ভুয়া ইনডেক্সে অধ্যক্ষের এমপিও : এবার ফাঁসছেন কর্মকর্তারা - এমপিও - দৈনিকশিক্ষা

ভুয়া ইনডেক্সে অধ্যক্ষের এমপিও : এবার ফাঁসছেন কর্মকর্তারা

নিজস্ব প্রতিবেদক |

ভুয়া ইনডেক্সে জালিয়াতি করে রাজধানীর টিএন্ডটি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ড. মো. মহসিন হোসেনের এমপিওভুক্তির ঘটনায় এবার ফাঁসছেন দুই কর্মকর্তা। তার নিয়োগ কমিটির সাথে জড়িত শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের প্রতিনিধি ও এমপিওভুক্তির সাথে জড়িত ঢাকা অঞ্চলের উপপরিচালককে এ জালিয়াতির ব্যাখ্যা দিতে হবে। এ দুই কর্মকর্তাকে শোকজ করার নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ থেকে এ শিক্ষা অধিদপ্তরকে এ কর্মকর্তাদের শোকজ করতে বলা হয়েছে।

জানা গেছে, ভুয়া ইনডেক্স দেখিয়ে জালিয়াতি করে এমপিওভুক্ত হয়েছেন রাজধানীর টিএন্ডটি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ড. মো. মহসিন হোসেন। ভুয়া ইনডেক্স নম্বর দেখিয়ে এমপিওভুক্ত হলেও এর আগে তার কোন ইনডেক্স ছিলনা। এমপিওভুক্ত হতে অধ্যক্ষের এ জালিয়াতির প্রমাণ মিলেছে। ইতোমধ্যে বেতন বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এবার তার নিয়োগ ও এমপিওভুক্তির সাথে জড়িত দুই কর্মকর্তার ব্যাখ্যা তলব করা হলো। 

মন্ত্রণালয় থেকে শিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠানো চিঠিতে, ভুয়া ইনডেক্স দেখিয়ে এমপিওভুক্ত হওয়া টিএন্ডটি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ড. মো. মহসিন হোসেনের কাম্যযোগ্যতা না থাকা সত্ত্বেও নিয়োগের সুপারিশ করার নিয়োগ কমিটিতে জড়িত শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রতিনিধি এবং পরবর্তীতে এমপিওভুক্তির সাথে সংশ্লিষ্ট উপপরিচালককে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে। 

মন্ত্রণালয় সূত্র দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানায়, টিএন্ডটি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. মহসিন হোসেনের এমপিওভুক্তি নিয়ে অভিযোগ উঠলে তা তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরকে। গত বছরে ৮ জুন অধিদপ্তর শিক্ষা অধিদপ্তর মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন পাঠিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ভুয়া ইনডেক্স নম্বর দেখিয়ে অধ্যক্ষ ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দের নভেম্বর মাসে এমপিওভুক্ত হয়েছেন। এ পদে এমপিওভুক্ত হওয়ার আগে তার কোন ইনডেক্স ছিল না। একইসাথে অধ্যক্ষের এমপিও স্থগিতের আদেশ বহাল রাখতে বলা হয়েছে।

জানা গেছে, প্রতিষ্ঠানটিতে ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দে নিয়োগের পর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে নভেম্বর মাসে এমপিওভুক্ত হন অধ্যক্ষ ড. মো. মহসিন হোসেন। যথাযথ যোগ্যতা না থাকার পরও তাকে রাজধানীর টিএন্ডটি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ নিয়োগ দেয়া নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছিল। 

জানা গেছে, ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দের জুন মাসে অধ্যাপক ড. মো. মহসীন হোসেন নিয়োগ পান। সে আলোকে একই বছরের ৩০ জুন অধ্যক্ষ পদে যোগদান করেন তিনি। কিন্তু তিনি যে এমপিওভুক্তির ইনডেক্স ব্যবহার করেছেন তা ভুয়া। আসাদুল হক নামের আরেক শিক্ষকের ইনডেক্স নম্বর তিনি ব্যবহার করেছেন। তথ্য গোপন করে অধ্যক্ষ পদে এমপিওর আবেদন করলে আবেদন ফিরিয়ে দেয় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর। এমপিও না দেয়ায় উচ্চ আদালতে রিট মামলা করেন মহসীন। পরে, এমপিওভুক্ত হন।

কলেজ সূত্রে জানা যায়, প্রথমে এমপিওর আবেদনে ইনডেক্স নম্বর দেননি তিনি। পরে যখন এমপিওর ইনডেক্স নম্বর চাওয়া হয় তখন তিনি এমপিও শিট জমা দেন। তবে সেটি অন্য জনের বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কয়েকটি সূত্র দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানায়, ফরিদপুর সিটি কলেজের ননএমপিও পদে চাকরির সাত বছরের অভিজ্ঞতা রয়েছে তার। আর জিপিএ-৫ বাণিজ্যে অভিযুক্ত কুখ্যাত ক্যামব্রিয়ান কলেজের পাঁচ বছরের চাকরিকে অভিজ্ঞতা আছে। এরপর প্রতিষ্ঠান থেকে নিয়োগ নিয়ে ভুয়া ইনডেক্স দেখিয়ে এমপিওভুক্ত হয়েছেন তিনি।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে সয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল  SUBSCRIBE   করতে ক্লিক করুন।

হেফাজত নেতা মামুনুল গ্রেফতার - dainik shiksha হেফাজত নেতা মামুনুল গ্রেফতার লকডাউন আরো এক সপ্তাহ বাড়তে পারে - dainik shiksha লকডাউন আরো এক সপ্তাহ বাড়তে পারে পিঠে অক্সিজেন সিলিন্ডার বেঁধে মোটরসাইকেলে শিক্ষিকা মাকে নিয়ে হাসপাতালে - dainik shiksha পিঠে অক্সিজেন সিলিন্ডার বেঁধে মোটরসাইকেলে শিক্ষিকা মাকে নিয়ে হাসপাতালে উপবৃত্তির টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু - dainik shiksha উপবৃত্তির টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু পাস কম তাই মাদরাসার এমপিও বন্ধ - dainik shiksha পাস কম তাই মাদরাসার এমপিও বন্ধ মিনা পাল থেকে যেভাবে ঢাকাই চলচ্চিত্রের 'মিষ্টি মেয়ে' - dainik shiksha মিনা পাল থেকে যেভাবে ঢাকাই চলচ্চিত্রের 'মিষ্টি মেয়ে' ইবতেদায়ি শিক্ষকদের তিন মাসের অনুদানের চেক ব্যাংকে - dainik shiksha ইবতেদায়ি শিক্ষকদের তিন মাসের অনুদানের চেক ব্যাংকে সেহরি ও ইফতারের সূচি - dainik shiksha সেহরি ও ইফতারের সূচি দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে - dainik shiksha দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে please click here to view dainikshiksha website