পৌর কাউন্সিলর বেঁচে দিলেন সরকারি স্কুলের মাটি! - স্কুল - দৈনিকশিক্ষা

পৌর কাউন্সিলর বেঁচে দিলেন সরকারি স্কুলের মাটি!

সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি |

নাটোরের সিংড়া উপজেলার মহেশচন্দ্রপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুরাতন ভবনের মাটি বেঁচে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ১০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল আওয়াল রিংকু ট্রাক্টর দিয়ে বাড়ি বাড়ি মাটি বিক্রয় করছেন বলে অভিযোগে জানা গেছে।

এতে স্কুলের অভিভাবক ও এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি উপজেলার মহেশচন্দ্রপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪তলা ভবন নির্মাণের লক্ষ্যে পুরাতন টিনসেড ঘর প্রকাশ্যে নিলাম ডাকে বিক্রয় করা হয়। নিলামে সর্বোচ্চ ডাকদাতা হিসেবে মহেশচন্দ্রপুর গ্রামের ফরিদ আলীর ছেলে জনৈক মো. জসিম আলী টিনসেড ঘর ও পুরাতন ইট কিনে নেন।

কিন্তু গত ২২ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পুরাতন ভবনের নিচের মাটি ট্রাক্টরযোগে বাড়ি বাড়ি বিক্রয় করা হচ্ছে।

স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. ওয়াজেদ আলী ওরফে ওয়াদুদ বলেন, পৌর কাউন্সিলর আব্দুল আওয়াল রিংকু প্রতি গাড়ি মাটি ১২শ টাকায় বিক্রয় করছেন। এতে স্কুলের চরম ক্ষতি হচ্ছে। কোনো নিষেধ শুনছেন না।

স্কুলের শিক্ষা কমিটির সহ-সভাপতি শরিফুল ইসলাম বলেন, স্কুলটি নিচু হওয়ায় প্রতি বছরই বন্যা কবলিত হয়। এতে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের প্রায় দুই মাস লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু সেখান থেকে যদি গর্তে করে মাটি বিক্রয় করা হয় তবে দীর্ঘদিন প্রতিষ্ঠানটি বন্যা কবলিত থাকবে বলে জানান তিনি।

স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. আরিফ কামাল বাবু বলেন, তার অজান্তে সেখান থেকে কয়েক গাড়ি মাটি বিক্রয় হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে সকলেই বসেছেন।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোছা. জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, নিলামে পুরাতন ভবনের টিন ও ইট বিক্রয় হয়েছে। কিন্তু এখন এখন সেখান থেকে ভবনের মাটিও অপসারণ করা হচ্ছে। যেটা সরকারি স্বার্থের পরিপন্থী। এ বিষয়ে তিনি শিক্ষা অফিসে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত কাউন্সিলর আব্দুল আওয়াল রিংকু বলেন, তিনি মাটি বিক্রয় করেননি। বরং সেখান থেকে ছয় গাড়ি মাটি কিনেছেন। তার মান ক্ষুণ্ণ করতে প্রতিপক্ষরা মিথ্যা অভিযোগ করছেন।

সিংড়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (দায়িত্বপ্রাপ্ত) মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। সরোজমিনে একজন সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তাকে সেখানে পাঠানো হয়েছে। পরে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপনের নির্দেশ - dainik shiksha সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপনের নির্দেশ শিক্ষামন্ত্রীকে দূষলেন বেরোবি ভিসি কলিমুল্লাহ - dainik shiksha শিক্ষামন্ত্রীকে দূষলেন বেরোবি ভিসি কলিমুল্লাহ দেশে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে : প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha দেশে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে : প্রধানমন্ত্রী ৪১তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ১৯ মার্চ - dainik shiksha ৪১তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ১৯ মার্চ করোনায় বাংলাদেশসহ ১৪ দেশে বেশিদিন স্কুল-কলেজ বন্ধ - dainik shiksha করোনায় বাংলাদেশসহ ১৪ দেশে বেশিদিন স্কুল-কলেজ বন্ধ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে কলেজ শিক্ষক রিমান্ডে - dainik shiksha ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে কলেজ শিক্ষক রিমান্ডে ১০ মাস পর কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন কার্টুনিস্ট কিশোর - dainik shiksha ১০ মাস পর কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন কার্টুনিস্ট কিশোর টাকার বিনিময়ে নম্বর দেয়ার শাস্তি শুধুই ‘তিরস্কার’ - dainik shiksha টাকার বিনিময়ে নম্বর দেয়ার শাস্তি শুধুই ‘তিরস্কার’ আগামী বছরের এসএসসি পরীক্ষাও হবে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে - dainik shiksha আগামী বছরের এসএসসি পরীক্ষাও হবে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে শিক্ষক নিয়োগের শূন্যপদের তথ্য সংশোধন ১৪ মার্চের মধ্যে - dainik shiksha শিক্ষক নিয়োগের শূন্যপদের তথ্য সংশোধন ১৪ মার্চের মধ্যে please click here to view dainikshiksha website