রাবি অধ্যাপক ফারুক আকতার আর নেই - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা

রাবি অধ্যাপক ফারুক আকতার আর নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক |

হঠাৎ অসুস্থ হয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) রসায়ন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ফারুক আকতার (৬১) মারা গেছেন। সোমবার (১১ জানুয়ারি) রাত ১১টায় রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকায় নিজ বাসায় অসুস্থ হয়ে পড়লে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বিভাগের সিনিয়র অধ্যাপক বেলায়েত হোসেন হাওলাদার বলেন, ‘ফারুক আকতার রাতে তার ঢাকার বাসায় হঠাৎ করেই অসুস্থ হয়ে পরেন। পরে তাকে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’ 

মৃত্যুর সময় অধ্যাপক ফারুক আকতারের সঙ্গে একই বাসায় ছিলেন রসায়ন বিভাগের সেকশন অফিসার সিরাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘স্যারের সঙ্গে আমি ঢাকার বাড়িতে এসেছি। রাত ১২টার দিকে স্যার হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তিনি খুব হাঁচি দিচ্ছিলেন এবং শ্বাসকষ্ট হচ্ছে বললেন। স্যারের স্ত্রী রাজশাহীতে থাকায় আমি তাকে ফোন করি ও স্যারের এক ভাতিজাকে ফোন করে বিষয়টি জানাই। পরে একাই স্যারকে গাড়ি ভাড়া করে হাসপাতালে নিয়ে যাই। স্যার বাসায় একবার বমি করেছিলেন। হাসপাতালে নেওয়ার পর ডাক্তার জানান, স্যার আর বেঁচে নেই।’

সিরাজুল ইসলাম আরো জানান, অধ্যাপক ফারুক আকতারের মরদেহ নিয়ে তারা মঙ্গলবার বেলা ১১টায় ঠাকুরগাঁওয়ের গ্রামের বাড়ির উদ্দেশে রওয়ানা দেবেন। দাফনের সময় এখনও নির্ধারিত হয়নি। 

অধ্যাপক আখতার ফারুক ১৯৫৯ সালের ১৭ অক্টোবর ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। কর্মজীবনের শুরুতে তিনি পীরগঞ্জ সরকারি কলেজে (১৯৮৪-১৯৮৯) শিক্ষকতা করেন। পরে ১৯৮৯ সালের ২০ অক্টোবর তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি বিজ্ঞান অনুষদের ডিন নির্বাচিত হন এবং মৃত্যুর আগে তিনি রসায়ন বিভাগের সভাপতি ছিলেন।

অনুদানের টাকা পেতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অনলাইন আবেদন শুরু ১ ফেব্রুয়ারি - dainik shiksha অনুদানের টাকা পেতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অনলাইন আবেদন শুরু ১ ফেব্রুয়ারি উপবৃ্ত্তি পেতে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের জন্ম নিবন্ধন বাধ্যতামূলক - dainik shiksha উপবৃ্ত্তি পেতে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের জন্ম নিবন্ধন বাধ্যতামূলক পিকে হালদার কাণ্ডে এন আই খানের নাম ভুলভাবে যুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকের আবেদন - dainik shiksha পিকে হালদার কাণ্ডে এন আই খানের নাম ভুলভাবে যুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকের আবেদন বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় ন্যূনতম ফি নেয়ার সিদ্ধান্ত - dainik shiksha বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় ন্যূনতম ফি নেয়ার সিদ্ধান্ত সংসদে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবি - dainik shiksha সংসদে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবি সব সহকারী শিক্ষককে ১৩তম গ্রেডে বেতন দিতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সম্মতি - dainik shiksha সব সহকারী শিক্ষককে ১৩তম গ্রেডে বেতন দিতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সম্মতি প্রাথমিকে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা জানতে চেয়ে চিঠি - dainik shiksha প্রাথমিকে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা জানতে চেয়ে চিঠি please click here to view dainikshiksha website