শিক্ষার্থীদের না পড়িয়ে আর প্রমোশন দেওয়া যাবে না : অধ্যক্ষ হামিদা আলী - এসএসসি/দাখিল - দৈনিকশিক্ষা

শিক্ষার্থীদের না পড়িয়ে আর প্রমোশন দেওয়া যাবে না : অধ্যক্ষ হামিদা আলী

দৈনিকশিক্ষা ডেস্ক |

সাউথ পয়েন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ হামিদা আলী বলেছেন, দেশের প্রচলিত ধারা অনুযায়ী পরীক্ষা না হলে ছাত্রছাত্রীরা পড়তে বসে না। অভিভাবকরা চেষ্টা করেও শিক্ষার্থীদের পড়ার টেবিলে বসাতে পারেন না। এসএসসি পরীক্ষার কারণে ছাত্রছাত্রীরা বইমুখী হয়েছে। গতকাল আলাপকালে এসব কথা বলেন তিনি। শনিবার (১ জানুয়ারি) বাংলাদেশ প্রতিদিন প্রত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়। প্রতিবেদনটি লিখেছেন আকতারুজ্জামান।

প্রতিবেদনে আরও জানা যায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সাবেক এ অধ্যক্ষ আরও বলেন, দীর্ঘ সময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার পর খুলে দিয়ে তবুও তো পরীক্ষা হলো। এক বছর তো তারা বাড়িতেই বসে ছিল। শিক্ষার্থী আর অভিভাবকদের প্রচেষ্টায় তারা পরীক্ষায় বসে উত্তীর্ণ হয়েছে। পরীক্ষা ছাড়াই মূল্যায়নের পরিবর্তে পরীক্ষা নিয়ে মূল্যায়ন করা হলো। এটা ইতিবাচক দিক। শিক্ষার্থীদের না পড়িয়ে আর প্রমোশন দেওয়া যাবে না। এসএসসি ও সমমানের ক্ষেত্রে মাত্র তিন বিষয়ে পরীক্ষা নিয়ে বাকিগুলোতে জেএসসি-জেডিসির ফলাফল অনুযায়ী মূল্যায়ন করা হয়েছে। এ ছাড়া তো কোনো উপায়ও ছিল না। পরীক্ষা হওয়ায় শিক্ষার্থী-অভিভাবক সবাই একটু সজাগ হলো।

এখন ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনার মধ্যে চলে এসেছে। এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। করোনা পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে ২০২২ সালের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা কীভাবে নেওয়া যায় সেটি এখন ভাবতে হবে সরকারকে। আর ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত হতে হবে। স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের দরজা খুলেছে, ক্লাস শুরু হয়েছে, এটাও একটা বড় বিষয়। এখন পড়াশোনাটা অব্যাহত রাখতে 

ফাজিল পরীক্ষা স্থগিত - dainik shiksha ফাজিল পরীক্ষা স্থগিত মাস্ক ছাড়া বের হলেই জরিমানা করা হবে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha মাস্ক ছাড়া বের হলেই জরিমানা করা হবে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের - dainik shiksha উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের মাদরাসায়ও অনলাইন ক্লাস, খোলা থাকবে অফিস - dainik shiksha মাদরাসায়ও অনলাইন ক্লাস, খোলা থাকবে অফিস কওমি মাদরাসাকে বোর্ডের অধীনে নিয়ে আসা প্রয়োজন : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha কওমি মাদরাসাকে বোর্ডের অধীনে নিয়ে আসা প্রয়োজন : শিক্ষামন্ত্রী ভিসির পদত্যাগের দাবি অযৌক্তিক, চাইলেই সরানো যায় না : শিক্ষা উপমন্ত্রী - dainik shiksha ভিসির পদত্যাগের দাবি অযৌক্তিক, চাইলেই সরানো যায় না : শিক্ষা উপমন্ত্রী উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের - dainik shiksha উপবৃত্তির টাকা পাঠানো শুরু, দ্রুত তুলতে হবে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের please click here to view dainikshiksha website