ভিকারুননিসার স্কুলড্রেস নিয়ে একচ্ছত্র ব্যবসা বন্ধের রায় - কলেজ - দৈনিকশিক্ষা

ভিকারুননিসার স্কুলড্রেস নিয়ে একচ্ছত্র ব্যবসা বন্ধের রায়

নিজস্ব প্রতিবেদক |

শিক্ষার্থীদের স্কুলড্রেস সরবরাহে আর কোন প্রতিষ্ঠানকে দীর্ঘ সময় ধরে একচ্ছত্রভাবে ব্যবসা করার সুযোগ দিতে পারবেনা রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল এন্ড কলেজ। শিক্ষার্থীদের পোশাক বানানো সংক্রান্ত এক মামলায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল এন্ড কলেজ কর্তৃপক্ষকে প্রতিযোগিতামূলক বাজার মানার আদেশ দিয়েছেন প্রতিযোগিতা কমিশন। আদেশ অনুযায়ী, একক প্রতিষ্ঠানকে না দিয়ে প্রত্যেক ক্যাম্পাসের জন্য ন্যূনতম তিনটি প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে শিক্ষার্থীদের পোশাক বানাতে হবে। এই বাছাই কার্যক্রমে দরজির দোকান নির্বাচনের জন্য দুটি পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে হবে। এর আগে স্কুলের পোশাক, রং, নকশা, মনোগ্রাম ও দাম সম্পর্কে অভিভাবকদের জানাতে হবে। এরপর মনোনীত পোশাক নির্বাচিত তিনটি দরজি বা প্রতিষ্ঠানের কাছে জমা দিতে হবে।

প্রতিযোগিতামূলক বাজার তৈরির লক্ষ্যে স্বপ্রণোদিত হয়ে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের করা এক মামলায় বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) এ রায় দেয়া হয়।

রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল এন্ড কলেজ কর্তৃপক্ষ মেসার্স চৌধুরী এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে দীর্ঘ সময়ব্যাপী শিক্ষার্থীদের পোশাক তৈরির একচেটিয়া ব্যবসার সুযোগ দিয়েছিলো।  অভিযোগ ছিল, ২০১৮, ২০১৯ এবং ২০২০ খ্রিষ্টাব্দে ওই টেইলার্স থেকে শিক্ষার্থীদের পোশাক বানানো বাধ্যতামূলক ছিল। অন্য কোনো টেইলার্স থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীরা পোশাক বানাতে পারবে না। যা প্রতিযোগিতামূলক বাজার সৃষ্টির জন্য অন্তরায় এবং প্রতিযোগিতা আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। তাই কমিশন স্বপ্রণোদিত হয়ে অভিযোগ করেছিল। বিষয়টি পর্যালোচনা ও বিশ্লেষন করে কমিশন আজ এ রায় দিলো।  

কমিশনের কর্মকর্তারা বলেন, ব্যবসা-বাণিজ্যে অসম প্রতিযোগিতা কমিয়ে সুশাসন নিশ্চিত করা এই কমিশনের কাজ। ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে অসমতাবিষয়ক অভিযোগ এলে কমিশন আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়ে থাকে। এ-সংক্রান্ত বিষয়ে মানুষের আরও সচেতন হওয়া দরকার।

ভিকারুননিসা নূন স্কুল এন্ড কলেজের মামলার আদেশে বলা হয়েছে, এই মামলায় স্কুল কর্তৃপক্ষ ও মেসার্স চৌধুরী এন্টারপ্রাইজের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। প্রতিযোগিতা আইনের ধারা ১৫-এর উপধারা ১-এর বিধান লঙ্ঘিত হয়েছে। রায়ে মেসার্স চৌধুরী এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধীকারী ইব্রাহীম মোল্লাকে ৭৯ হাজার ৮৯৭ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। 

রায়ে আরও বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের পোশাকের কাপড়, রং, ডিজাইন, মনোগ্রাম, অভিন্ন রাখার উদ্দেশ্যে অভিভাবকদের জানিয়ে নির্ধারিত পোশাকের একটি নমুনা নির্বাচিত দর্জির দোকান বা প্রতিষ্ঠান সরবরাহ করতে হবে। একটি নির্দিষ্ট দোকান থেকে পোশাক ক্রয় বাধ্যবাধকতা পরিহার করার উদ্দেশ্যে প্রত্যেক ক্যাম্পাসের জন্য নূন্যতম তিনটি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান নির্বাচন করে পোশাক তৈরি বা সংগ্রহের কাজ সম্পাদন করতে হবে। প্রতিষ্ঠিত নির্বাচনের জন্য বহুল প্রচারিত একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে নির্দিষ্ট তারিখের মধ্যে বাছাই কার্যক্রম শেষ করতে হবে।  প্রতিষ্ঠানের নোটিশ বোর্ড বা নির্ধারিত স্থানে এবং নির্বাচিত দোকানে পোশাকের মূল্য তালিকা প্রদর্শন করতে হবে এবং নির্ধারিত মূল্যের পোশাক বিক্রি হচ্ছে কিনা তা তদারকি করতে করতে হবে স্কুল কর্তৃপক্ষকে।

প্রতিযোগিতা কমিশনের সদস্য আ ফ ম মনজুর কাদির দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, ‘অভিযোগ ছিল, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীদের পোশাক একটি প্রতিষ্ঠান থেকে বানাতে হতো। এটি প্রতিযোগিতামূলক করতে রায় দেয়া হয়েছে। অভিভাবকেরা যাতে তাঁদের ইচ্ছেমতো প্রতিষ্ঠান বা জায়গা থেকে পোশাক তৈরি করতে পারেন, সে জন্য এই রায় দেয়া হয়েছে। 

জানা গেছে, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের বিরুদ্ধে করা এই মামলাটি ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের ১২ ডিসেম্বরে প্রতিযোগিতা কমিশন স্বপ্রণোদিত হয়ে দায়ের করেছিল। 

মেসার্স চৌধুরী এন্টারপ্রাইজ কর্তৃপক্ষের ভাষ্য, ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতিবছর ১২ থেকে ১৩ হাজার পোশাক বানাতে হয়। প্রতিষ্ঠানটির কারখানা পুরান ঢাকার পাটুয়াটুলীতে। তবে কোনো কার্যালয় নেই। প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির জন্য ৭৫০ থেকে ৮৫০ টাকা, ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির ১ হাজার ২০০ টাকা এবং উচ্চমাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের পোশাকের দাম ১ হাজার ৪০০ টাকা রাখা হয়।

মেসার্স চৌধুরী এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মো. ইব্রাহিম মোল্লার দাবি, ২০০৩ খ্রিষ্টাব্দের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেখে দরপত্রের মাধ্যমে তিনি ভিকারুননিসা স্কুলের পোশাক তৈরির কাজ পান। এরপর আর দরপত্র হয়নি। তবে তিনি এই কাজ প্রতিবছর পাচ্ছিলেন। 

বাজারে সুস্থ প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশ তৈরিতে ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন গঠিত হয়। অর্থনীতিতে টেকসই উন্নয়ন আনাই এর লক্ষ্য।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল  SUBSCRIBE  করতে ক্লিক করুন।

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা পেছাচ্ছে - dainik shiksha ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা পেছাচ্ছে মামুনুলের বিরুদ্ধে ১৭ মামলা - dainik shiksha মামুনুলের বিরুদ্ধে ১৭ মামলা পেছাতে পারে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা - dainik shiksha পেছাতে পারে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা ‘আমি মেডিকেলে চান্স পেয়েছি তাই ডাক্তার, তুই পাসনি তাই পুলিশ’ - dainik shiksha ‘আমি মেডিকেলে চান্স পেয়েছি তাই ডাক্তার, তুই পাসনি তাই পুলিশ’ লকডাউন আরো এক সপ্তাহ বাড়তে পারে - dainik shiksha লকডাউন আরো এক সপ্তাহ বাড়তে পারে উপবৃত্তির টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু - dainik shiksha উপবৃত্তির টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু তুখোড় গণিত শিক্ষক আব্দুল গাফ্ফারের দিন কাটে পথে পথে - dainik shiksha তুখোড় গণিত শিক্ষক আব্দুল গাফ্ফারের দিন কাটে পথে পথে ইবতেদায়ি শিক্ষকদের তিন মাসের অনুদানের চেক ব্যাংকে - dainik shiksha ইবতেদায়ি শিক্ষকদের তিন মাসের অনুদানের চেক ব্যাংকে সেহরি ও ইফতারের সূচি - dainik shiksha সেহরি ও ইফতারের সূচি দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে - dainik shiksha দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে please click here to view dainikshiksha website