প্রশ্নফাঁস : বুয়েট শিক্ষক নিখিলকে অব্যাহতির কারণ জানতে চান আদালত - বিশ্ববিদ্যালয় - দৈনিকশিক্ষা

প্রশ্নফাঁস : বুয়েট শিক্ষক নিখিলকে অব্যাহতির কারণ জানতে চান আদালত

দৈনিকশিক্ষা প্রতিবেদক |

রাষ্ট্রায়ত্ত পাঁচ ব্যাংকের সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ থেকে বুয়েটের অধ্যাপক ড. নিখিল রঞ্জন ধরের নাম কেন এবং কীভাবে বাদ দেয়া হয়েছে, এ বিষয়ে তদন্ত কর্মকর্তাকে কারণ দর্শাতে বলেছেন আদালত। আজ বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম শহিদুল ইসলাম আগামী ৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে আদালতে সম্পূরক চার্জশিট দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। 

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) শামীম আহমেদ আদালতে হাজির হয়ে বাড্ডা থানায় দায়ের করা মামলার অভিযোগ থেকে নিখিল ধরকে অব্যাহতি দেয়ার কথা জানান। 

গত বছরের ৬ নভেম্বর অনুষ্ঠিত পাঁচ ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষার দায়িত্বে ছিল আহ্‌ছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (এইউএসটি)। প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ ওঠার পর ডিবি পুলিশ ১১ জনকে গ্রেফতার করে। তাদের মধ্যে দেলোয়ার নামে একজন ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। স্বীকারোক্তি দিয়ে জানান, আশুলিয়ায় তাদের ছাপাখানায় প্রশ্নপত্র ছাপার পর দুই সেটের দুটি প্রশ্ন নিয়ে নিতেন অধ্যাপক নিখিল। এরপরই তার নামটি সামনে আসে। পরীক্ষা শেষ হওয়ার আগেই উত্তরসহ প্রশ্নপত্রের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রশ্নফাঁসের খবর প্রকাশিত হওয়ায় পরীক্ষাটি বাতিল করা হয়।

আরও পড়ুন : প্রশ্নফাঁস : সেই বুয়েট শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

এ বিষয়ে তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, নিখিল ধর দেলোয়ার হোসেনের কাছ থেকে মুদ্রিত প্রশ্নপত্রের কোনো কপি পাননি। দেলোয়ার হোসেন তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এ কথা জানান। অভিযুক্ত দেলোয়ার হোসেনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি যাচাই-বাছাই করে প্রশ্নফাঁস ঘটনায় অধ্যাপক নিখিল ধরের জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ বা অভিযোগ পাননি তিনি।

১৬ নভেম্বর দেলোয়ার হোসেনসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে পাবলিক পরীক্ষা (অপরাধ) আইনের ৪/৯/১৩ ধারায় এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৮ এর ২২(২)/৩৩(২) ধারায় ১২ জনের বিরুদ্ধে ২টি চার্জশিট দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা।  

বুয়েটের পাশাপাশি এইউএসটিতে খণ্ডকালীন শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন অধ্যাপক নিখিল রঞ্জন ধর। এই সূত্রেই তিনি প্রশ্নপত্র ছাপার প্রেসে ছিলেন। 

প্রসঙ্গত, প্রশ্নফাঁসের ওই ঘটনায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যান্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং (আইপিই) বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. নিখিল রঞ্জন ধরের নাম উঠে আসায় ওই শিক্ষককে আইপিই বিভাগের প্রধানের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হয়। ঘটনা তদন্তে বুয়েট কর্তৃপক্ষ পাঁচ সদস্যের কমিটি করে। পাশাপাশি তদন্ত সংস্থা ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তাকে নজরদারি করে। 

দৈনিক শিক্ষাডটকম-এর যুগপূর্তির ম্যাগাজিনে লেখা আহ্বান - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষাডটকম-এর যুগপূর্তির ম্যাগাজিনে লেখা আহ্বান ক্লাস বর্জন করে আন্দোলনে শিক্ষকরা, উত্তাল আইডিয়াল কলেজ - dainik shiksha ক্লাস বর্জন করে আন্দোলনে শিক্ষকরা, উত্তাল আইডিয়াল কলেজ বুয়েটে কাভার্ডভ্যান আটকে ছিনতাই, কারাগারে ঢাবির ৩ ছাত্র - dainik shiksha বুয়েটে কাভার্ডভ্যান আটকে ছিনতাই, কারাগারে ঢাবির ৩ ছাত্র লাইব্রেরিতে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার পরিবেশ তৈরি করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha লাইব্রেরিতে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার পরিবেশ তৈরি করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তার বই গছানোয় ক্যাডারভুক্ত শিক্ষকদের অসন্তোষ - dainik shiksha শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তার বই গছানোয় ক্যাডারভুক্ত শিক্ষকদের অসন্তোষ পাঠ্যবইয়ে চুরি করা প্রবন্ধ, সচেতন মহলে শোরগোল - dainik shiksha পাঠ্যবইয়ে চুরি করা প্রবন্ধ, সচেতন মহলে শোরগোল ভুয়া সনদে এমপিও ভোগ : দুদকের জালে ধরা সেই শিক্ষক - dainik shiksha ভুয়া সনদে এমপিও ভোগ : দুদকের জালে ধরা সেই শিক্ষক please click here to view dainikshiksha website Execution time: 0.004417896270752