সরকারিকৃত শিক্ষকদের দ্রুত আত্তীকরণের দাবি - দৈনিকশিক্ষা

সরকারিকৃত শিক্ষকদের দ্রুত আত্তীকরণের দাবি

দৈনিক শিক্ষাডটকম, সাবিহা সুমি |

দৈনিক শিক্ষাডটকম, সাবিহা সুমি:  সরকারিকৃত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের দ্রুত আত্তীকরণ কার্যক্রম শেষ করার দাবি জানিয়েছে মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি। এ সময় নানা সমস্যা সমাধানেরও দাবি জানান তারা।

রোববার সংগঠনটি রাজধানীর সেগুনবাগিচায় এক সাধারণ সভায় শিক্ষামন্ত্রীর কাছে এ দাবি জানায়। লিখিত দাবিতে তারা জানান, সরকারের শিক্ষাবান্ধব প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার ঐকান্তি প্রচেষ্টা ও দূরদর্শী পরিকল্পনার অংশ হিসেবে সারা দেশে যে সব উপজেলায় সরকারি কলেজ ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় ছিলো না, সে সব উপজেলায় একটি করে কলেজ ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় সরকারিকরণ করা হয়। যার ফলে শহর ও গ্রামের শিক্ষার যে বৈষম্য ছিলো তা অনেকটা হ্রাস পেয়েছে এবং শিক্ষা ক্ষেত্রে যুগান্তকারী পরিবর্তন এসেছে।

প্রধানমন্ত্রীর এই মহতি উদ্যোগের জন্য তাকে সরকারিকৃত মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে অশেষ কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি। 

সরকারিকরণ কাজটি নিঃসন্দেহে দীর্ঘমেয়াদী একটি প্রক্রিয়া। এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার জন্য বর্তমান সরকার অত্যন্ত আন্তরিক। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় এই যে, জি.ও থেকে ৬/৭ বছর অতিক্রান্ত হলেও এখনো বিপুল সংখ্যক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারী আত্তীকরণ কার্যক্রম অসম্পন্ন রয়েছে। এই সময়ের মধ্যে বহু শিক্ষক-কর্মচারী অবসর গ্রহণ করছেন কিংবা মৃত্যুবরণ করছেন। 

অধিকন্তু এ সব প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ নিষেধাজ্ঞা কিংবা শূন্যপদ পূরণের কোনো আপদকালীন ব্যবস্থা না থাকায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে স্থবির অবস্থা বিরাজ করছে। যা সমাধান করা খুবই জরুরি। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আমোদের সমস্যা সমানের দাবি জানাচ্ছি।

এডহক নিয়োগের আগে বয়স ৫৯ উত্তীর্ণ হয়েছে এমন শিক্ষক-কর্মচারীকে দ্রুত এডহক নিয়োগ দেয়া। এডহক নিয়োগের আগে বা পরে মৃত্যুবরণকারী শিক্ষক-কর্মচারীদের এডহক নিয়োগ এবং আর্থিক সুবিধাদি দেয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা। 

বেসরকারি আমলে ২২ হাজার স্কেলে কর্মরত সিনিয়র শিক্ষকগণের গ্রেড ঠিক রেখে বেসরকারি আমলে প্রাপ্ত ধাপে পে-প্রটেকশনের মাধ্যমে বেতন- ভাতা নির্ধারণ। এ ছাড়াও আরো কয়েকটি দাবি জানায় সংঘঠনটি।

ছাত্রদলের ২৬০ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা - dainik shiksha ছাত্রদলের ২৬০ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা ছাত্রলীগের মাধ্যমে শিক্ষামন্ত্রী কওমি মাদরাসার ঐতিহ্য নষ্ট করতে চান - dainik shiksha ছাত্রলীগের মাধ্যমে শিক্ষামন্ত্রী কওমি মাদরাসার ঐতিহ্য নষ্ট করতে চান ঈদে চার বিভাগে বেশি বৃষ্টিপাত হতে পারে - dainik shiksha ঈদে চার বিভাগে বেশি বৃষ্টিপাত হতে পারে সব সময় গাছ লাগানো আমাদের নীতি ছিলো: প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha সব সময় গাছ লাগানো আমাদের নীতি ছিলো: প্রধানমন্ত্রী কখনো বিদ্যালয়ে যায়নি তিন কোটি মানুষ - dainik shiksha কখনো বিদ্যালয়ে যায়নি তিন কোটি মানুষ বিসিএস ছেড়ে নন-ক্যাডারে যোগ দিলেন কর্মকর্তা - dainik shiksha বিসিএস ছেড়ে নন-ক্যাডারে যোগ দিলেন কর্মকর্তা ১৯ জন শিক্ষক বেতন পান না ৭ মাস ধরে - dainik shiksha ১৯ জন শিক্ষক বেতন পান না ৭ মাস ধরে দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে - dainik shiksha কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে - dainik shiksha র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে please click here to view dainikshiksha website Execution time: 0.0029959678649902