১৭তম দিনেও জাতীয়করণের দাবিতে অনড় শিক্ষকরা - দৈনিকশিক্ষা

১৭তম দিনেও জাতীয়করণের দাবিতে অনড় শিক্ষকরা

দৈনিকশিক্ষা প্রতিবেদক |

মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণের দাবির আন্দোলনে আজও অনড় এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ক্লাসে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানালেও তারা দাবি আদায়ে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন। 

বৃহস্পতিবার ১৭তম দিনেও অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন শিক্ষকরা। বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির (বিটিএ) ব্যানারে লাগাতার আন্দোলন চলছে। তবে পূর্বঘোষণা অনুযায়ী এদিন সংক্ষিপ্ত পরিসরে চলছে সমাবেশ।

এদিন বিটিএর সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শেখ কাওছার আহমেদ বলেন, বৃহস্পতিবারের রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদের কর্মসূচি এক দিনের জন্য স্থগিত করার অনুরোধ জানানো হয়েছিলো। তবে শিক্ষকদের প্রাণের দাবি জাতীয়করণ। রাজনৈতিক উত্তাপ ও সাধারণ শিক্ষকদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে তাই আমরা লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি স্থগিত না করে সংক্ষিপ্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। এদিকে শুক্রবার সকালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাই কোর্ট এলাকায় একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে আসবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিবেচনায় আমরা শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত সংক্ষিপ্ত পরিসরে আন্দোলন চালাবো। 

তিনি আরো বলেন, তবে মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণের সুস্পষ্ট ঘোষণা বা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ ছাড়া আমরা ঘরে ফিরে যাবো না। আগামীকাল শুক্রবার বেলা ২টা থেকে আমাদের লাগাতার অবস্থান আগের মতো চলবে। জাতীয়করণের ঘোষণা ছাড়া আমরা ঘরে ফিরে যাবো না, যাবো না। যতোক্ষণ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ না পাবো ততোক্ষণ পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।  

অবস্থানরত শিক্ষকরা বলছেন, দাবি আদায়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সঙ্গে আলোচনা করা হলেও কোনো ফল আসেনি। উল্টো মন্ত্রী বেসরকারি শিক্ষকদের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি বলতে চান, এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতা করছেন। কিন্তু তিনি জানেন না মহান পেশা শিক্ষকতায় আসতে আমাদের অনেকেই অনেক ভালো চাকরির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছি। শিক্ষামন্ত্রী আমাদের অস্তিত্ব নিয়ে টান দিয়েছেন। তিনি জাতি গড়ার কারিগরদের হেয় প্রতিপন্ন করছেন। 

গত ১১ জুলাই থেকে মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণের দাবিতে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেন বিটিএ নেতারা। আজ এ আন্দোলনের ১৭তম দিনে গাজীপুরে এক কর্মশালার আয়োজন করেছে শিক্ষা প্রশাসন। ওই আবাসিক কর্মশালায় বেশ কয়েকজন শিক্ষক নেতার অংশ নিলেও আন্দোলনরত নেতারা তা প্রত্যাখ্যান করেছেন।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে সয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

দৈনিক শিক্ষা ডটকমের ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

বিদেশি শিক্ষার্থীদের গ্রিন কার্ড দেবেন ট্রাম্প - dainik shiksha বিদেশি শিক্ষার্থীদের গ্রিন কার্ড দেবেন ট্রাম্প বেসরকারি মেডিক্যালে ভর্তি: নিশ্চায়নের এসএমএস শুরু ২৩ জুন - dainik shiksha বেসরকারি মেডিক্যালে ভর্তি: নিশ্চায়নের এসএমএস শুরু ২৩ জুন আমলাদের একাংশ দুর্নীতিপরায়ণ হয়ে উঠেছে - dainik shiksha আমলাদের একাংশ দুর্নীতিপরায়ণ হয়ে উঠেছে কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তথ্য বাতায়ন হালনাগাদ নিশ্চিতের নির্দেশ - dainik shiksha কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তথ্য বাতায়ন হালনাগাদ নিশ্চিতের নির্দেশ মাধ্যমিক পর্যায়ে স্কুল খুলছে ২৬ জুন, শনিবারও ছুটি - dainik shiksha মাধ্যমিক পর্যায়ে স্কুল খুলছে ২৬ জুন, শনিবারও ছুটি শিক্ষা আমাদেরকে আমলাতান্ত্রিক করছে নাকি আমলাতন্ত্রই শিক্ষাব্যবস্থা সৃষ্টি করেছে - dainik shiksha শিক্ষা আমাদেরকে আমলাতান্ত্রিক করছে নাকি আমলাতন্ত্রই শিক্ষাব্যবস্থা সৃষ্টি করেছে গাজায় ৬ লাখেরও বেশি শিশু শিক্ষা থেকে বঞ্চিত: জাতিসংঘ - dainik shiksha গাজায় ৬ লাখেরও বেশি শিশু শিক্ষা থেকে বঞ্চিত: জাতিসংঘ দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষার নামে একাধিক ভুয়া পেজ-গ্রুপ ফেসবুকে কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে - dainik shiksha কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা গ্রন্থটি এখন বাজারে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে - dainik shiksha র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা কলেজগুলোর নাম এক নজরে please click here to view dainikshiksha website Execution time: 0.0062739849090576