ফ্যাভিপিরাভির ব্যবহারে ১০ দিনে করোনামুক্ত ৯৬ শতাংশ রোগী : দাবি বিকনের - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা

ফ্যাভিপিরাভির ব্যবহারে ১০ দিনে করোনামুক্ত ৯৬ শতাংশ রোগী : দাবি বিকনের

দৈনিকশিক্ষা ডেস্ক |

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসায় বাংলাদেশি ওষুধ কোম্পানি বিকন ফার্মাসিউটিক্যালসের ফ্যাভিপিরাভির ওষুধের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে কার্যকর ফল পাওয়া গেছে। ঢাকায় করোনা আক্রান্তদের ওপর পরিচালিত পরীক্ষায় ৯৬ শতাংশ রোগী সেরে উঠেছেন। বাংলাদেশ মেডিসিন সোসাইটি (বিএসএম) এই ট্রায়াল পরিচালনা করে।

বুধবার ( ৮ জুলাই) রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে এক সেমিনারে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের এই ফলাফল জানান ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সৈয়দ  গোলাম মোগনী মাওলা। ‘বাংলাদেশের হাসাপাতালসমূহে করেনা রোগীদের ওপর ফ্যাভিপিরাভির ওষুধের কার্যকারিতা পরীক্ষা’ শীর্ষক সেমিনারে এ সংক্রান্ত তথ্য উপস্থাপন করেন তিনি। সেমিনারটি আয়োজন করে বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড।

বিকন ফার্মার উৎপাদিত ওষুধের নাম ফ্যাভিপিরা,এর জেনেরিক নাম ফ্যাভিপিরাভির। যা জাপানে অ্যাভিগান নামে পরিচিত। গত এপ্রিলে ওষুধটি নিয়ে আসে বিকন ফার্মা।

সেমিনারে জানানো হয় বাংলাদেশের চারটি হাসপাতালে ৫০ জন রোগীর ওপর এই পরীক্ষা চালানো হয়। হাসপাতালগুলো হলো- কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতাল, মহানগর জেনারেল হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল ও মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল।

সৈয়দ  গোলাম মোগনী মাওলা বলেন, করোনা আক্রান্ত রোগীদের ওপর এই ওষুধ প্রয়োগের চারদিনের মাথায় ৪৮ শতাংশ এবং ১০ দিনের মাথায় ৯৬ শতাংশ রোগ করোনাভাইরাস মুক্ত হয়েছেন বা সেরে ওঠেছেন। পরীক্ষার সময় প্লাসেবা গ্রুপের (যাদের বিকল্প ওষুধ দেওয়া হয়, বাস্তবে তা ওষুধ নয়) ক্ষেত্রে এই হার ছিল চারদিনের মধ্যে শূন্য শতাংশ এবং ১০ দিনের মধ্যে ৫২ শতাংশ। বিকল্প ওষুধ গ্রহণকারীদের চেয়ে এই ওষুধে রোগীর ফুসফুসের কার্যক্ষমতা তিনগুণ উন্নতি হয়েছে। তবে জটিল রোগী বা অন্তঃসত্ত্বা নারীদের এই ওষুধ দেয়া হয়নি।

সেমিনারে বলা হয়, সবচেয়ে ভালো দিক হলো-এ ওষুধ গ্রহণে রোগীর লিভার, কিডনি ও রক্তে শর্করার কোন ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়নি। ফ্যাভিপিরা ও বিকল্প ওষুধ গ্রহণকারী-এই দুই গ্রুপের রোগীদের উল্লেখযোগ্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছিলো না।

যারা কোভিড-১৯ পজিটিভ নন বা কোনও লক্ষণ নেই- তাদের এই অষুধ গ্রহণে নিষেধ করেন অধ্যাপক সৈয়দ  গোলাম মোগনী মাওলা। তিনি বলেন,এই ওষুধটি শুধু তারাই খাবেন যারা আরটি পিসিআর পজিটিভ।

বিকন ফার্মার প্রতিটি ট্যাবলেটের দাম ৪০০ টাকা। একজন রোগীকে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুসারে রোগের ধরণের ওপর ভিত্তি করে সাত থেকে দশ দিনের কোর্স কমপ্লিট করতে হবে।

এ ওষুধ ব্যবহার করা সম্পর্কে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ  এ বি এম আবদুল্লাহ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, ‘যেহেতু করোনার সুনির্দিষ্ট কোনো ওষুধ আসেনি সে হিসেবে ফ্যাভিপিরাভির ব্যবহার করা যেতে পারে,আমি কিছু রোগীর ওপর প্রয়োগ করেছি, কার্যকর মনে হয়েছে। তবে শুধু ৫০ জনের ট্রায়ালে ভরসা করা মুশকিল। কোনোভাবেই এ ওষুধ চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া বিক্রি ও প্রয়োগ করা ঠিক হবে না।’

ইনফ্লুয়েঞ্জার জন্য ব্যবহৃত জাপানি ওষুধ ‘ফ্যাভিপিরাভির’ করোনা ভাইরাস নিরাময়ে কার্যকর বলে জানিয়েছে চীনের মেডিক্যাল কর্তৃপক্ষ। জাপানে তৈরি ওষুধটির ব্র্যান্ডনেম ‘অ্যাভিগন’ এবং জেনেরিক নেম ‘ফ্যাভিপিরাভির’। 

ওষুধটির প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান ফুজি ফিল্মের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান তয়োমা কেমিক্যাল ২০১৪ সালে এটি উদ্ভাবন করে।  এটি সচরাচর ব্যবহার হয় আরএনএ ভাইরাস সংক্রমণের চিকিৎসায়। তবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসায় এই ওষুধ পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করেন চীনের গবেষকরা। ‘ফ্যাভিপিরাভির’ ওষুধটি উহান এবং শেনজেনে ৩৪০ জন করোনা রোগীর ওপর ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে উৎসাহজনক ফলাফল দিয়েছে।

সংবাদমাধ্যম এনএইচকে জানিয়েছে, শেনজেনে করোনায় আক্রান্ত রোগীদের এ ওষুধ দেয়ার চারদিনের মধ্যেবর্তী সময়ে তাদের করোনা নেগেটিভ হতে শুরু করে।

এইচএসসির ফল : সংশোধিত আইনের গেজেট জারি - dainik shiksha এইচএসসির ফল : সংশোধিত আইনের গেজেট জারি এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অটোপাস কেন আর নয় : কারণ জানালেন শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অটোপাস কেন আর নয় : কারণ জানালেন শিক্ষামন্ত্রী ইউনিক আইডি দিতে ইবতেদায়ি শিক্ষার্থীদের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ - dainik shiksha ইউনিক আইডি দিতে ইবতেদায়ি শিক্ষার্থীদের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ গেজেট প্রকাশের পর ঠিক হবে এইচএসসির ফল প্রকাশের তারিখ - dainik shiksha গেজেট প্রকাশের পর ঠিক হবে এইচএসসির ফল প্রকাশের তারিখ এসএসসি পরীক্ষার সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ - dainik shiksha এসএসসি পরীক্ষার সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ সব মাদরাসা খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে, গাইড লাইন প্রকাশ - dainik shiksha সব মাদরাসা খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে, গাইড লাইন প্রকাশ স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে - dainik shiksha স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে পত্রিকা-টিভিতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে দুর্নীতির ভয়ংকর চিত্র : মন্ত্রণালয় নির্বিকার - dainik shiksha পত্রিকা-টিভিতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে দুর্নীতির ভয়ংকর চিত্র : মন্ত্রণালয় নির্বিকার প্রাথমিক-অষ্টম শ্রেণির পরীক্ষা স্থায়ীভাবে বাতিলের পরামর্শ - dainik shiksha প্রাথমিক-অষ্টম শ্রেণির পরীক্ষা স্থায়ীভাবে বাতিলের পরামর্শ শিক্ষকদের অন্য কোনো পদে মোহ থাকা উচিত নয় : এস এম এ ফায়েজ - dainik shiksha শিক্ষকদের অন্য কোনো পদে মোহ থাকা উচিত নয় : এস এম এ ফায়েজ please click here to view dainikshiksha website