‘এমপিওভুক্তি : সংখ্যা বলা যাবে না, তালিকা আগামী সপ্তাহেই’ - এমপিও - দৈনিকশিক্ষা

‘এমপিওভুক্তি : সংখ্যা বলা যাবে না, তালিকা আগামী সপ্তাহেই’

নিজস্ব প্রতিবেদক |

আবারো এক সপ্তাহের মধ্যে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার (এমপিও) ভুক্তির তালিকা প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। গতকাল শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য দেন। গত সপ্তাহেও তিনি বলেছিলেন, ‘এক সপ্তাহের মধ্যে তালিকা প্রকাশ করা হবে।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আগামী সপ্তাহেই আমরা এমপিওভুক্তির একটি তালিকা প্রকাশ করতে পারব বলে আশা রাখছি। এমপিওভুক্তির কাজ চলমান রয়েছে, আমরা চেষ্টা করছি সেটি খুব দ্রুতই প্রকাশ করার।’ কী পরিমাণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হবে এমন প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘সংখ্যাটি এই মুহূর্তে বলতে পারছি না।’

আসন্ন অর্থবছরের বাজেটে শিক্ষা খাতের বরাদ্দ নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে দীপু মনি বলেন, ‘বৈশ্বিক এমন একটি পরিস্থিতিতে ভালো একটি বাজেট হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বাজেট শতকরা প্রায় ২০ শতাংশ বেড়েছে। সুতরাং সন্তুষ্ট না হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আমাদের গবেষণায় বরাদ্দ বেড়েছে। এখন বরাদ্দকৃত টাকা সঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারাই মূল বিষয়।’

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এমপিওভুক্তির ঘোষণা আসার কথা ছিল গত মার্চে। পরবর্তীকালে বলা হয় মে মাসে আসবে। অবশেষে গতকাল বাজেট-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এমপিওভুক্তির ঘোষণা দিলেন শিক্ষামন্ত্রী।

এর আগে দৈনিক শিক্ষাডটকমে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রের বরাত দিয়ে বলা হয়, চলতি অর্থবছরে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগে এমপিওভুক্তির জন্য বরাদ্দ রয়েছে ২০০ কোটি এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগে বরাদ্দ রয়েছে ৫০ কোটি টাকা। গত বছর ১০ অক্টোবর থেকে এমপিওভুক্তির জন্য অনলাইনে আবেদন নেওয়া শুরু হয়। ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত আবেদন করার সুযোগ ছিল।

নতুন এমপিওভুক্তির জন্য সবপর্যায়ের প্রতিষ্ঠান মিলে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগে প্রায় সাড়ে চার হাজার আবেদন পড়ে। কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগে প্রায় ৩ হাজার ৯০০ প্রতিষ্ঠান আবেদন করে। যাচাই-বাছাইয়ে ২ হাজার ১০০-এর কিছু বেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যোগ্য হয়। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে নিম্ন মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের প্রতিষ্ঠানই বেশি। প্রতিষ্ঠানগুলোকে এমপিওভুক্ত করতে হলে চলতি অর্থবছরের বরাদ্দকৃত ২৫০ কোটি টাকায় সম্ভব নয়। এ অর্থবছরে ঘোষণা এলে গত বছর জুলাই থেকে বকেয়া হিসেবে তাদের বেতনভাতা পরিশোধ করতে হবে। এতে প্রায় এক হাজার কোটি টাকা প্রয়োজন।

চলতি অর্থবছরের বাকি সময়ের মধ্যে নতুন এমপিওভুক্তির তালিকা প্রকাশ করার পর এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের নানা ধরনের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই হবে। এরপর তাদের এমপিও দেওয়া হবে। তারা একটি ইনডেক্স নম্বর পাবেন। সেই ইনডেক্সের বিপরীতেই বেতনভাতা ছাড় করা হবে।

সর্বশেষ ২০১৯ সালের ২৩ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২ হাজার ৭৩০টি প্রতিষ্ঠান এমপিভুক্তির ঘোষণা দেন। এরপর ছয় মাস যাচাই-বাছাই শেষে ২০২০ সালের ২৯ এপ্রিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ ১ হাজার ৬৩৩ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগ ৯৮২টি প্রতিষ্ঠানের তালিকা চূড়ান্ত করে।

আগামী অর্থবছরের শিক্ষা খাতে বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে মোট বাজেটের ১২ দশমিক ০১ শতাংশ। চলতি অর্থবছরে (২০২১-২২) এ বরাদ্দ ছিল ১১ দশমিক ৯২ শতাংশ। তবে সামগ্রিক বাজেটের আকার বাড়ায় টাকার অঙ্কে বরাদ্দ প্রতি বছরই কিছুটা বাড়ছে। চলতি অর্থবছরের তুলনায় আগামী অর্থবছরেও টাকার অঙ্কে বরাদ্দ বাড়ছে ৯ হাজার ৪৯৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষায় ৩১ হাজার ৭৬১ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়, যা চলতি অর্থবছরে ছিল ২৬ হাজার ৩১৪ কোটি টাকা।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের জন্য ৩৯ হাজার ৯৬১ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়, যা চলতি অর্থবছরে ছিল ৩৬ হাজার ৪৮৭ কোটি টাকা। কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষার জন্য আগামী অর্থবছরে ৯ হাজার ৭২৭ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়, যা চলতি অর্থবছরে ছিল ৯ হাজার ১৫৩ কোটি টাকা।

গতকাল অর্থ মন্ত্রণালয় আয়োজিত বাজেট-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক স্বপন, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, অর্থ সচিব আবদুর রউফ তালুকদার, এনবিআরের চেয়ারম্যান আবু হেনা মোহাম্মদ রহমাতুল মুনিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ঈদের পরে এসএসসি পরীক্ষা, তারিখ নির্ধারণ হয়নি - dainik shiksha ঈদের পরে এসএসসি পরীক্ষা, তারিখ নির্ধারণ হয়নি মিলিটারি ডিকটেটররা ছাত্রদের হাতে অস্ত্র-মাদক তুলে দিয়েছিল: প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha মিলিটারি ডিকটেটররা ছাত্রদের হাতে অস্ত্র-মাদক তুলে দিয়েছিল: প্রধানমন্ত্রী পদ্মাসেতু: বড় পরিবর্তনের সুযোগ শিক্ষায় - dainik shiksha পদ্মাসেতু: বড় পরিবর্তনের সুযোগ শিক্ষায় প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ : ফল পুনর্মূল্যায়ন চেয়ে ৫ পরীক্ষার্থীর রিট - dainik shiksha প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ : ফল পুনর্মূল্যায়ন চেয়ে ৫ পরীক্ষার্থীর রিট বন্যা চলে গেলেই পরীক্ষা নেয়া হবে : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha বন্যা চলে গেলেই পরীক্ষা নেয়া হবে : শিক্ষামন্ত্রী বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিতে ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক হচ্ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী - dainik shiksha বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিতে ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক হচ্ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ৩ জুলাই থেকে বন্ধ মাধ্যমিক বিদ্যালয় - dainik shiksha ৩ জুলাই থেকে বন্ধ মাধ্যমিক বিদ্যালয় please click here to view dainikshiksha website