দেড় যুগ ধরে নেই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি, হয়নি স্বীকৃতি নবায়নও - স্কুল - দৈনিকশিক্ষা

দেড় যুগ ধরে নেই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি, হয়নি স্বীকৃতি নবায়নও

মিজানুর রহমান, দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি |

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার আদাবাড়ীয়া ইউনিয়নের ধর্মদহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দেড় যুগ ধরে নেই কোন ম্যানেজিং কমিটি। প্রতিষ্ঠানটির স্বীকৃতি নবায়নও করা হয়নি। বিদ্যালয়টির প্রতিষ্ঠাকালীন প্রধান শিক্ষক মো. রুস্তুম আলীর বিরুদ্ধে দুর্নিতির অভিযোগও রয়েছে।

জানা গেছে, ১৯৯৫ খ্রিষ্টাব্দের যোগদানের কিছুদিন পরে স্কুল কর্তৃপক্ষ 'জাল সার্টিফিকেট দাখিলের' অভিযোগে তাকে বরখাস্ত করে। ২০০১ খ্রিষ্টাব্দে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর বিএনপির স্থানীয় এমপির সহযোগীতায় তাকে বিদ্যালয়ের প্রধান পদে বহাল রাখেন। এ বিষয়ে এলাকার সাধারণ জনগণ ও তৎকালীন ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা প্রতিবাদ করলে দলীয় ক্ষমতা ব্যবহার করে মামলা মোকাদ্দমা করে এবং হয়রানি করা হয়। ক্ষোভে তৎকালীন সময় থেকে স্থানীয় জনগণ বিদ্যালয়ের দায়-দায়িত্ব ছেড়ে দিলে প্রধান শিক্ষক তার নিজ ইচ্ছা অনুযায়ী নিয়মিত কমিটি ছাড়া বিদ্যালয়টি পরিচালনা করে আসছেন।

স্থানীয়রা বলছেন, ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে প্রধান শিক্ষক রুস্তম আলী তার মনগড়া পকেট কমিটি তৈরি করলে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তা স্থগিত করে দেয়। পরে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সরদার মো. আবু সালেকসহ কয়েকজনের নামে আদালতে মামলা করেন প্রধান শিক্ষক রুস্তম আলী। 

অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০০৪ খ্রিষ্টাব্দে স্বীকৃতি নবায়নের জন্য যশোর শিক্ষা বোর্ডে আবেদন করে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। শিক্ষা বোর্ড ২০০৫ খ্রিষ্টাব্দে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিদ্যালয়ের অস্থায়ী স্বীকৃতি নবায়ন করে। এরপর বোর্ডের শর্ত পূরণ না করায় স্বীকৃতি স্থগিত হয়ে যায়। এর পর থেকে বোর্ডের স্বীকৃতি ছাড়াই সতের বছর বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলছে।

২০০২ খ্রিষ্টাব্দে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত হলেও এখনোও পর্যন্ত অ্যাডহক কমিটি দ্বারা বিদ্যালয়টি পরিচালিত হচ্ছে। 

দীর্ঘদিন যাবৎ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অ্যাডহক কমিটি থাকার কোন নিয়ম আছে কিনা এ ব্যাপারে ঔ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. রুস্তম আলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, না থাকতে পারে না। তিনি আরও জানান, বর্তমানে একটি মামলা আছে যার কারনে নিয়মিত কোন কমিটি হচ্ছেনা। 

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সরদার মো. আবু সালেক দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, শুধু নিয়মিত কমিটিই না ঔ বিদ্যালয়ে প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি নবায়ন নেই। ২০০৬ খ্রিষ্টাব্দের পর থেকে, গত ৩১ ডিসেম্বর অ্যাডহক কমিটিরও মেয়াদ শেষ। 

মামলার বিষয়ে এই কর্মকর্তা আরও বলেন, প্রধান শিক্ষক রুস্তম আলী প্রচুর মিথ্যার অশ্রয় নেয়, আমার নামে মামলা করেছিলো যার রায় আমার পক্ষে এসেছে। এখন কোন মামলা নেই।

স্বীকৃতিবিহীন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাঠদানের অনুমতি ও বোর্ডের পরীক্ষায় অংশ নেয়ার বিধান না থাকলেও মানবিক দিক বিবেচনায় ফরম পূরণের সুযোগ দেয়া হয় বলে তিনি জানান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুল জব্বার দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, ধর্মদহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রুস্তম আলীর খুঁটির জোর কোথায় সেটা আমি খতিয়ে দেখছি, তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার হবে।

অভিযোগ আছে, বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাকাল থেকে এ পর্যন্ত সব সরকারি অনুদান সে নিজে আত্বসাৎ করে আসছে। তার দুর্নীতির কারণেই এ যাবৎ পর্যন্ত উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি এই বিদ্যালয়ে। বিদ্যালয়টি কোনদিনই সঠিকভাবে পরিচালনা করেনি প্রতিষ্ঠান প্রধান। অধিকাংশ দিনই প্রধান শিক্ষক মো. রুস্তম আলী বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন। যার কারণে সহকারী শিক্ষকরাও নির্দৃষ্ট সময়ে স্কুলে আসেনা।

১৭তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা এ বছরের শেষে - dainik shiksha ১৭তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা এ বছরের শেষে স্কুল-কলেজে র‌্যাগ ডের নামে ডিজে পার্টি-গুন্ডামি নয় - dainik shiksha স্কুল-কলেজে র‌্যাগ ডের নামে ডিজে পার্টি-গুন্ডামি নয় সরকার সাহসী উদ্যোগ নিয়েছে : জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha সরকার সাহসী উদ্যোগ নিয়েছে : জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী এসএসসির সনদ বিতরণ শুরু ২১ আগস্ট - dainik shiksha এসএসসির সনদ বিতরণ শুরু ২১ আগস্ট হিজাব কাণ্ড : শোকজের জবাব দেয়ার ৭ মিনিট পরই শিক্ষক বরখাস্ত - dainik shiksha হিজাব কাণ্ড : শোকজের জবাব দেয়ার ৭ মিনিট পরই শিক্ষক বরখাস্ত শিক্ষক নিয়োগ : অর্ধলক্ষ শূন্যপদের প্রত্যাশা, আসছে সংশোধনের সুযোগ - dainik shiksha শিক্ষক নিয়োগ : অর্ধলক্ষ শূন্যপদের প্রত্যাশা, আসছে সংশোধনের সুযোগ please click here to view dainikshiksha website