শিক্ষা কমিশনের আইনগত কাঠামো তৈরির প্রতিবেদন চূড়ান্ত হচ্ছে - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা

শিক্ষা কমিশনের আইনগত কাঠামো তৈরির প্রতিবেদন চূড়ান্ত হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক |

জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০’র আলোকে ‘জাতীয় শিক্ষা কমিশন’ গঠনের কাজ শুরু করেছে সরকার। শিক্ষক নিয়োগসহ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক, কারিগরি ও মাদরাসা স্তরের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাতে এ কমিশন গঠন করা হচ্ছে। এর আইনগত কাঠামো তৈরির কাজ শুরু করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যে কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিশনের আইনগত কাঠামো তৈরির প্রতিবেদন তৈরি করেছে কমিটি। এ প্রতিবেদন চূড়ান্ত হচ্ছে। আগামী ১ আগস্ট প্রতিবেদন চূড়ান্তকরণে সভা অনুষ্ঠিত হবে। মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ওউচ্চ শিক্ষা বিভাগ থেকে সভার বিষয়টি জানিয়ে বুধবার (২৮ জুলাই) আদেশ জারি করা হয়েছে।

জানা গেছে, ‘জাতীয় শিক্ষানীতির আলোকে এই কমিশন গঠনের আইনগত কাঠামো তৈরির জন্য ৯ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে কমিশন গঠনের আইনি কাঠামো তৈরি করতে বলা হয়েছে। বেশ কয়েক দফা সভার পর কমিটি আইনগত কাঠামো তৈরির প্রতিবেদন চূড়ান্ত করছে।

মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা আদেশে বলা হয়েছে, একটি স্থায়ী জাতীয় শিক্ষা কমিশন গঠনের আইনগত কাঠামো তৈরি সংক্রান্ত প্রতিবেদন চূড়ান্ত করতে আগামী ১ আগস্ট (রোববার) দুপুর আড়াইটায় এক ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হবে। 

গতকাল মঙ্গলবার রাতে এক ওয়েবিনারে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালা, ইউজিসি সক্ষমতা আইন, শিক্ষা কমিশন নিয়ে আরও বেশি কাজ করা হচ্ছে, যেন শিক্ষক নিয়োগে স্বচ্ছতার ক্ষেত্রে কোনো প্রশ্ন না থাকে।

জাতীয় শিক্ষা কমিশনের বিষয়ে কমিটির আহ্বায়ক ও মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের নিরীক্ষা ও আইন শাখার অতিরিক্ত সচিব খালেদা আক্তার কিছুদিন আগে দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানিয়েছিলেন, আমরা একটি কমিশন গঠনের আইনগত কাঠামো তৈরির কাজ করছি। এ কমিশন মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা ব্যবস্থার সার্বিক দিক দেখবে। কমিশনের কাজের আওতার বিষয়ে এখনো সুনির্দিষ্টভাবে কিছু বলা যাচ্ছে না। তবে, আইনগত কাঠামো গঠন হলে বিষয়টি বলা যাবে। কমিশন শিক্ষক নিয়োগের দায়িত্ব পাচ্ছে কিনা জানতে চাইলে তিনি দৈনিক শিক্ষাডটকমকে আরও বলেন, কমিশনের দায়িত্ব বা কাজের ধারা কি হবে সে বিষয়ে এখনই মন্তব্য করা যাচ্ছে না। কমিটি আইনগত কাঠামোর প্রতিবেদন তৈরি করে তা জমা দেবে। 

এর আগে ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে কমিশন গঠনে আইনের খসড়া তৈরি করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ এনটিআরসিএকে। এনটিআরসিএ খসড়া তৈরি করে মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। খসড়া তৈরি সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, কমিটি গঠিত হবার পর শিক্ষক নিয়োগের জন্য প্রার্থী বাছাই ও সুপারিশ করার দায়িত্ব আর বিদ্যমান এনটিআরসিএর হাতে থাকবে না। কমিশন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, প্রধান শিক্ষক ও সহকারী প্রধান শিক্ষকসহ সব পর্যায়ের শিক্ষক নিয়োগ দেবে।

জানা গেছে, সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) আদলে স্থায়ী জাতীয় শিক্ষা কমিশন গঠন করা হবে। এটি প্রতিষ্ঠিত হলে ‘বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ’ (এনটিআরসিএ) বিলুপ্ত হয়ে যাবে। তখন সব ধরনের শিক্ষক নিয়োগ দেবে জাতীয় শিক্ষা কমিশন। সে রকম পরিকল্পনা নিয়ে কাজ শুরু করেছে মন্ত্রণালয়। কমিশনের মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হলে প্রার্থীরা পরীক্ষা দেবেন ও সরাসরি নিয়োগ পাবেন। মেধাতালিকা বা সুপারিশ করার মত প্রক্রিয়া থাকবে না। একই পদ্ধতিতে সম্প্রতি পিএসসি ননক্যাাডারে বিভিন্ন সরকারি স্কুলে সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগ দিয়েছে। বর্তমানে বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও মাদরাসায় শিক্ষক নিয়োগ দেয় এনটিআরসিএ। 

আগে বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগে এক সময় নৈরাজ্য পরিস্থিতি ছিল। স্কুল কমিটি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য ও প্রভাবশালীদের চাপে শিক্ষক নিয়োগ দিতে হতো। এ নৈরাজ্য বন্ধ করতে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) গঠন করা হয়। ২০০৫ খ্রিষ্টাব্দ থেকে এনটিআসিএর মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের প্রাক-যোগ্যতা যাচাইয়ের জন্য একটি পরীক্ষা নিয়ে সনদ দেয়া শুরু হয়। সেই সনদের পরও নিয়োগ পরীক্ষায় বসতে হতো। কিন্তু ২০১৫ খ্রিষ্টাব্দ থেকে এনটিআরসিএর মাধ্যমেই সরাসরি শিক্ষক নিয়োগের জন্য প্রার্থী বাছাই হচ্ছে। 

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে সয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE  করতে ক্লিক করুন।

অ্যাসাইনমেন্টের সঙ্গে স্কুলের বেতনের সম্পর্ক নেই : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha অ্যাসাইনমেন্টের সঙ্গে স্কুলের বেতনের সম্পর্ক নেই : শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষকদের একটা বড় অংশ ঘটনাচক্রে শিক্ষক : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha শিক্ষকদের একটা বড় অংশ ঘটনাচক্রে শিক্ষক : শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয় তদবিরে : সেতুমন্ত্রী - dainik shiksha শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয় তদবিরে : সেতুমন্ত্রী ছাত্রীর চুল কেটে দেওয়ায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা - dainik shiksha ছাত্রীর চুল কেটে দেওয়ায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা এ সপ্তাহে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সারপ্রাইজ ভিজিট শুরু - dainik shiksha এ সপ্তাহে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সারপ্রাইজ ভিজিট শুরু অষ্টম-নবম শ্রেণির ক্লাস দুই দিন : নতুন রুটিন প্রকাশ - dainik shiksha অষ্টম-নবম শ্রেণির ক্লাস দুই দিন : নতুন রুটিন প্রকাশ করোনার বন্ধে এক স্কুলেই অর্ধশতাধিক বাল্যবিবাহ - dainik shiksha করোনার বন্ধে এক স্কুলেই অর্ধশতাধিক বাল্যবিবাহ please click here to view dainikshiksha website