মেধাবী শিক্ষার্থীরা জাবিতে এসে কেন ধর্ষক মাদকাসক্ত হয়, প্রশ্ন শিক্ষকদের - দৈনিকশিক্ষা

মেধাবী শিক্ষার্থীরা জাবিতে এসে কেন ধর্ষক মাদকাসক্ত হয়, প্রশ্ন শিক্ষকদের

দৈনিকশিক্ষাডটকম, জাবি |

দৈনিকশিক্ষাডটকম, জাবি: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ষণসহ বিভিন্ন সময়ে নিপীড়নের সঙ্গে জড়িত অপরাধীদের বিচার ও মাদকমুক্ত করার দাবিতে মানববন্ধন করেছে জাবি জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম। 

রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারসংলগ্ন সড়কে এ কর্মসূচি পালন করেন তারা।

মানববন্ধনে দর্শন বিভাগের অধ্যাপক কামরুল আহসান বলেন, ১৯৯৮ খ্রিষ্টাব্দ থেকে আমরা দেখেছি, একটি বিশেষ রাজনৈতিক দল যখন ক্ষমতায় থাকে, তাদের ছাত্র সংগঠনের ছত্রছায়ায় মেধাবী শিক্ষার্থীরা মাদকাসক্ত হয়, ক্ষমতার অপব্যবহার করে এবং ক্ষমতায় থেকে ধর্ষক হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করতে চায়।

গণমাধ্যমে একের পর এক ধর্ষণ, মাদক-সংশ্লিষ্টতা ও প্রশাসনের ব্যর্থতার খবর ছাপা হচ্ছে। যার সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মান জড়িত। ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত মোস্তাফিজ মেধাবী হয়েই ক্যাম্পাসে ভর্তি হয়েছিল। তবে কেন আজ ধর্ষক হয়ে বের হলো তার দায়ও প্রশাসনকে নিতে হবে।

তিনি বলেন, আসুন দলমত নির্বিশেষে নিপীড়কের বিরুদ্ধে সোচ্চার হই। গণিত বিভাগের অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, ১৯৯৮ সালে ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনের ঠিক ২৫ বছর পর বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ষণের একই ঘটনা ঘটেছে। অভিযোগ একই ছাত্র সংগঠনের বিরুদ্ধে। নতুন করে ধর্ষণের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে মাদক। বহু শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ঝরে গেছে মাদকের ভয়াল থাবায়। আবাসিক হলগুলোতে অবৈধ ছাত্ররা অবাধে থাকছে, চাঁদাবাজি হচ্ছে, মাদকের প্রসার হচ্ছে। উপাচার্য এগুলো জেনেও যদি না জানার ভান করেন, তাহলে তিনি পদে থাকার অযোগ্য।

৩ ফেব্রুয়ারি রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে ছাত্রলীগের এক নেতাসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল অষ্টম দিনের মতো আন্দোলন চালিয়ে যান শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এদিন সন্ধ্যায় নিপীড়নবিরোধী মঞ্চের ব্যানারে শহীদ মিনার থেকে মশাল মিছিল বের করেন তারা। মিছিলটি বটতলাসহ কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিণ করে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে সমাবেশ শেষে উপাচার্যসহ প্রশাসনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তারা।

ফার্মেসি বিভাগের অধ্যাপক মাফরুহী সাত্তারের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন অধ্যাপক আমির হোসেন, সামছুল আলম সেলিম, অধ্যাপক নাসরিন, রাশেদ, নূরুল ইসলাম, জামাল উদ্দিন, আমির হোসেন ভূঁইয়া, বোরহান উদ্দিন প্রমুখ।

কওমি মাদরাসা নিয়ে সিদ্দিকুর রহমান খানের অনবদ্য গ্রন্থ - dainik shiksha কওমি মাদরাসা নিয়ে সিদ্দিকুর রহমান খানের অনবদ্য গ্রন্থ ভিকারুননিসার শিক্ষক মুরাদকে ৭ দিনের রিমান্ডে চায় পুলিশ - dainik shiksha ভিকারুননিসার শিক্ষক মুরাদকে ৭ দিনের রিমান্ডে চায় পুলিশ ২০২৬ থেকে পূর্ণ সিলেবাসে এইচএসসি পরীক্ষা - dainik shiksha ২০২৬ থেকে পূর্ণ সিলেবাসে এইচএসসি পরীক্ষা পাঠ্যবই ছাপতে আগ্রহী অধিদপ্তর, বিপদের শঙ্কায় এনসিটিবি - dainik shiksha পাঠ্যবই ছাপতে আগ্রহী অধিদপ্তর, বিপদের শঙ্কায় এনসিটিবি শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মদপান, দুই শিক্ষক বরখাস্ত - dainik shiksha শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মদপান, দুই শিক্ষক বরখাস্ত মাধ্যমিকে বয়ঃসন্ধিকাল ও পিয়ার মেন্টরিং - dainik shiksha মাধ্যমিকে বয়ঃসন্ধিকাল ও পিয়ার মেন্টরিং পাঁচ হাজার টাকা সহায়তা পাবেন শিক্ষার্থীরা, আবেদন বৃহস্পতিবার পর্যন্ত - dainik shiksha পাঁচ হাজার টাকা সহায়তা পাবেন শিক্ষার্থীরা, আবেদন বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অনুদান পেতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আবেদন বৃহস্পতিবার পর্যন্ত, টাকা যাবে নগদে - dainik shiksha অনুদান পেতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আবেদন বৃহস্পতিবার পর্যন্ত, টাকা যাবে নগদে দৈনিক শিক্ষাডটকমের ফেসবুক পেজ দেখুন - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষাডটকমের ফেসবুক পেজ দেখুন please click here to view dainikshiksha website Execution time: 0.0035629272460938