বই সংকটে মনিরামপুরের ১২০ মাধ্যমিক বিদ্যালয় - বই - দৈনিকশিক্ষা

বই সংকটে মনিরামপুরের ১২০ মাধ্যমিক বিদ্যালয়

যশোর প্রতিনিধি |

যশোরের মনিরামপুরে মাধ্যমিক স্তরের ১২০টি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বই সংকটে পড়েছে। সপ্তম ও নবম শ্রেণির কিছু বই দেওয়া হলেও ষষ্ঠ শ্রেণির দেওয়া হয়েছে মাত্র এক বিষয়ের বই। অন্যদিকে মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং

মাদ্রাসায় অষ্টম শ্রেণির কোনো বিষয়ের বই এখনও দেওয়া হয়নি। বই সংকটের কারণে শিক্ষার্থীরা পড়েছে মহাবিপাকে। তবে সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তারা আশা প্রকাশ করছেন, অচিরেই বই সংকটের সমাধান হবে। 

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস জানায়, মনিরামপুর উপজেলায় মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে ১২০টি এবং মাদ্রাসা রয়েছে ৭০টি। মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোয় মোট শিক্ষার্থী ২৪ হাজার ৫২৭ জন এবং মাদ্রাসায় চার হাজার ২৬০ জন। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পহেলা জানুয়ারি সরকারের বিনামূল্যের নতুন বই শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতরণ করা হয়। তবে মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোর সব শ্রেণির শিক্ষার্থীদের হাতে এখনও সব বিষয়ের বই পৌঁছায়নি। দুর্গাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল বাশার ফিরোজ জানান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস থেকে এ পর্যন্ত বিষয়ভিত্তিক বই সরবরাহ করা হয়েছে সপ্তম শ্রেণির আটটি, নবম শ্রেণির ১১টি এবং ষষ্ঠ শ্রেণির মাত্র একটি। এ পর্যন্ত অষ্টম শ্রেণির কোনো বই দেওয়া হয়নি।

একই অভিযোগ করেন হেলাঞ্চী কৃঞ্চবাটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল হক, কেএইচএন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল মান্নানসহ অধিকাংশ প্রধান শিক্ষক।

মনিরামপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বিকাশ চন্দ্র জানান, স্কুল-মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণির জন্য এ পর্যন্ত মনিরামপুরে কোনো বই সরবরাহ করা হয়নি। আশা করা যাচ্ছে, অচিরেই অষ্টম শ্রেণিসহ অন্যান্য শ্রেণির সব বই সরবরাহ স্বাভাবিক হবে।

ফাজিল পরীক্ষা স্থগিত - dainik shiksha ফাজিল পরীক্ষা স্থগিত মাস্ক ছাড়া বের হলেই জরিমানা করা হবে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha মাস্ক ছাড়া বের হলেই জরিমানা করা হবে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের - dainik shiksha উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের মাদরাসায়ও অনলাইন ক্লাস, খোলা থাকবে অফিস - dainik shiksha মাদরাসায়ও অনলাইন ক্লাস, খোলা থাকবে অফিস কওমি মাদরাসাকে বোর্ডের অধীনে নিয়ে আসা প্রয়োজন : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha কওমি মাদরাসাকে বোর্ডের অধীনে নিয়ে আসা প্রয়োজন : শিক্ষামন্ত্রী ভিসির পদত্যাগের দাবি অযৌক্তিক, চাইলেই সরানো যায় না : শিক্ষা উপমন্ত্রী - dainik shiksha ভিসির পদত্যাগের দাবি অযৌক্তিক, চাইলেই সরানো যায় না : শিক্ষা উপমন্ত্রী উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের - dainik shiksha উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের please click here to view dainikshiksha website