিতীয় শ্রেণির মাদ্রাসা ছাত্রীকে হত্যা ও ধর্ষণ মামলাটি দীর্ঘ শুনানি ও ১৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য শেষে রুবেলকে দোষী সাব্যস্ত করে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। 

এছাড়া এক লাখ টাকা অর্থদণ্ড এবং আরও চার বছরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। মামলার অপর আসামি বোরহান উদ্দিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ না হওয়ায় আদালত তাকে বেকসুর খালাস দেন। 

এদিকে মামলার বাদী নুসরাতের মা রেহানা বেগম ও চাচা আকবর হোসেন রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে জানান, সাড়ে তিন বছর পর এই মামলার রায় হলো। সে সময় এ ঘটনার বিচারের দাবিতে লক্ষ্মীপুর ও ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধন হয়েছিল। উচ্চ আদালতেও যেন এ রায় বহাল থাকে এবং রায় দ্রুত কার্যকরের প্রত্যাশা করেন তারা।  

অপর দিকে বিবাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নুরুল আলম জানান, নুসরাত জাহান ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় রুবেলকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। রায়ের দিন তার মক্কেল পক্ষের আত্মীয়স্বজন উপস্থিত ছিলেন না। এ রায়ে তার কিছু বলার নাই। 

আদালত সূত্রে জানা যায়, জেলার রামগঞ্জ উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের ফয়েজে নূর মাদ্রাসার দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী নুসরাত ২০১৮ সালের ২৩ মার্চ দুপুরে বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়। নিখোঁজের ঘটনায় নুসরাতের মা রেহানা বেগম বাদী হয়ে ২৫ মার্চ রামগঞ্জ থানায় মামলা করেন। মামলায় শিশুটির দূরসম্পর্কের আত্মীয় শাহ আলম রুবেল ও স্থানীয় অটোরিকশাচালক বোরহান উদ্দিনকে আসামি করা হয়। ২৬ মার্চ উপজেলার ব্রক্ষ্মপাড়ার ব্রিজের নিচ থেকে নুসরাতের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে তদন্তে ধর্ষণ শেষে হত্যার প্রমাণ পাওয়া যায়। পুলিশ মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল করলে আদালত দীর্ঘ শুনানি ও ১৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য শেষে এই রায় ঘোষণা করেন।

কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যু : অফিস কক্ষে নিয়ে কী বলেছিল ছাত্রলীগ - dainik shiksha কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যু : অফিস কক্ষে নিয়ে কী বলেছিল ছাত্রলীগ দৈনিক শিক্ষাডটকম পরিবারের প্রিন্ট পত্রিকা ‘দৈনিক আমাদের বার্তা’ - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষাডটকম পরিবারের প্রিন্ট পত্রিকা ‘দৈনিক আমাদের বার্তা’ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে ১২ বানান ভুল! - dainik shiksha সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে ১২ বানান ভুল! সনদধারী বেকার নয়, চাই দক্ষ জনসম্পদ : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha সনদধারী বেকার নয়, চাই দক্ষ জনসম্পদ : শিক্ষামন্ত্রী কেন্দ্রীয় লটারিতে অংশ নিতে না পারা স্কুলগুলোতে ভর্তি যেভাবে - dainik shiksha কেন্দ্রীয় লটারিতে অংশ নিতে না পারা স্কুলগুলোতে ভর্তি যেভাবে সরকারি কর্মচারীদের ৭ দফা দাবিতে আন্দোলনে যাওয়ার ঘোষণা - dainik shiksha সরকারি কর্মচারীদের ৭ দফা দাবিতে আন্দোলনে যাওয়ার ঘোষণা দক্ষিণ আফ্রিকায় ৫ বছরের কম বয়সীরাও ওমিক্রনে আক্রান্ত - dainik shiksha দক্ষিণ আফ্রিকায় ৫ বছরের কম বয়সীরাও ওমিক্রনে আক্রান্ত অনিয়ম করা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে না ইউজিসি - dainik shiksha অনিয়ম করা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে না ইউজিসি please click here to view dainikshiksha website