মুচলেকায় এমপিও ফিরে পাচ্ছেন নকলে সহায়তা করা তিন শিক্ষক! - এমপিও - দৈনিকশিক্ষা

মুচলেকায় এমপিও ফিরে পাচ্ছেন নকলে সহায়তা করা তিন শিক্ষক!

নিজস্ব প্রতিবেদক |

পরীক্ষায় নকলে সহায়তা করায় এমপিও বন্ধ হয়েছিল তিন শিক্ষকের। কিন্তু অঙ্গীকার নামা দিয়ে এমপিও ফিরে পাচ্ছেন তারা। অঙ্গীকার নামা জমা দেয়ায় পরীক্ষায় নকলে সহয়তা করা তিন শিক্ষকের স্থগিত এমপিও চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ থেকে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরকে নকলে সহায়তাকারী তিন শিক্ষকের এমপিও ছাড় করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। 

জানা গেছে, টাঙ্গাইল সদর উপজেলার টাঙ্গাইল দারুল উলুম কামিল মাদরাসার প্রভাষক আব্দুল ওহাব, কোরেশনগর ফাযিল মাদরাসার প্রভাষক মো. নাছির উদ্দিন এবং খারজানা হোসানিয়া আলিম মাদরাসার প্রভাষক মমতাজ আখতার ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের আলিম পরীক্ষায় নকলে সহায়তা করেছিলেন। এ অপরাধে ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের জুলাই মাস থেকে তাদের এমপিও স্থগিত করা হয়। তবে, হঠাৎ জানুয়ারি মাস থেকে তাদের এমপিও ছাড় করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। 

মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ সূত্র দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানায়, গত ৩ জানুয়ারি কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগে এসেছিলেন এ তিন শিক্ষক। এসে তাদের এমপিও ছাড় করার আবেদন জানিয়েছেন। একইসাথে তারা একটি অঙ্গীকার নামা দিয়েছেন। যার জোরে এমপিও ফিরে পাচ্ছেন ওই শিক্ষকরা। 

অঙ্গীকার নামায় শিক্ষকরা বলেছেন, ‘নিজেদের ত্রুটির কারণে এমপিও বন্ধ হওয়া ও দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকায় কর্তৃপক্ষ সন্তুষ্ট হয়ে ২০২০ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি মাস থেকে এমপিও চালু হলে আমাদের কোন আপত্তি নেই।’ শিক্ষকরা আরও বলেছেন, ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের জুলাই মাস থেকে ২০২০ খ্রিষ্টাব্দের ডিসেম্বর পর্যন্ত কোন বকেয়া এমপিও দাবি করবে না। যে ত্রুটির কারণে এমপিও বন্ধ হয়েছিল ভবিষ্যতে সে ত্রুটি করবো না। 

জানা গেছে, এ অঙ্গীকারনামা গ্রহণ করে তিন শিক্ষকের বেতন চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মন্ত্রণালয়। মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরকে তিন শিক্ষকের এমপিও চালু করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ২০ জানুয়ারির মধ্যে তাদের এমপিও চালু করে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগকে জানাতে বলা হয়েছে অধিদপ্তরকে। গত ৫ জানুয়ারি এ আদেশ জারি করেছে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ। আদেশটি অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে। 

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব (লিংক যাবে) করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে সয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

আপাতত ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha আপাতত ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন : শিক্ষামন্ত্রী পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস, দু’দিনেই প্রজ্ঞাপন - dainik shiksha পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস, দু’দিনেই প্রজ্ঞাপন ৯ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবিতে একাট্টা হচ্ছে সব সরকারি কর্মচারী সংগঠন - dainik shiksha ৯ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবিতে একাট্টা হচ্ছে সব সরকারি কর্মচারী সংগঠন নো মাস্ক নো স্কুল, ক্লাস হবে শিফটে : দুশ্চিন্তায় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha নো মাস্ক নো স্কুল, ক্লাস হবে শিফটে : দুশ্চিন্তায় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সাংবাদিকতার অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মিজানুর রহমান : স্মরণসভায় জেলা জজ - dainik shiksha সাংবাদিকতার অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মিজানুর রহমান : স্মরণসভায় জেলা জজ প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, দাবি প্রতিমন্ত্রীর - dainik shiksha প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, দাবি প্রতিমন্ত্রীর মাদরাসা শিক্ষার সমস্যার সমাধান দ্রুতই : শিক্ষা উপমন্ত্রী - dainik shiksha মাদরাসা শিক্ষার সমস্যার সমাধান দ্রুতই : শিক্ষা উপমন্ত্রী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন প্রকাশ, তিন ফুট দূরত্বে ক্লাসরুমের বেঞ্চ - dainik shiksha শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন প্রকাশ, তিন ফুট দূরত্বে ক্লাসরুমের বেঞ্চ ক্লাসরুমে সর্বোচ্চ ১৫ শিক্ষার্থী, প্রতি বেঞ্চে ১ জন - dainik shiksha ক্লাসরুমে সর্বোচ্চ ১৫ শিক্ষার্থী, প্রতি বেঞ্চে ১ জন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে - dainik shiksha শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে please click here to view dainikshiksha website