শিক্ষকদের বেতন ইএফটি করতে ৪ লাখ টাকা ‘ঘুষ’ - এমপিও - দৈনিকশিক্ষা

শিক্ষকদের বেতন ইএফটি করতে ৪ লাখ টাকা ‘ঘুষ’

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি |

 একজন হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন ইএফটি করার জন্য শিক্ষকদের কাছ থেকে চার লক্ষাধিক টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। নাটোরের গুরুদাসপুরে এ কর্মকর্তার নাম মোহাম্মদ আজম আলীর

সংশ্লিষ্ট সূত্র দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানায়, সরকার দেশের সব পর্যায়ে ডিজিটাল পদ্ধতি চালু করার অংশ হিসেবে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতনও ডিজিটাল পদ্ধতি করতে ইএফটি অর্থাৎ ইলেক্ট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফার চালু করার নির্দেশ দিয়েছেন। ইএফটির কাজ সম্পন্ন হলে স্ব স্ব শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন-ভাতা কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে সরাসরি তাদের হিসাব নম্বরে জমা হবে। প্রত্যেক বিদ্যালয়ের আলাদা আলাদা কোড নম্বর রয়েছে। বিদ্যালয়ের কোড ওপেন করলেই ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নাম দেখা যায়।

মঙ্গলবার দুপুরে এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশকিছু শিক্ষক সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিস অনেক শিক্ষকের নামের সঙ্গে বিদ্যালয়ের নাম উল্লেখ করেননি। ইএফটি করতে গিয়ে যে শিক্ষকের নামের সঙ্গে বিদ্যালয়ের নাম নেই ওই সব শিক্ষকের কাছ থেকে ৫০০ থেকে ১ হাজার এবং শুধু ইএফটি করার জন্য ৩০০-৫০০ টাকা নেয়া হচ্ছে। এমনকি তাদের বাধ্য করে ঘুষ নেওয়া হচ্ছে বলে শিক্ষকরা জানান।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এটা জটিল কাজ না। যেভাবেই হোক ভুল হয়েছে। বিদ্যালয়ের নাম ওপেন করলেই শিক্ষকের নাম ওপেন হবে। তখন তার নামের সঙ্গে বিদ্যালয়ের নাম লিখে দিলেই হয়ে গেল। হিসাবরক্ষণ অফিস সেটা করছে। তবে ওই সংশোধনী বা ইএফটির জন্য শিক্ষকদের কাছ থেকে কোনো টাকা নেয়া হচ্ছে কিনা তা জানা নেই বলে তিনি দাবি করেন।

উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আজম আলী ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ইএফটি ও বিদ্যালয়ের নাম সংশোধনের জন্য শিক্ষক সমিতির নেতারা তার কম্পিউটারের জন্য কালি ও এক প্যাকেট কাগজ কিনে দিয়েছেন। তবে তার অফিসের অন্য কেউ চায়ের কথা বলে কিছু টাকা-পয়সা নিতে পারে বলে তিনি জানান।

৪৮ হাজার শিক্ষকের টাইম স্কেল ফেরতের রিট খারিজ - dainik shiksha ৪৮ হাজার শিক্ষকের টাইম স্কেল ফেরতের রিট খারিজ ‘যে যেখান থেকে পড়াশোনা করে বিত্তশালী হয়েছেন, সে সেখানকার শিক্ষার্থীদের সহায়তা করুন’ - dainik shiksha ‘যে যেখান থেকে পড়াশোনা করে বিত্তশালী হয়েছেন, সে সেখানকার শিক্ষার্থীদের সহায়তা করুন’ দুই ছাত্রীকে যৌন হয়রানির দায়ে রাবি শিক্ষক ছয় বছর নিষিদ্ধ - dainik shiksha দুই ছাত্রীকে যৌন হয়রানির দায়ে রাবি শিক্ষক ছয় বছর নিষিদ্ধ জাতীয় প্রেসক্লাবে ছাত্রদল কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ, লাঠিচার্জ - dainik shiksha জাতীয় প্রেসক্লাবে ছাত্রদল কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ, লাঠিচার্জ স্কুল-কলেজ খুলছে ৩০ মার্চ - dainik shiksha স্কুল-কলেজ খুলছে ৩০ মার্চ রমজানেও খোলা থাকবে স্কুল-কলেজ - dainik shiksha রমজানেও খোলা থাকবে স্কুল-কলেজ স্কুল-কলেজে কোন শ্রেণির কতদিন ক্লাস - dainik shiksha স্কুল-কলেজে কোন শ্রেণির কতদিন ক্লাস মাদরাসার সংশোধিত এমপিও নীতিমালা পূনর্বিবেচনা ও শতভাগ উৎসব ভাতা দাবি - dainik shiksha মাদরাসার সংশোধিত এমপিও নীতিমালা পূনর্বিবেচনা ও শতভাগ উৎসব ভাতা দাবি শিল্পখাতের সঙ্গে শিক্ষার সমন্বয়ের তাগিদ শিক্ষামন্ত্রীর - dainik shiksha শিল্পখাতের সঙ্গে শিক্ষার সমন্বয়ের তাগিদ শিক্ষামন্ত্রীর এসএসসি পরীক্ষা হতে পারে জুলাই মাসে - dainik shiksha এসএসসি পরীক্ষা হতে পারে জুলাই মাসে please click here to view dainikshiksha website