please click here to view dainikshiksha website

এমপিওভুক্তদের বকেয়া দিতে প্রয়োজন ৩ হাজার কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক | ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৮ - ১১:৫৭ অপরাহ্ণ
dainikshiksha print

এমপিওভুক্ত (মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার) শিক্ষক-কর্মচারীদের বকেয়া, অবসর ও কল্যাণ ভাতা পরিশোধে ২ হাজার ৯৭৪ কোটি টাকা প্রয়োজন। যার বিপরীতে মাত্র আড়াইশ’ কোটি টাকা বরাদ্দ পেয়েছে সংশ্লিষ্ট দু’টি সংস্থা। অর্থাৎ বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের বকেয়া, অবসর ও কল্যাণ ভাতা বাবদ ২ হাজার ৭২৪ কোটি টাকার চাহিদা তৈরি হলেও তা দিতে পারছে না সরকার।

সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় সংসদে চলমান ১৯তম অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে টেবিলে উত্থাপিত বিরোধী দল জাতীয় পার্টির (জাপা) সংসদ সদস্য জিয়াউল হক মৃধার প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এ তথ্য জানান।

মন্ত্রী জানান, বকেয়া অবসর ভাতা দিতে সরকারের কাছে ২ হাজার ২৭৪ কোটি টাকা চেয়েছে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড। একইসঙ্গে তাদের বকেয়া কল্যাণ ভাতা দিতে ৭০০ কোটি টাকা চেয়েছে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট। চাহিদার বিপরীতে অবসর সুবিধা বোর্ড চলতি অর্থবছরে মাত্র দেড়শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ পেয়েছে। আর গত (২০১৬-১৭) ও চলতি অর্থবছর (২০১৭-১৮) মিলিয়ে মাত্র ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ পেয়েছে কল্যাণ ট্রাস্ট।

শিক্ষামন্ত্রীর দেওয়া তথ্য মতে, অবসর সুবিধা বোর্ডে ২০১৪ থেকে চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত সাড়ে ৩৫ হাজার আবেদন জমা হয়েছে। এগুলো নিষ্পত্তি করতেই প্রায় ১ হাজার ৯৭৫ কোটি টাকা প্রয়োজন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে চলতি অর্থবছরে এককালীন ২ হাজার ১০০ কোটি টাকা এবং পুঞ্জীভূত ঘাটতি পূরণে অতিরিক্ত আরো ১৭৪ কোটি টাকা চেয়েছে বোর্ড। এর বিপরীতে মাত্র দেড়শ’ কোটি টাকার থোক বরাদ্দ রাখা হয়েছে। অন্যদিকে শিক্ষক-কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্টও ২০১৬ সালের ডিসেম্বরের পর জমা হওয়া সব আবেদন অনিষ্পন্ন রয়েছে। পুঞ্জীভূত আবেদনের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। এ আবেদনগুলো নিষ্পন্ন করার জন্য ৭০০ কোটি টাকা চেয়েছে কল্যাণ ট্রাস্ট। এর বিপরীতে গত ও চলতি অর্থবছরে মাত্র ৫০ কোটি টাকা করে মোট ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ মিলেছে।
আগে সংসদের ১৮তম অধিবেশনে গত বছরের ১৬ নভেম্বর শিক্ষামন্ত্রী জানান, এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের অবসর ভাতা দিতে গিয়ে প্রতি বছর ৪২০ কোটি টাকা ঘাটতি গুনছে সরকার। বর্তমান সরকার গত আট বছরে অবসর সুবিধা বোর্ডের মাধ্যমে ৫৯ হাজার ৪১৪ জনের দুই হাজার ৩৬১ কোটি ৬৭ লাখ ৮৩ হাজার ৮৮৮ টাকা পরিশোধ করেছে উল্লেখ করে সেদিন তিনি বলেছিলেন, ‘আর্থিক সমস্যার কারণে ব্যাংক থেকে অনেকটাই ভিক্ষা নিয়ে এই ভাতা দিতে হচ্ছে।’
বর্তমানে দেশে বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৩৮ হাজার ১৫৮টি। এর মধ্যে এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৭ হাজার ৭২২টি। বিগত অর্থবছরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মোট বাজেট বরাদ্দ ২৬ হাজার ৮৫৭ কোটি ৭৪ লাখ টাকার মধ্যে এমপিওখাতের জন্যই বরাদ্দ ছিলো ১২ হাজার ২৮৯ কোটি ৭৪ লাখ ৬৭ হাজার টাকা।

সংবাদটি শেয়ার করুন:


পাঠকের মন্তব্যঃ ৩০টি

  1. মো: আব্দুল কুদ্দুস says:

    রাষ্টের অন্যান্য খাতে হাজর হজার কোটি টাকা ব্যায় করায় কোন অসুবিধা হয়না,বে-সরকারি শিক্ষকদের বেলায় আসলেই আর্থিক সংকট।

  2. জিয়াউর রহমান says:

    অচিরেই বকেয়াসহ ৫% দিন। নইলে আবার আন্দলন হবে। স্যারদের বেলায় যত সমস্যা।

  3. Ashis Saha says:

    বেসরকারী শিক্ষকদের দিতে লাগলেই টাকা ফুরিয়ে যায়। তাহলে ৪ লক্ষ কোটি টাকার যে বাজেট হয়। সেই টাকা যায় কোথায়।

  4. Habibur Rahman says:

    ”এ‌দের‌কে কিছুই দেয়া হ‌বে না” এই একটিমাত্র বাক্য দি‌য়ে সরকার হাজার হাজার কো‌টি টাকা সেভ কর‌তে পা‌রে।

  5. ফয়সাল says:

    ডেয়ার সার। শুধু সরকারী প্রতিষ্ঠান রেখে, সারা বাংলার সকল বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিন। আমরা বাতাস আর পানি খেয়েই থাকতে পারব ইনশাআল্লাহ।

  6. সারা says:

    শিক্ষকদের কোন কালেই এই কষ্ট লাঘবের প্রচেষ্টা কেউ করেছেন কি? অথচ এই সব শিক্ষকদের কাছে শিক্ষা নিয়ে তাদের উপর

  7. সো‌হেল না‌গেশ্বরী , কু‌ড়িগ্রাম says:

    Good

  8. মোঃরিপন says:

    এই হল বাংলাদেশের উন্নতি। কেউ ভাত নষ্ট করে।কেউ নাখেয়ে মরে।

  9. Shahjahan,Lecturer says:

    এ সরকার শিক্ষাবান্ধব নয়।

  10. Md.ektedar haque says:

    Amar 28 june 2014 thake april 2017 er bokeya beton dile ami onek upakrita hobo.amar bank a rin ase.

  11. কাওছার হাবিবপুর আলিম মাদরাসা,চারঘাট.রাজশাহী says:

    Mpo din

  12. আজিজুর রহমান সহকারী প্রধান শিক্ষক।। says:

    সরকার বেসরকারী শিক্ষকের মূল্যায়ন না করলে অর্থ অভাব তো থাকবে।

  13. karuna says:

    আর mpo দেখা হল না 😭😭😭😭😭😭😭😭

  14. Mahmudul Mannan Tarif says:

    সমস্যা শুধু এমপিওভুক্তদের বেলায়।লাখলাখ কোটি টাকা যায় কোথায়?

  15. Mahmudul Mannan Tarif says:

    বাজেট থেকে ৬ হাজার কোটি টাকা বকেয়া ও আগামসহ দিয়ে দিন।

  16. rehana says:

    বৃষ্টি। চৌগাছা মৃধাপাড়া মহিলা কলেজ।চৌগাছা,যশোর। এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের বিভিন্ন ধরনের দাবি পূরণ করার কাজে সরকার ব্যস্ত কারন ননএমপিও শিক্ষকরাতো এদেশের নাগরিক না তাই তারা সরকার কে ভোট দেয়না।

  17. মোঃলহির উদ্দিন says:

    সরকারের সদিচ্ছা থাকলে সব কিছুই সম্ভব।শুধু বেসরকারীর বে টা থাকাটাই যত জ্বালা।

    • মোঃশহিদুল ইসলাম says:

      ঠিক বলেছেন ভাই।যত আপদ বেসরকারি বেদরকারি শিক্ষকরা। সরকার শিক্ষকদের আন্দোলন দেখে খুব ভালো ভাবে বুঝতে পেরেছেন যে, এদের দিয়ে কিছুই হবেনা।এরা কিছুই করতে পাবেনা।

  18. Ab Jalil says:

    তাহলে শিক্ষাক্ষেত্রে দেখছি ব্যাপক উন্নতি হয়েছে !

  19. মিজান says:

    টাইম স্কেল, বৈশাখীভাতা ও ৫% দিন নইলে আবার আন্দোলন।

  20. এস এম শামীম says:

    2014 সালে ফাইল জমা দিয়েছি ।এখন 2018 সাল তবুও অবসর ফাইল এর কোন খবর নেই ।

  21. Triedeb halder says:

    অ প্র‍্য়োজনীয় খাতে টাকা ব্যয় করে সিড়ি
    করা খুব ভাল

  22. সুপ্লব says:

    বে-শিক্ষক হওয়াটাই অভিশাপ।

  23. আবুল হোসেন খোকা,প্রভাষক,ভিতরবন্দ কলেজ,কুড়িগ্রাম। says:

    আমার জানা মতে আজ যাঁরা সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে উচ্চাসনে আসিন,তাঁদের প্রায় ৯০% ব্যক্তি অবহেলিত বে-সরকারী শিক্ষকদের ছাত্রছাত্রী। অথচ কী দূর্ভাগ্য এই বে-সরকারী শিক্ষকদের, তাঁদের স্নেহের ছাত্রছাত্রীবৃন্দ বেমালুম ভুলে গেছেন শিক্ষাগুরুদেরকে।

  24. দীপক চক্রবর্তী says:

    বেসরকারি শিক্ষকদের প্রতি সরকারের দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিফলন আরকি।।

  25. Md Humayun Kabir says:

    অন্য কোনো খাতেই নয় ! শুধু এমপিওভুক্ত শিক্ষক কর্মচারিদের বেলায়ই অর্থের অভাব ! হাহাকার !

  26. ছিদ্দিকুর রহমান,সহকারী শিক্ষক, নওলামারী আলিম মাদরাসা, আলমডাঙ্গা,চুয়াডাঙ্গা। says:

    রাষ্টের অন্যান্য খাতে হাজর হজার কোটি টাকা ব্যায় করা হয়কোন অসুবিধা হয়না,
    বে-সরকারিশিক্ষকদের বেলায় আসলেই
    আর্থিক সংকট হয় । হায়রে ডিজিটাল বাংলাদেশ।

  27. Shaheb Hasan says:

    অনুকরণীয় ও অনুসরণীয়।

  28. নামঃ জিয়াউর রহমান। says:

    আসলে কপাল খারাপ।তা না হলে বেসরকারি শিক্ষকদের সময় টাকা ফুরায় কিভাবে?

  29. মোঃ মোস্তফা কামাল,পঞ্চগড়।01713394318 says:

    জুনিয়র সকল আইসিটি শিক্ষকদের বেতন দিতে না পারা এটা অমানবিক।

আপনার মন্তব্য দিন