সভাপতির হাতে উপাধ্যক্ষ লাঞ্ছিত : প্রতিবাদে ক্লাস বর্জন - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা

সভাপতির হাতে উপাধ্যক্ষ লাঞ্ছিত : প্রতিবাদে ক্লাস বর্জন

বরগুনা প্রতিনিধি |

বরগুনার বামনা উপজেলার বেগম ফায়জুন্নেসা মহিলা কলেজের অধ্যক্ষের দায়িত্বে থাকা উপাধ্যক্ষ মোহাম্মদ মহসীন কবীরকে কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি সৈয়দ বজলুল গফ্ফার যায়গাম আহসান সোহেল লাঞ্ছিত করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ অভিযোগ তুলে সভাপতিকে অপসারণ ও তার বিচারের দাবি করেছেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকরা। সভাপতির অপসারণ না হলে কলেজের সব ক্লাস বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষকরা। 

সভাপতির অপসারণের দাবিতে মঙ্গলবার বিকেলে বামনা প্রেসক্লাবে ওই কলেজের শিক্ষকরা সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষকরা সভাপতির অপাসারণ ও তার বিচারে দাবি জানান। সভাপতির অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত কলেজের সব শ্রেণির ক্লাস বর্জনের ঘোষণা দেন শিক্ষকরা।
 
সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষকদের পক্ষে বেগম ফায়জুন্নেসা মহিলা কলেজ শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক মো. আবদুল কুদ্দুছ বলেন, বেগম ফায়জুন্নেসা মহিলা কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতির দ্বিতীয় মেয়াদে চলছে। তিনি সরকারি বিধি বিধান উপেক্ষা করে কলেজ পরিচালনা করে আসছেন। এতে কলেজটি বিভিন্ন আইনি জটিলতায় পরেছে। সভাপতি কলেজের জুনিয়র-সিনিয়র সব শিক্ষকদের সঙ্গে অশ্রাব্য ভাষা ব্যবহার করেন। গত সোমবার রাত দশটার দিকে কলেজের মিটিং রুমে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে ডেকে নিয়ে একজন শিক্ষক ও একজন কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করতে বলেন। এতে অধ্যক্ষ রাজি না হলে তাকে লাঞ্ছিত করে কলেজ থেকে বের করে দেন। 

কলেজের অধ্যক্ষের দায়িত্বে থাকা উপাধ্যক্ষ মোহাম্মদ মহসীন কবীর বলেন, সভাপতির অনৈতিক এবং বিধি বহির্ভূত কাজে রাজি না হওয়ায় সে আমাকে লাঞ্ছিত করেছেন। আমার আগে এ দায়িত্বে একজন মহিলা শিক্ষিকা ছিলেন, তিনিও সভাপতির এসব কর্মকাণ্ড মেনে নিতে না পেরে এ পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন। পদাধিকার বলে আমকে এ দায়িত্ব নিতে হয়েছে।

এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি সৈয়দ বজলুল গফ্ফার যায়গাম আহসান সোহেলের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

একাদশে ভর্তি আগের পদ্ধতিতেই - dainik shiksha একাদশে ভর্তি আগের পদ্ধতিতেই এসএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন শুরু কাল - dainik shiksha এসএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন শুরু কাল এসএসসি ও সমমানে পাসের হার ৮৭ দশমিক ৪৪ শতাংশ - dainik shiksha এসএসসি ও সমমানে পাসের হার ৮৭ দশমিক ৪৪ শতাংশ এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল জানবেন যেভাবে - dainik shiksha এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল জানবেন যেভাবে ফলে এগিয়ে মেয়েরা - dainik shiksha ফলে এগিয়ে মেয়েরা পাসের হার কমলেও বেড়েছে জিপিএ-৫ - dainik shiksha পাসের হার কমলেও বেড়েছে জিপিএ-৫ ৫০ প্রতিষ্ঠানে শতভাগ ফেল - dainik shiksha ৫০ প্রতিষ্ঠানে শতভাগ ফেল ২ হাজার ৯৭৫ প্রতিষ্ঠানে সবাই পাস - dainik shiksha ২ হাজার ৯৭৫ প্রতিষ্ঠানে সবাই পাস শুধু এসএসসিতে পাসের হার ৮৮ দশমিক ১০ শতাংশ - dainik shiksha শুধু এসএসসিতে পাসের হার ৮৮ দশমিক ১০ শতাংশ ঢাকা বোর্ডে পাসের হার কমেছে - dainik shiksha ঢাকা বোর্ডে পাসের হার কমেছে ৯ স্কুল ও ৪৯ মাদরাসার কেউ পাস করতে পারেননি - dainik shiksha ৯ স্কুল ও ৪৯ মাদরাসার কেউ পাস করতে পারেননি দাখিলে পাস ৮২ দশমিক ২২ শতাংশ - dainik shiksha দাখিলে পাস ৮২ দশমিক ২২ শতাংশ please click here to view dainikshiksha website Execution time: 0.0084471702575684