যেসব শিক্ষকের এমপিও জটিলতা কাটলো - এমপিও - দৈনিকশিক্ষা

যেসব শিক্ষকের এমপিও জটিলতা কাটলো

নিজস্ব প্রতিবেদক |

এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামো জারির আগে নিয়োগ কার্যক্রম শুরু হলেও নীতিমালা জারির পর নিয়োগ কার্যক্রম শেষ হওয়ায় অনেক শিক্ষক এমপিওভুক্ত হতে পারছিলেন না। তাদের এমপিও জটিলতা কেটেছে। তারা এমপিওভুক্ত হতে পারবেন। এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামো অনুসারে তাদের এমপিওভুক্তি ব্যবস্থা নিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে বলেছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুসারে এসব শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির ব্যবস্থা নিতে বলেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সে নির্দেশনা অনুসারে এসব শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা  ও প্রতিষ্ঠান প্রধানদের বলেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর।

২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের জুন মাসের মাঝামাঝি এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামো জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। নতুন নীতিমালায় অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ  ও প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগের যোগ্যতায় পরিবর্তন হয়। কিন্তু নীতিমালা জারির আগে অনেক অধ্যক্ষ-উপধ্যক্ষ, প্রতিষ্ঠান প্রধান ও কর্মচারী নিয়োগের প্রক্রিয়া চলছিল। নতুন নীতিমালা জারির আগে নিয়োগ কার্যক্রম শুরু হওয়ায় নিয়োগের প্রক্রিয়া আগের নীতিমালা অনুসারে চালানো হচ্ছিল। কিন্তু ১২ জুন নীতিমালা জারির পর তাদের নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পর তারা জটিলতায় পড়েছিলেন। আগের নীতিমালা অনুসারে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল, তাই নতুন নীতিমালা অনুসারে তারা এমপিওভুক্ত হতে পারছিলেন না। 

এসব শিক্ষকের এমপিও জটিলতা কাটলো। নীতিমালা জারির আগে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হলেও নীতিমালা জারির পর নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকরা এমপিওভুক্ত হতে পারবে বলে মত দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি অর্থমন্ত্রণালয় থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগে পাঠানো এক চিঠিতে এসব শিক্ষকের এমপিওভুক্তির বিষয়ে মতামত জানানো হয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয় বলছে, এসব শিক্ষক-কর্মচারীর এমপিওভুক্তি বিষয়টি ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দে জারি হওয়া এমপিও নীতিমালা  ও জনবল কাঠামোর অনুচ্ছেদ ১১.১৩, অনুচ্ছেদ ১১.১৭,অনুচ্ছেদ ১৮.১ (ঘ) এবং অনুচ্ছেদ ২৩ এর আলোকে ব্যবস্থা নেয়া যাবে।  ১৮.১ (ঘ) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে এনটিআরসিএ চাহিদা দিলেএনটিআরসিএ নির্বাচিত শিক্ষক নিয়োগ দিতে হবে। প্যাটর্ন অতিরিক্ত চাহিদা দিলে প্রতিষ্ঠান থেকে বেতন দিতে হবে। এর ব্যত্যয় হলে প্রতিষ্ঠান প্রধানের এমপিও স্থগিত হবে এবং কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।  

এমপিও নীতিমালা ১১.১৩ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ইনডেক্সধারী শিক্ষক কর্মচারীদের সমপদে প্রতিষ্ঠান পরিবর্তনের ক্ষেত্রে নিয়োগকালীন যোগ্যতা বিবেচিত হবে। অনুচ্ছেদ ১১.১৭ এ বলা হয়েছে, নীতিমালা জারির আগে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষক কর্মচারী এ জনবল কাঠামোর প্যাটার্নভুক্ত শূন্যপদে এমপিওভুক্ত হতে পারবেন। 

শিক্ষকদের এমপি জটিলতার বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের চিঠিটি মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠিয়ে এমপিওবঞ্চিত শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির বিষয়ে এ চিঠির আলোকে ব্যবস্থা নিতে বলেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ। মন্ত্রণালয়ের চিঠিটি অধিদপ্তর থেকে ১৩ জানুয়ারি মাঠ পর্যায়ে পাঠিয়ে এসব শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে শিক্ষক কর্মকর্তা ও প্রতিষ্ঠান প্রধানদের বলা হয়েছে। 

 

 

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল  SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

আপাতত ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha আপাতত ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন : শিক্ষামন্ত্রী পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস, দু’দিনেই প্রজ্ঞাপন - dainik shiksha পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে আইন পাস, দু’দিনেই প্রজ্ঞাপন ৯ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবিতে একাট্টা হচ্ছে সব সরকারি কর্মচারী সংগঠন - dainik shiksha ৯ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবিতে একাট্টা হচ্ছে সব সরকারি কর্মচারী সংগঠন নো মাস্ক নো স্কুল, ক্লাস হবে শিফটে : দুশ্চিন্তায় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha নো মাস্ক নো স্কুল, ক্লাস হবে শিফটে : দুশ্চিন্তায় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সাংবাদিকতার অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মিজানুর রহমান : স্মরণসভায় জেলা জজ - dainik shiksha সাংবাদিকতার অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মিজানুর রহমান : স্মরণসভায় জেলা জজ প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, দাবি প্রতিমন্ত্রীর - dainik shiksha প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, দাবি প্রতিমন্ত্রীর মাদরাসা শিক্ষার সমস্যার সমাধান দ্রুতই : শিক্ষা উপমন্ত্রী - dainik shiksha মাদরাসা শিক্ষার সমস্যার সমাধান দ্রুতই : শিক্ষা উপমন্ত্রী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন প্রকাশ, তিন ফুট দূরত্বে ক্লাসরুমের বেঞ্চ - dainik shiksha শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন প্রকাশ, তিন ফুট দূরত্বে ক্লাসরুমের বেঞ্চ ক্লাসরুমে সর্বোচ্চ ১৫ শিক্ষার্থী, প্রতি বেঞ্চে ১ জন - dainik shiksha ক্লাসরুমে সর্বোচ্চ ১৫ শিক্ষার্থী, প্রতি বেঞ্চে ১ জন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে - dainik shiksha শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে প্রস্তুতি ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে please click here to view dainikshiksha website