বিয়ের দাবিতে শিক্ষকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা

বিয়ের দাবিতে শিক্ষকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

শেরপুর প্রতিনিধি |

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে বিয়ের দাবিতে এক শিক্ষকের বাড়িতে তার প্রেমিকা অনশন শুরু করেছেন চলছে। উপজেলার ধানশাইল ইউনিয়নের চকপাড়া গ্রামে শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলামের বাড়িতে অবস্থান নিয়ে গত ১ জুন থেকে অনশন শুরু করেছেন কামরুননাহার নামের ওই নারী। তার অভিযোগ বিয়ের প্রলোভনে দৈহিক সম্পর্কের পর ওই শিক্ষক তাকে বিয়ে করতে চাচ্ছেন না। 

জানা গেছে, ওই গ্রামের আকাবর  আলীর ছেলে, ২ সন্তানের জনক মো. রফিকুল ইসলাম পানবর ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসা ও উত্তরণ পাবলিক স্কুলের শিক্ষক। কামরুননাহার দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের মো. কোরাজ মিয়ার মেয়ে। 

কামরুননাহারের অভিযোগ, তিনি একজন গার্মেন্টস কর্মী। গাজীপুরের একটি গার্মেন্টসে চাকরি করেন। তার সাথে শিক্ষক রফিকুল ইসলামের ছোট বোন আলেয়া (২৭) একই গার্মেন্টসে চাকরি করে।  রফিকুল ইসলাম তার বোনের কাছে গাজীপুরে বেড়াতে এসে বোনের বান্ধবী কামরুননাহারের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলেন। 

রফিকুল ইসলামের ছোট বোন আলেয়ার দাবি, গত প্রায়  ৭ বছর ধরে কামরুননাহারের সাথে তার ভাই শিক্ষক রফিকুল ইসলামের সম্পর্ক। কামরুননাহার ঝিনাইগাতীর চকপাড়ায় রফিকুল ইসলামের গ্রামের বাড়িতে মাঝে মধ্যে বেড়াতে আসতো। বিয়ে না পড়িয়ে তাকে নিয়ে সংসারও করা হয়। কামরুননাহার রফিকুল ইসলামকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে তিনি নানাভাবে টালবাহানা শুরু করে। গত ১জুন থেকে কামরুনাহার বিয়ের দাবিতে চকপাড়া গ্রামে  রফিকুল ইসলামের বাড়িতে অনশন শুরু করে।  এ ঘটনার পর থেকে রফিকুল ইসলাম বাড়ি থেকে গা-ঢাকা দিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

এ ব্যাপারে কামরুননাহার গতকাল সোমবার (৭জুন) ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও  থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মনিনুর রহমান উকিল অনশনের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।  

আরও পড়ুন : দৈনিক শিক্ষাডটকম পরিবারের প্রিন্ট পত্রিকা ‘দৈনিক আমাদের বার্তা’

যদিও শিক্ষক রফিকুল ইসলাম ইসলাম এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে দাবি করেছেন।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান অভিযোগ পাওয়ার ঘটনার  সত্যতা নিশ্চিত করে দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন,  ঘটনাস্থল যেহেতু গাজীপুর ও ময়মনসিংহ। সেহেতু মামলা হওয়ার কথা সেখানেই। এরপরেও অভিযোগ যেহেতু দেয়া হয়েছে। তা তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দৈনিক আমাদের বার্তার ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব ও ফেসবুক পেইজটি ফলো করুন

৪৩ লাখ শিক্ষার্থীর টিউশন ফি-উপবৃত্তির হাজার কোটি টাকা বিতরণ শুরু - dainik shiksha ৪৩ লাখ শিক্ষার্থীর টিউশন ফি-উপবৃত্তির হাজার কোটি টাকা বিতরণ শুরু এসএসসি-এইসএসসি পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত শিগগির : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha এসএসসি-এইসএসসি পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত শিগগির : শিক্ষামন্ত্রী দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে - dainik shiksha দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবিতে ‘শিক্ষক-অভিভাবক’ সমাবেশ ২৬ জুন - dainik shiksha শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবিতে ‘শিক্ষক-অভিভাবক’ সমাবেশ ২৬ জুন এনজিওর হাতে যাচ্ছে সরকারি হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা! - dainik shiksha এনজিওর হাতে যাচ্ছে সরকারি হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা! বিলের মধ্যে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্র: এক চিঠিতেই আটকে গেল ভূমি অধিগ্রহণ - dainik shiksha বিলের মধ্যে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্র: এক চিঠিতেই আটকে গেল ভূমি অধিগ্রহণ ঢাকার রাস্তায় প্রাইভেট ক্যামেরা, ফুটেজের ব্যবসা! - dainik shiksha ঢাকার রাস্তায় প্রাইভেট ক্যামেরা, ফুটেজের ব্যবসা! নির্মাণাধীন ম্যাটসে মেঝে ভরাটে বালুর পরির্বতে মাটি - dainik shiksha নির্মাণাধীন ম্যাটসে মেঝে ভরাটে বালুর পরির্বতে মাটি উচ্চশিক্ষার ক্ষতি পোষাতে শিক্ষাবর্ষের সময় কমানো ও ছুটি বাতিলের পরামর্শ - dainik shiksha উচ্চশিক্ষার ক্ষতি পোষাতে শিক্ষাবর্ষের সময় কমানো ও ছুটি বাতিলের পরামর্শ please click here to view dainikshiksha website