প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায়ও থাকছে না জিপিএ ৫ - স্কুল - Dainikshiksha

প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায়ও থাকছে না জিপিএ ৫

নিজস্ব প্রতিবেদক |

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী এবং সমমানের পরীক্ষায়ও আর জিপিএ ৫ থাকছে না। এ পরীক্ষায়ও এখন থেকে জিপিএ ৪-এর মধ্যে ফল প্রকাশ করা হবে। তবে গ্রেড বিন্যাসের ধরন কেমন হবে এ সিদ্ধান্তের জন্য এখন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এর আগে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি), এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায়ও জিপিএ-৫ এর  পরিবর্তে জিপিএ-৪ সূচকে গ্রেড বিন্যাসের উদ্যোগ নেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন জানিয়েছেন, ‘প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় বর্তমানে যে গ্রেড বিন্যাস রয়েছে, তা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গ্রেড বিন্যাসের সঙ্গে মিল রেখেই করা হয়েছে। আমরা শুনেছি, তাঁরা গ্রেড বিন্যাস নিয়ে কাজ করছেন। তাঁরা এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণের সঙ্গে সঙ্গে আমরা কমিটি গঠন করে আমাদের গ্রেড বিন্যাসও পরিবর্তন করব। কারণ একই শিক্ষার্থী পিইসিতে এক ধরনের গ্রেড আবার জেএসসিতে আরেক ধরনের গ্রেড পেতে পারে না। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গ্রেডবিন্যাসের সঙ্গে মিল রেখেই পিইসির গ্রেড বিন্যাস হবে।’

আরো পড়ুন: পাবলিক পরীক্ষার গ্রেড: যা আছে আর যা হবে

জিপিএ-৫ বিলুপ্তির পর যেভাবে হবে নতুন গ্রেড বিন্যাস

এদিকে শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আন্তঃশিক্ষা সমন্বয় কমিটির বৈঠকের পর পাবলিক পরীক্ষায় জিপিএ ৫-এর বদলে জিপিএ ৪-এর মধ্যে ফল চূড়ান্ত করতে কাজ শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে কয়েকটি প্রস্তাব নিয়ে যাচাই-বাছাই চলছে। জিপিএ ৪-এর মধ্যে এই গ্রেড বিন্যাস অনেকটা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মতোই করা হয়েছে। তবে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পাস নম্বর ৪০ হলেও পাবলিক পরীক্ষায় রাখা হয়েছে ৩৩ নম্বর। এ ছাড়া পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ৮০ থেকে ১০০-এর মধ্যে প্রাপ্ত নম্বরকে দেয়া হয় জিপিএ-৪। কিন্তু পাবলিক পরীক্ষায় একে ভেঙে দুটি গ্রেড করা হচ্ছে। কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, এসএসসি ও এইচএসসির মতো পরীক্ষায় অনেকেই ৯০-এর ওপরে নম্বর পায়। এখন যারা ৮০ পাবে আর যারা ৯০ পাবে, সবাই যদি একই গ্রেড পায়, তাহলে মূল্যায়নটা যথাযথ হয় না।

প্রস্তাবিত একটি পদ্ধতিতে ৯০ থেকে ১০০-এর মধ্যে নম্বরকে ‘এক্সিলেন্ট’ লেটার গ্রেড হিসেবে রাখা হয়েছে, যার গ্রেড পয়েন্ট হবে ‘জিপিএ-৪’। আর ৮০ থেকে ৮৯ নম্বরকে রাখা হয়েছে ‘এ প্লাস’ গ্রেডে, যার গ্রেড পয়েন্ট হবে ‘জিপিএ-৩.৮৫’। এরপর মূলত ৫ নম্বরের ভিত্তিতে লেটার গ্রেড পরিবর্তন করা হয়েছে। সেখানে ৭৫ থেকে ৭৯ নম্বর পেলে লেটার গ্রেড ‘এ’ এবং গ্রেড পয়েন্ট জিপিএ-৩.৭৫; ৭০ থেকে ৭৪ নম্বরের লেটার গ্রেড ‘এ মাইনাস’ এবং গ্রেড পয়েন্ট-৩.৫০; ৬৫ থেকে ৬৯ নম্বরের লেটার গ্রেড ‘বি প্লাস’ এবং গ্রেড পয়েন্ট-৩.২৫; ৬০ থেকে ৬৪ নম্বরের লেটার গ্রেড ‘বি’ এবং গ্রেড পয়েন্ট-৩.০০; ৫৫ থেকে ৫৯ নম্বরের লেটার গ্রেড ‘বি মাইনাস’ এবং গ্রেড পয়েন্ট-২.৭৫; ৫০ থেকে ৫৪ নম্বরের লেটার গ্রেড ‘সি প্লাস’ এবং গ্রেড পয়েন্ট-২.৫০; ৪৫ থেকে ৪৯ নম্বরের লেটার গ্রেড ‘ডি’ এবং গ্রেড পয়েন্ট-২.২৫; ৪০ থেকে ৪৪ নম্বরের লেটার গ্রেড ‘ডি মাইনাস’ এবং গ্রেড পয়েন্ট-২; ৩৫ থেকে ৩৯ নম্বরের লেটার গ্রেড ‘ই’ এবং গ্রেড পয়েন্ট-১.৭৫; ৩৩ থেকে ৩৪ নম্বরের লেটার গ্রেড ‘ই মাইনাস’ এবং গ্রেড পয়েন্ট ধরা হয়েছে-১.৫০। আর শূন্য থেকে ৩২ নম্বরের লেটার গ্রেড ‘এফ’, যা ফেল হিসেবে ধরা হয়েছে। তবে অন্য প্রস্তাবে ‘এক্সিলেন্ট গ্রেড’, ‘সি’, ‘ডি’ ও ‘ই’ গ্রেড নিয়ে কিছুটা পার্থক্য রয়েছে। 

আন্তঃশিক্ষা বোর্ডের সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, ‘আমরা চার-পাঁচটি পদ্ধতি নিয়ে কাজ করছি। আন্তর্জাতিক শিক্ষাব্যবস্থার সঙ্গে মিল রাখার পাশাপাশি গ্রেড বিন্যাস যাতে লজিক্যাল হয় সে বিষয়টিও খেয়াল রাখছি। চলতি সপ্তাহের শেষ নাগাদ অথবা আগামী সপ্তাহে আমাদের প্রস্তাবিত পদ্ধতি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দেব। আগামী জেএসসি পরীক্ষা থেকেই আমরা নতুন গ্রেড বিন্যাসে ফল প্রকাশ করতে চাই।’

এইচএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন শুরু - dainik shiksha এইচএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন শুরু বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ম্যানেজিং কমিটির বিকল্প প্রয়োজন - dainik shiksha বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ম্যানেজিং কমিটির বিকল্প প্রয়োজন এমপিওভুক্ত হলেন আরও ৮০ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হলেন আরও ৮০ শিক্ষক একাদশে ভর্তিকৃতদের অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে - dainik shiksha একাদশে ভর্তিকৃতদের অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে স্কুল-কলেজ খোলা রেখে বন্যার্তদের আশ্রয় দেয়ার নির্দেশ - dainik shiksha স্কুল-কলেজ খোলা রেখে বন্যার্তদের আশ্রয় দেয়ার নির্দেশ অনার্স ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় বাড়লো - dainik shiksha অনার্স ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় বাড়লো ঢাবির ভর্তির আবেদন শুরু ৫ আগস্ট, পরীক্ষা ১৩ সেপ্টেম্বর - dainik shiksha ঢাবির ভর্তির আবেদন শুরু ৫ আগস্ট, পরীক্ষা ১৩ সেপ্টেম্বর শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website