মিয়ানমারে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে শিক্ষক-ছাত্রদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে জান্তা - দৈনিকশিক্ষা

মিয়ানমারে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে শিক্ষক-ছাত্রদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে জান্তা

দৈনিক শিক্ষাডটকম ডেস্ক |

দৈনিক শিক্ষাডটকম ডেস্ক : মিয়ানমারের সামরিক জান্তার টার্গেট এখন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর, শিক্ষক ও ছাত্রদের সামরিক প্রশিক্ষণ দেয়া। প্রশিক্ষণ শেষে তাদেরকে যোগ দেয়াবে সেনাবাহিনীতে। এরই মধ্যে আয়েওয়াদি অঞ্চলের রাজধানী পাথেইনের চারটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্রদের প্রশিক্ষণ দেয়া শুরু করেছে তারা। 

 

এ সপ্তাহে শুরু হয়েছে এই প্রশিক্ষণ। এর মধ্য দিয়ে এটা ফুটে উঠেছে যে, বাইরের কোনো দেশের সঙ্গে যুদ্ধ নয়, নিজের দেশের ভিতরে বিদ্রোহী গ্রুপগুলোর সঙ্গে লড়াইয়ে তারা কতটা বেকায়দায় আছে। এ খবর দিয়ে অনলাইন দ্য ইরাবতী বলছে, প্রথম দিনেই পাথেইন ইউনিভার্সিটিতে এমন সামরিক প্রশিক্ষণে যোগ দিয়েছিলেন মোট  ১১৬ জন প্রফেসর ও ছাত্র। তারা তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের এবং একটি কলেজের। এগুলো হলো পাথেইন ইউনিভার্সিটি, টেকনোলজিক্যাল ইউনিভার্সিটি, কম্পিউটার ইউভিার্সিটি এবং এডুকেশন কলেজ।

ওই অঞ্চলে এটাই বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষক ও ছাত্রদের প্রথম প্রশিক্ষণ। দ্য ইরাবতীকে এ তথ্য দিয়েছে প্রতিরোধ গ্রুপের পাথেইন স্পেশাল টাস্কফোর্স। বলা হয়েছে, এই প্রশিক্ষণ শেষ করতে সময় লাগবে ১৫ থেকে ৪৫ দিন। তবে সেনাবাহিনীপন্থি টেলিগ্রাম চ্যানেল থেকে বলা হচ্ছে, এসব মানুষ স্বেচ্ছায় এই প্রশিক্ষণে যোগ দিয়েছেন। পাথেইন স্পেশাল টাস্কফোর্স এ তথ্যকে মিথ্যা বলে দাবি করেছে। তারা বলেছে, প্রফেসররা এবং ছাত্রারা কখনো সামরিক প্রশিক্ষণ নিতে চায় না। এ নিয়ে ওইসব ইউনিভার্সিটি এবং কলেজের শিক্ষক ও ছাত্রদের সঙ্গে যোগাযোগ করে ইরাবতী। কিন্তু তারা এ বিষয়ে কোনো উত্তর দেয়নি।  

উল্লেখ্য, গত বছরের শেষের দিক থেকে প্রতিরোধ যোদ্ধা বা বিদ্রোহী গোষ্ঠীর কাছে মারাত্মকভাবে পরাজিত হচ্ছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। গুরুত্বপূর্ণ বেশ কিছু শহর এবং ঘাঁটি দখল করেছে তারা। শান, রাখাইন, কারেনি এবং চিন রাজ্যে মারাত্মক লড়াই চলছে। 

রাজনৈতিক বিশ্লেষক ইউ থান শয়ে নাইং বলেছেন, নিজেদের বাহিনীকে গড়ে তোলা এবং ‘বসন্ত বিপ্লবে’ সফলতা প্রতিরোধ করতে শাসকগোষ্ঠী এখন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও ছাত্রদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। তবে এতে তারা সফল হবে না।  তাতে উল্টো ফল দেবে। বর্তমান পরিস্থিতিতে পুরো দেশের জনগণ সেনাবাহিনীর ওপর হতাশ। ফলে যাতই প্রশিক্ষণ দেয়া হোক, তাতে সেনাবাহিনীর শক্তি বৃদ্ধি হবে না।

দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে - dainik shiksha কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে - dainik shiksha র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে পরিবর্তনশীল বিশ্বের মতোই শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তোলা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha পরিবর্তনশীল বিশ্বের মতোই শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তোলা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী জিপিএ-৫ পেয়েও কলেজ মনোনয়ন পায়নি সাড়ে ৮ হাজার শিক্ষার্থী - dainik shiksha জিপিএ-৫ পেয়েও কলেজ মনোনয়ন পায়নি সাড়ে ৮ হাজার শিক্ষার্থী সরকারি কলেজগুলোকে পাশের বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত করার পরামর্শ - dainik shiksha সরকারি কলেজগুলোকে পাশের বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত করার পরামর্শ গুচ্ছে দ্বিতীয় পর্যায়ে ভর্তি শুরু ২৬ জুন - dainik shiksha গুচ্ছে দ্বিতীয় পর্যায়ে ভর্তি শুরু ২৬ জুন সভাপতি-প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ - dainik shiksha সভাপতি-প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ please click here to view dainikshiksha website Execution time: 0.0037331581115723