সরকারিকরণ: সরকারের আর্থিক সক্ষমতা যাচাইয়ে সমীক্ষার কথাই বললেন শিক্ষামন্ত্রী - সরকারিকরণ - দৈনিকশিক্ষা

সরকারিকরণ: সরকারের আর্থিক সক্ষমতা যাচাইয়ে সমীক্ষার কথাই বললেন শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক |

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারিকরণে আর্থিক সংশ্লেষ ও কবে নাগাদা সেই অর্থ জোগান দিতে সরকার সক্ষম হবে তা নিয়ে আবারও সমীক্ষার কথা বললেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। শিক্ষকদের  একদফা দাবি সরকারিকরণ হলেও তা নিয়ে ষ্পষ্ট করে কিছু না বলে কখনো সমীক্ষা ও কখনো গবেষণা করার প্রয়োজনীতার কথা বলছেন শিক্ষামন্ত্রী।  শনিবার (১৩ মার্চ) বাংলাদেশ মাদরাসা জেনারেল টিচার্সদের একাংশের একটি আলোচনা অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হলে শিক্ষকরা জাতীয়করণের দাবি তোলেন। শিক্ষামন্ত্রী তার মন্তব্যে বলেন, শিক্ষকদের সামাজিক ও আর্থিক নিরাপত্তা না থাকলে সঠিকভাবে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করানো অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। শিক্ষকদের সামাজিক মর্যাদা ও আর্থিক নিরাপত্তা দুটোই জরুরী। সে কারণে সরকারিকরণের সুযোগ থাকলে সেটি অবশ্যই করা প্রয়োজন।

মন্ত্রী বলেন, তবে, আমাদের বিপুল সংখ্যক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও বিপুল সংখ্যক শিক্ষক রয়েছেন। তাদের আর্থিক দায়-দায়িত্ব সরকার কতটা নিতে পারবে সেটি ভালোভাবে খতিয়ে দেখে তার পরেই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া সম্ভব। কাজেই, আপনাদের এ দাবির বিষয়টি নিয়ে আমি মনে করি দ্রুতই সমীক্ষা করা দরকার।

তিনি আরও বলেন, সরকারিকরণের সাথে সরকারের কি পরিমাণ আর্থিক সংশ্লেষ থাকবে এবং বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে সেটি করতে সরকার কতটা সক্ষম এ মুহূর্তে বা কবে নাগাদ সক্ষমতা অর্জন করবে সে বিষয়গুলো ভালভাবে খতিয়ে দেখে আমাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে।

মাদরাসা শিক্ষা ব্যবস্থাকে আধুনিক করার জন্য সরকার কাজ করছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আমাদের প্রস্তুতি নিতে হবে। এর জন্য বড় হাতিয়ার হল শিক্ষা। সেই শিক্ষা হতে হবে নৈতিকতা সম্পন্ন। সেই সাথে বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, দক্ষতা ও মানসিকতার সমন্বয় থাকতে হবে।

তিনি বলেন, মাদরাসা শিক্ষাব্যবস্থাকে আধুনিক করতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে তারা যাতে পিছিয়ে না থাকে, সেজন্য আমরা কাজ করছি। আমাদের শিক্ষার্থীরা যাতে ভুল পথে পরিচালিত না হয়, সেদিকেও সজাগ থাকতে হবে।

ইসলামের কল্যাণে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা তুলে ধরে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা ইসলামের কল্যাণে কাজ করেছেন। তার কন্যাও শান্তির বাণীতে উদ্বুদ্ধ হয়ে ইসলামের খেদমত করছেন। ইসলামের সাথে বিজ্ঞান- প্রযুক্তির সংঘাত নেই। যারা ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা করে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে, ইসলামের দোহাই দিয়ে অপকর্ম করছে, তাদেরকে প্রতিরোধ করতে হবে।

অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে জাতীয় সংসদের সাবেক চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ বলেন, স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরের অর্ধেক সময় দেশ নেতৃত্বহীনতায় ভুগেছিল। দেশের অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করে দিয়েছিল তারা। আজকে বঙ্গবন্ধু কন্যার যোগ্য নেতৃত্ব বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। এই অগ্রযাত্রাকে গুজব, ষড়যন্ত্র দিয়ে থামানো যাবে না।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে বাংলাদেশ মাদ্রাসা জেনারেল টিচার্স-এর একাংশের সভাপতি মো. হারুন অর রশিদ বলেন, বঙ্গবন্ধু শুধু একটি নাম নয়, একটি ইতিহাস। দল-মত নির্বিশেষে তিনি নক্ষত্রের নাম। বঙ্গবন্ধুর মাধ্যমেই বাংলাদেশে মাদ্রাসা বোর্ড প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তার হাতেই ইসলামি ফাউন্ডেশন গড়ে উঠেছে। তারই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদ্রাসার উন্নয়নে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল  SUBSCRIBE  করতে ক্লিক করুন।

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা পেছাচ্ছে - dainik shiksha ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা পেছাচ্ছে মামুনুলের বিরুদ্ধে ১৭ মামলা - dainik shiksha মামুনুলের বিরুদ্ধে ১৭ মামলা পেছাতে পারে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা - dainik shiksha পেছাতে পারে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা ‘আমি মেডিকেলে চান্স পেয়েছি তাই ডাক্তার, তুই পাসনি তাই পুলিশ’ - dainik shiksha ‘আমি মেডিকেলে চান্স পেয়েছি তাই ডাক্তার, তুই পাসনি তাই পুলিশ’ লকডাউন আরো এক সপ্তাহ বাড়তে পারে - dainik shiksha লকডাউন আরো এক সপ্তাহ বাড়তে পারে উপবৃত্তির টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু - dainik shiksha উপবৃত্তির টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু তুখোড় গণিত শিক্ষক আব্দুল গাফ্ফারের দিন কাটে পথে পথে - dainik shiksha তুখোড় গণিত শিক্ষক আব্দুল গাফ্ফারের দিন কাটে পথে পথে ইবতেদায়ি শিক্ষকদের তিন মাসের অনুদানের চেক ব্যাংকে - dainik shiksha ইবতেদায়ি শিক্ষকদের তিন মাসের অনুদানের চেক ব্যাংকে সেহরি ও ইফতারের সূচি - dainik shiksha সেহরি ও ইফতারের সূচি দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে - dainik shiksha দৈনিক আমাদের বার্তায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ৩০ শতাংশ ছাড়ে please click here to view dainikshiksha website