সহকারী গ্রন্থাগারিক নিয়োগে শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে রুলের চূড়ান্ত শুনানী চলছে - মাদরাসা - দৈনিকশিক্ষা

সহকারী গ্রন্থাগারিক নিয়োগে শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে রুলের চূড়ান্ত শুনানী চলছে

নিজস্ব প্রতিবেদক |

মাদরাসায় সহকারী গ্রন্থাগারিক/ক্যটালগার নিয়োগের ওপর তিন মাসের স্থগিতাদেশ জারি করার পাশাপাশি সাধারণ ধারার শিক্ষার্থীদের বাদ দিয়ে মাদরাসার সহকারী গ্রন্থাগারিক নিয়োগে শিক্ষাগত যোগ্যতা রাখা কেনো অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে জারি করা রুলের চূড়ান্ত শুনানী চলছে। 

সোমবার (১১ জানুয়ারি) বিচারপতি ফারাহ মাহবুব এবং বিচারপতি  এসএম মনিরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে শুনানী চলছে।

জানতে চাইলে রিটকারীদের পক্ষের আইনজীবী সৈয়দ জাহাঙ্গীর হোসেন দৈনিক শিক্ষাডটকমকে  বলেন, আজকে এই বিষয়ে রুলের চূড়ান্ত শুনানীর জন্য আজকে আদালতে তালিকায় ছিলো। কিন্তু ফাইল না আসায় এটি শুনানী হয়নি। কালকে আবার শুনানী হতে পারে। 

কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ, মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরসহ বিবাদীদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। এর আগে এ বিষয়ে তিনি দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেছিলেন, মাদরাসার জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮ এর ৩৫ নং কলামে উল্লিখিত সহকারী গ্রন্থাগারিক পদের নিয়োগে শিক্ষাগত যোগ্যতায় শুধু ফাজিল বা আরবি বিষয়ে অনার্স ডিগ্রি এবং গ্রন্থাগার বিজ্ঞানে ডিপ্লোমা যোগ্যতা চাওয়া হয়েছে। ফলে, কলেজ-ইউনিভার্সিটি থেকে সাধারণ বিষয়ে স্নাতক বা অনার্স পাস করা থেকে গ্রন্থাগার বিজ্ঞানে ডিপ্লোমাধারীরা বঞ্চিত হয়। তাই, সাধারণ ধারা শিক্ষিত ডিপ্লোমাধারীদের পক্ষ থেকে ওই বিধানের বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে রিট মামলা দায়ের করেন। 

তিনি আরও বলেছিলেন, মাদরাসায় সহকারী গ্রন্থাগারিক নিয়োগে শিক্ষাগত যোগ্যতায় সমমান না রাখা কেনো অবৈধ ঘোষণা করা হবে না মর্মে ৪ সপ্তাহের রুল জারি এবং চলমান নিয়োগ প্রক্রিয়া ৩ মাসের স্থগিত রাখার আদেশ দিয়েছেন আদালত।

অনুদানের টাকা পেতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অনলাইন আবেদন শুরু ১ ফেব্রুয়ারি - dainik shiksha অনুদানের টাকা পেতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অনলাইন আবেদন শুরু ১ ফেব্রুয়ারি উপবৃ্ত্তি পেতে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের জন্ম নিবন্ধন বাধ্যতামূলক - dainik shiksha উপবৃ্ত্তি পেতে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের জন্ম নিবন্ধন বাধ্যতামূলক করোনায় শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রাখতে আলোচনায় বসছেন দুই মন্ত্রণালয়ের কর্তারা - dainik shiksha করোনায় শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রাখতে আলোচনায় বসছেন দুই মন্ত্রণালয়ের কর্তারা পিকে হালদার কাণ্ডে এন আই খানের নাম ভুলভাবে যুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকের আবেদন - dainik shiksha পিকে হালদার কাণ্ডে এন আই খানের নাম ভুলভাবে যুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকের আবেদন শিক্ষার্থী বাড়ানোর প্রস্তাব রেখে এমপিওর নীতিমালা চূড়ান্ত - dainik shiksha শিক্ষার্থী বাড়ানোর প্রস্তাব রেখে এমপিওর নীতিমালা চূড়ান্ত স্কুল খোলার পক্ষে ৭৫ শতাংশ শিক্ষার্থী - dainik shiksha স্কুল খোলার পক্ষে ৭৫ শতাংশ শিক্ষার্থী অনলাইন ক্লাসে অংশ নেয়নি ৬৯ শতাংশ শিক্ষার্থী - dainik shiksha অনলাইন ক্লাসে অংশ নেয়নি ৬৯ শতাংশ শিক্ষার্থী ফেব্রুয়ারি থেকে অনলাইনে শিক্ষকদের বদলি শুরুর পরিকল্পনা - dainik shiksha ফেব্রুয়ারি থেকে অনলাইনে শিক্ষকদের বদলি শুরুর পরিকল্পনা পরীক্ষা ছাড়া ফল প্রকাশে তিনটি বিল সংসদে উত্থাপিত - dainik shiksha পরীক্ষা ছাড়া ফল প্রকাশে তিনটি বিল সংসদে উত্থাপিত তিন বিভাগে ৭৬ শিক্ষার্থী, শিক্ষক ৬৭ : জটিল পরিস্থিতি - dainik shiksha তিন বিভাগে ৭৬ শিক্ষার্থী, শিক্ষক ৬৭ : জটিল পরিস্থিতি বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় ন্যূনতম ফি নেয়ার সিদ্ধান্ত - dainik shiksha বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় ন্যূনতম ফি নেয়ার সিদ্ধান্ত please click here to view dainikshiksha website