প্রধান শিক্ষিকার হাত কেটে নেয়ার হুমকি দিলেন শিক্ষক - স্কুল - দৈনিকশিক্ষা

প্রধান শিক্ষিকার হাত কেটে নেয়ার হুমকি দিলেন শিক্ষক

নেত্রকোনা প্রতিনিধি |

বিদ্যালয়ে একাধারে আট দিন অনুপস্থিত সহকারী শিক্ষক। ফলে প্রধান শিক্ষক হাজিরা খাতায় তাকে আটদিন অনুপস্থিত দেখান। অনুপস্থিতের লম্বা সারি দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রধান শিক্ষকের হাত কেটে নেওয়ার হুমকি দিয়েছেন ওই সহকারী শিক্ষক।

মঙ্গলবার সকালে  নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ উপজেলায় ভাটিবাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আ. মোলালিব এমন হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন প্রধান শিক্ষক মাফরোজা খানম। এদিকে সহকারী শিক্ষক আ. মোলালিবের দাবি প্রধান শিক্ষিকার স্বামী তাকে মারধর করেছেন।

প্রধান শিক্ষক দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, ‘স্কুল কর্তৃপক্ষকে না জানিয়েই সহকারী শিক্ষক আ. মোলালিব এ মাসের প্রথম দিন থেকে শুরু করে একাধারে আটদিন বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন। আমি হাজিরা খাতায় অনুপস্থিত দিয়ে রাখি। খাতায় অনুপস্থিত দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার হাত কেটে নেয়ার হুমকি দেন তিনি। ঘটনাটি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে মৌখিকভাবে জানিয়েছি।’

অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক আ. মোলালিব হুমকির বিষয়টি স্বীকার করে দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, ‘আমার স্ত্রী সন্তান সম্ভবা, বছরের প্রথম সময়টায় যেহেতু শিক্ষার্থী অপস্থিতি কম, ক্লাসও তেমন হয় না। তাই এই সুযোগটা কাজে লাগাতে চেয়েছি। তবে সমস্যার বিষয়টি লিখিতিভাবে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে জানাইনি। অনেকে এমনটা করে আমিও ভেবেছি এর জন্য হয়তো বলতে হবে না। তবে বিদ্যালয়ের খাতায় অনুপস্থিত দেখে এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষকের সাথে তর্ক-বিতর্কের এক পর্যায়ে মেজাজ হারিয়ে এমন হুমকি দিয়ে ফেলেছি।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন, বিদ্যালয়ের টাকা পয়সার সঠিক হিসেব নেই। সব কাজ প্রধান শিক্ষক একক সিদ্ধান্তে করেন। হিসেবপত্রের নানা অনিয়ম রয়েছে। এসব বিষয়ের ক্ষোভও এখানে যুক্ত আছে। প্রধান শিক্ষক এখানকার প্রভাবশালী হওয়ায় বিদ্যালয়ের সবকিছুতে প্রভাব কাটান। 

তিনি আরও বলেন, এসবের পরে প্রধান শিক্ষকের স্বামী আমাকে মারধর করেছেন। তর্ক-বিতর্ক আমাদের শিক্ষকদের মাঝে হয়েছে। সমাধানও আমরা করবো। বাড়ির লোকজন আমার গায়ে হাত তুলেছে। এটি দুঃখজনক। 

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বজলুর রহমান আনছারী দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। তারা দুজনেই আমাকে মৌখিকভাবে বিষয়টি জানিয়েছেন। অভিযোগ লিখিতভাবে দিতে বলেছি। অভিযোগ দেখে তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফাজিল পরীক্ষা স্থগিত - dainik shiksha ফাজিল পরীক্ষা স্থগিত মাস্ক ছাড়া বের হলেই জরিমানা করা হবে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha মাস্ক ছাড়া বের হলেই জরিমানা করা হবে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের - dainik shiksha উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের মাদরাসায়ও অনলাইন ক্লাস, খোলা থাকবে অফিস - dainik shiksha মাদরাসায়ও অনলাইন ক্লাস, খোলা থাকবে অফিস কওমি মাদরাসাকে বোর্ডের অধীনে নিয়ে আসা প্রয়োজন : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha কওমি মাদরাসাকে বোর্ডের অধীনে নিয়ে আসা প্রয়োজন : শিক্ষামন্ত্রী ভিসির পদত্যাগের দাবি অযৌক্তিক, চাইলেই সরানো যায় না : শিক্ষা উপমন্ত্রী - dainik shiksha ভিসির পদত্যাগের দাবি অযৌক্তিক, চাইলেই সরানো যায় না : শিক্ষা উপমন্ত্রী উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের - dainik shiksha উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের please click here to view dainikshiksha website