বহিরাগতদের নিয়ে কলেজের তালা ভাঙলেন সেই অধ্যক্ষ - কলেজ - দৈনিকশিক্ষা

বহিরাগতদের নিয়ে কলেজের তালা ভাঙলেন সেই অধ্যক্ষ

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি |

কুড়িগ্রামের উলিপুর সরকারি ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) আবু তাহেরের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে বহিরাগতদের সঙ্গে নিয়ে অফিস কক্ষের তালা ভাঙার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় স্থানীয়রা ৯৯৯ ফোন করলে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ঘটনাটি ঘটেছে, সোমবার (২৩ মার্চ) দুপুরে। অধ্যক্ষের তাৎক্ষণিক বদলির আদেশের আটদিন পর সকলের অগোচরে তালা ভেঙে অফিসে প্রবেশ করায় কলেজের শিক্ষক ও কর্মচারীদের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। গত ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসে শহীদ বেদিতে জুতা পায়ে উঠে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন এই আবু তাহের।

কলেজ সূত্র দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানায়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের এক আদেশে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবু তাহেরকে বদলি করা হয়। আদেশে বলা হয় ১৬ মার্চ উলিপুর সরকারি ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবু তাহের বর্তমান কর্মস্থল হতে অবমুক্ত হবেন। অন্যথায় অপরাহ্নে তাৎক্ষণিকভাবে অবমুক্ত বলে গণ্য হবেন। একই সঙ্গে জয়পুরহাটের মহীপুর হাজী মহসিন সরকারি কলেজের সহযোগী অধ্যাপক (হিসাববিজ্ঞান) হিসেবে যোগদান করার নিদের্শ দেয়া হয়। এ ঘটনার আটদিন পর সোমবার দুপুরে অধ্যক্ষ আবু তাহের মাস্টার রোল কর্মচারী মোজাম্মেল হক কালুসহ বহিরাগত কয়েকজন যুবককে সঙ্গে নিয়ে উলিপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষের কক্ষের তালা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করেন। একজন মিস্ত্রীর সহযোগিতায় তালা ভাঙা হয়। সেখানে কিছু সময় অবস্থান করার পর কক্ষের দরজায় নতুন তালা লাগিয়ে চাবি সঙ্গে নিয়ে চলে যান আবু তাহের। এ ঘটনা স্থানীয়দের নজরে আসলে তারা ৯৯৯ এ ফোন করেন। এরকিছু সময় পর উলিপুর থানার এস আই আশরাফ আলীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। 


এ বিষয়ে উলিপুর সরকারি কলেজের ক্যাশিয়ার শামছুল আলম সবুজ দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, ঘটনার সময় কলেজের মসজিদে জোহরের নামাজ আদায় করছিলাম। ফিরে এসে দেখি, সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবু তাহের স্যার তার কক্ষে বহিরাগতদের সঙ্গে নিয়ে বসে আছেন। এর কিছুক্ষণ পর তিনি দরজায় নতুন তালা লাগিয়ে কলেজ থেকে চলে যান। উপস্থিত স্থানীয়দের কাছে জানতে পারি তালা মেরামত করা মিস্ত্রী জনৈক আপেলকে ডেকে এনে কক্ষের তালা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করেন। এ সময় আমার সঙ্গে কলেজের অফিস সহায়ক ফজলুল করিম উপস্থিত ছিলেন। 


উলিপুর সরকারি ডিগ্রি কলেজের হিসাব বিজ্ঞানের প্রভাষক আশাদুজ্জামান আরিফ দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, আজকে  ছুটির দিন থাকায় কলেজের অধিকাংশ শিক্ষক-কর্মচারী অনুপস্থিত ছিলেন। এ সুযোগে কলেজের সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবু তাহের তালা ভেঙে অধ্যক্ষের কক্ষে প্রবেশ করেন। কিছু সময় পর তিনি নতুন তালা লাগিয়ে চলে যান। তিনি আরও বলেন, গত ১৬ মার্চ তাৎক্ষণিকভাবে বদলিকৃত ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ তালা ভেঙে এভাবে প্রবেশ করা সম্পূর্ণ বেআইনী। এ বিষয়ে শিক্ষক পরিষদের মিটিং করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উলিপুর থানার এস আই আশরাফ আলী দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, ৯৯৯ এ ফোন পেয়ে ঘটনস্থলে গিয়ে দেখি অধ্যক্ষের কক্ষে তালা দেয়া। এ সময় অধ্যক্ষকে সেখানে পাইনি। তবে শুনেছি সাবেক অধ্যক্ষ সাহেব এসেছিলেন। 

উলিপুর সরকারি ডিগ্রি কলেজের সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবু তাহের সোমবার কলেজে যাওয়ার কথা স্বীকার করে দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, শিক্ষক মোস্তফা সাহেব আমার কক্ষে তালা মেরে চাবি নিয়ে যান। কক্ষের ভিতরে আমার প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ চেক বই ছিল। সে জন্য তালা খুলে সেগুলো নিয়ে এসেছি। বদলির আদেশের পরও কেন তিনি এ কাজ করলেন জানতে চাইলে তিনি দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, 'আদেশটি ভুল ছিল। আমি এখন পর্যন্ত কারো কাছে কলেজের দায়িত্ব হস্তান্তর করিনি।'

অধ্যক্ষ আবু তাহের গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসে শহীদ বেদিতে জুতা পায়ে উঠে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন। ওই সময় ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে স্থানীয়রা তার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেন। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জানিয়ে স্মারকলিপিও দেয়া হয়।

আপাতত ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha আপাতত ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন : শিক্ষামন্ত্রী পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস, দু’দিনেই প্রজ্ঞাপন - dainik shiksha পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস, দু’দিনেই প্রজ্ঞাপন ৯ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবিতে একাট্টা হচ্ছে সব সরকারি কর্মচারী সংগঠন - dainik shiksha ৯ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবিতে একাট্টা হচ্ছে সব সরকারি কর্মচারী সংগঠন নো মাস্ক নো স্কুল, ক্লাস হবে শিফটে : দুশ্চিন্তায় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha নো মাস্ক নো স্কুল, ক্লাস হবে শিফটে : দুশ্চিন্তায় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সাংবাদিকতার অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মিজানুর রহমান : স্মরণসভায় জেলা জজ - dainik shiksha সাংবাদিকতার অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মিজানুর রহমান : স্মরণসভায় জেলা জজ প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, দাবি প্রতিমন্ত্রীর - dainik shiksha প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, দাবি প্রতিমন্ত্রীর মাদরাসা শিক্ষার সমস্যার সমাধান দ্রুতই : শিক্ষা উপমন্ত্রী - dainik shiksha মাদরাসা শিক্ষার সমস্যার সমাধান দ্রুতই : শিক্ষা উপমন্ত্রী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন প্রকাশ, তিন ফুট দূরত্বে ক্লাসরুমের বেঞ্চ - dainik shiksha শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন প্রকাশ, তিন ফুট দূরত্বে ক্লাসরুমের বেঞ্চ ক্লাসরুমে সর্বোচ্চ ১৫ শিক্ষার্থী, প্রতি বেঞ্চে ১ জন - dainik shiksha ক্লাসরুমে সর্বোচ্চ ১৫ শিক্ষার্থী, প্রতি বেঞ্চে ১ জন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে - dainik shiksha শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে please click here to view dainikshiksha website