৭৫ টাকার ইনজেকশন ৩ হাজার টাকায় বিক্রি করেন চিকিসৎক! - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা

৭৫ টাকার ইনজেকশন ৩ হাজার টাকায় বিক্রি করেন চিকিসৎক!

বরগুনা প্রতিনিধি |

বরগুনা জেলা শহরে ডক্টরস কেয়ার ক্লিনিক অ্যান্ড হাসপাতালে এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ৭৫ টাকার ইনজেকশন তিন হাজার টাকায় বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত ওই চিকিৎসকের নাম মো. শিহাব উদ্দিন শিহাব। তিনি বরিশাল শেরে-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অর্থোসার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। ডা. মো. শিহাব উদ্দিন শিহাব বরগুনার কলেজ রোডের ডক্টরস কেয়ার ক্লিনিক অ্যান্ড হাসপাতালে প্রতি মাসে দুইবার রোগী দেখেন। এই চিকিৎসকের আগমন উপলক্ষে বরগুনায় মাইকিং করা হয়। তার বিরুদ্ধে আবদুর রাজ্জাক ও রিয়াজুল ইসলাম নামের দুইজন ভুক্তভোগী রোগী সাইনোকর্ট নামের ৭৫ টাকার ইনজেকশন তাদের কাছে তিন হাজার টাকায় বিক্রির অভিযোগ করেছেন। 

স্থানীয় ফার্মেসিতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ইনজেকশনটির সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৭৫ টাকা, টেকনো ড্রাগস লিমিটেড এর উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। যদিও ওই চিকিৎসকের দাবি, ইনজেকশনটির দাম কম। কিন্তু তা পুশ করতে তিন হাজার টাকা থেকে আট হাজার টাকা পর্যন্ত নেয়া হয়। আর যদি রোগী গরীব হয়, তাহলে ফ্রিতেও ইনজেকশন পুশ করা হয়।

অভিযোগকারী আবদুর রাজ্জাক বরগুনা সদর উপজেলার লাকুরতলা এলাকার বাসিন্দা। আর অপর অভিযোগকারী রিয়াজুল ইসলাম বরগুনা সদর উপজেলার কুমড়াখালী এলাকার বাসিন্দা। আবদুর রাজ্জাক দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, আমার স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসী ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত। তার মেরুদণ্ড এবং পায়ে ব্যথা। তাই শুক্রবার বিকেল তিনটার দিকে স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য ডক্টরস কেয়ার ক্লিনিক অ্যান্ড হাসপাতালে চিকিৎসক মো. শিহাব উদ্দিন শিহাবের কাছে যাই। এরপর ৬০০ টাকা ভিজিট দিয়ে আমার স্ত্রীকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাই। ডাক্তার শিহাব আমার স্ত্রীকে দেখে দুইটি এক্সরে এবং রক্তের জন্য তিনটি টেস্ট দেন। যার জন্য খরচ হয় ১ হাজার ৮০০ টাকা। এরপর রিপোর্ট নিয়ে ফের ডাক্তারের কাছে গেলে তিনি আমার স্ত্রীকে সাইনোকর্ট নামের একটি ইনজেকশন পুশ করার কথা বলেন। ইনজেকশনটির দাম তিন হাজার টাকা উল্লেখ করে তিনি বলেন, পুশ করার জন্য কোনো চার্জ দিতে হবে না। পরে আমার কাছে টাকা না থাকায় আমি বাইরে থেকে ইনজেকশনটি কিনে পুশ করতে চাই। এজন্য ইনজেকশনটি নাম লিখে দিতে বললে তিনি রাজি হননি। তাই বিকাশের মাধ্যমে টাকা চান তিনি। পরে আমি বিকাশের মাধ্যমে ডাক্তারের দেয়া নম্বরে তিন হাজার টাকা পাঠাই। এরপর ডাক্তার নিজেই আমার স্ত্রীকে ইনজেকশন পুশ করেন।

তিনি আরও বলেন, পরে আমি ফার্মেসিতে গিয়ে ইনজেকশনটির দাম জেনে অবাক হই। একজন চিকিৎসকের এ কেমন প্রতারণা তা কিছুতেই বুঝতে পারছি না। আমি এর বিচার চাই।

অপর ভুক্তভোগী মো. রিয়াজুল ইসলাম দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে আমি আমার স্ত্রীর বোনকে ডা. মো. শিহাব উদ্দিন শিহাবের কাছে নিয়ে যাই। এরপর ৬০০ টাকা ভিজিট দিয়ে তার সঙ্গে দেখা করি। এরপর তিনি একটি এক্সরেসহ চারটি টেস্ট দেন। এ টেস্টের জন্য ব্যয় হয় ১ হাজার ৭৫০টাকা। পরে বিকেল দুইটার দিকে টেস্টের রিপোর্ট নিয়ে ডা. মো. শিহাব উদ্দিন শিহাবের কাছে গেলে আমার স্ত্রীর বোন মোসা. পারভীন আক্তারকে সাইনোকর্ট নামের ইনজেকশন পুশ করতে হবে বলে জানান। এ ইনজেকশনের দাম জানতে চাইলে তিনি এর দাম তিন হাজার টাকা বলেন। পরে আমি নগদ তিন হাজার টাকা দিলে ডাক্তারের টেবিলে থাকা ইনজেকশন ডাক্তার নিজেই পুশ করে দেন। এরপর বাইরে ফার্মেসিতে গিয়ে আমি এই ইনজেকশনের দাম ৭০ টাকা জানতে পারি। একজন ডাক্তার এমন প্রতারণা করতে পারে, তা আমি ভাবতেই পারিনি। আমি এমন প্রতারণার বিচার চাই।

বরগুনা জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কমিটির সদস্য আবু জাফর মো. সালেহ দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, একজন চিকিৎসকের নিজ চেম্বারে ওষুধ বিক্রি করার কথা না। রোগীদের জিম্মি করে ৭৫ টাকা মূল্যের ওষুধ তিন হাজার টাকায় বিক্রি করা অমানবিক এবং অনৈতিক। আমি মনে করি, এমন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা জরুরি।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত চিকিৎসক মো. শিহাব উদ্দিন শিহাব দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, সাইনোকর্ট নামের ইনজেকশনটির দাম কম। বাইরে এটি ৫০০ থেকে ৬০০ টাকায় পুশ করা হয়। তবে এটি পুশ করতে সিনিয়র চিকিৎসকরা তিন হাজার টাকা থেকে আট হাজার টাকা পর্যন্ত নেন। আবার গরীব রোগীদের ফ্রিতেও পুশ করা হয়।

ডক্টরস কেয়ার ক্লিনিক অ্যান্ড হাসপাতালের ব্যবস্থাপক মো. ইব্রাহীম দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, সাইনোকর্ট নামের ইনজেকশনটির দাম ৭৫ টাকা। এটার দামসহ পুশ করার জন্য ডা. মো. শিহাব উদ্দিন শিহাব তিন হাজার টাকা নেন। এই ইনজেকশন তার কাছেই থাকে। এই ইনজেকশনের কথা ব্যবস্থাপত্রে উল্লেখ করা হয় না। তবে এই টাকার কোনো ভাগ ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ পায় না।

শিহাব উদ্দিন শিহাব একজন সিনিয়র চিকিৎসক হওয়ায় নাম পরিচয় প্রকাশ করে এ বিষয়ে কথা বলতে নারাজ বরগুনায় কর্মরত এমবিবিএস ডিগ্রিধারী চিকিৎসকরা। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন চিকিৎসক দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, এই ইনজেকশন পুশ করার জন্য ঢাকাতেও ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা নেয়া হয়। সিনিয়র এবং উচ্চ ডিগ্রিধারী চিকিৎসকরাও এ ইনজেকশন পুশ করার জন্য এক হাজার টাকার বেশি নেয় না বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে বরগুনার সিভিল সার্জন ডা. মুহাম্মদ ফজলুল হক দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, বিষয়টি আমরা অবশ্যই খতিয়ে দেখবো। অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ডোপ টেস্ট ছাড়াই কলেজভর্তি - dainik shiksha ডোপ টেস্ট ছাড়াই কলেজভর্তি সব শিক্ষকের করোনা শনাক্ত, স্কুল বন্ধ ঘোষণা - dainik shiksha সব শিক্ষকের করোনা শনাক্ত, স্কুল বন্ধ ঘোষণা প্রাথমিকে স্কুল ফিডিং প্রকল্পের মেয়াদ আরো ৬ মাস বাড়ছে - dainik shiksha প্রাথমিকে স্কুল ফিডিং প্রকল্পের মেয়াদ আরো ৬ মাস বাড়ছে পুলিশের মামলায় আসামি শিক্ষার্থীরা, অভিযোগ ‘গুলি ও পুলিশকে হত্যাচেষ্টার’ - dainik shiksha পুলিশের মামলায় আসামি শিক্ষার্থীরা, অভিযোগ ‘গুলি ও পুলিশকে হত্যাচেষ্টার’ করোনার উচ্চ ঝুঁকিতে ১২ জেলা, মধ্যম ঝুঁকিতে ৩১ - dainik shiksha করোনার উচ্চ ঝুঁকিতে ১২ জেলা, মধ্যম ঝুঁকিতে ৩১ ছাত্রীর পা থেঁতলে দিল বখাটেরা, আহত আরো ২০ - dainik shiksha ছাত্রীর পা থেঁতলে দিল বখাটেরা, আহত আরো ২০ ১৭ বিএড কলেজে ভর্তি চলছে - dainik shiksha ১৭ বিএড কলেজে ভর্তি চলছে সংক্রমণ আরও বাড়লে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha সংক্রমণ আরও বাড়লে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত : শিক্ষামন্ত্রী please click here to view dainikshiksha website