please click here to view dainikshiksha website

মানিকমিয়া কিন্ডার গার্টেনের সাফল্য

রবিউল হাসান রবিন, কাউখালী (পিরোজপুর) প্রতিনিধি | জানুয়ারি ৫, ২০১৬ - ১০:০১ অপরাহ্ণ
dainikshiksha print

kawkhali pic

পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলা সদরে অবস্থিত মানিক মিয়া কিন্ডার গার্টেন ২০১৫ সালের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় শতভাগ পাশ করার গৌরব অর্জন করেছে।প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ২০১৫ এর ফলাফলে ১৪জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১০জন। ফলাফল ঘোষণার পর বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকবৃন্দ উল্লাসে মেতে ওঠেন। জিপিএ-৫ প্রাপ্ত আর এক পরীক্ষার্থী মালিহা হাসান তৌফি জানান, আমাদের বিদ্যালয়ের শিক্ষিকারা আনন্দের মাধ্যমে আন্তরিকতাপূর্ণ পরিবেশে পাঠ দেয়া ও আমার অভিভাবকের উৎসাহে আমি এবং সকলে ভালো ফলাফল করতে পেরেছি।

উল্লেখ্য,১৯৮৬ সালে জালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রী থাকাকালীন আনোয়ার হোসেন মঞ্জু (বর্তমানে বন ও পরিবেশ মন্ত্রী)কাউখালী উপজেলায় মানিক মিয়া কিন্ডার গার্টেন প্রতিষ্ঠা করেন। সেই থেকে পিরোজপুর-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য তাসমিমা হোসেনের পরামর্শক্রমে বিদ্যালয়টি সুনামের সাথে দীর্ঘদিন ধরে পরিচালিত হয়ে আসছে। এই প্রতিষ্ঠানটি শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। সুপরিসর খেলার মাঠ, দক্ষিন মূখী দ্বিতল ভবন, পর্যাপ্ত আলো বাতাসপূর্ণ শ্রেণি কক্ষ, প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র ও অভিজ্ঞ শিক্ষক মন্ডলী দ্বারা পরিচালিত ২০১৫ সালে বিদ্যালয়টি প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ১৪জন ছাত্র ছাত্রী অংশ গ্রহণ করে ১০জন জিপিএ-৫ ৪জন এ মাইনাস পেয়ে সবাই উত্তীর্ণ হয়। জিপিএ-৫ প্রাপ্তরা হলেন,সায়মা আক্তার অর্নি,মালিহা হাসান তৌফি, জিয়াদুল ইসলাম সৌরভ, মাশফি আফরোজ মারিয়া,মুশফিকা জামান উর্মি,ফারিন সুলতানা শ্রাবনী,অহনা মস্তরী পৃথা,মাইনুল হাসান সাফিন,কায়েসউজ্জামান রাফি, অনিক হাসান।

মানিক মিয়া কিন্ডার গার্টেনের অধ্যক্ষ খালেদা আত্তার জানান, আমার বিদ্যালয়ে প্রতিবছর ভালো ফলাফলের জন্য বেশিরভাগ কৃতিত্ব আমার শিক্ষকদের। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের লেখাপড়ার পাশাপাশি বাড়িতেও পড়াশুনার আগ্রহী থাকায় কারনে এফলাফল। এছাড়া বেশিরভাগ অভিভাবকরা শিক্ষকদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে থাকেন। সে কারনেই এই বিদ্যালয়ের ফলাফল ভালো হয়ে থাকে বলে আমি বিশ্বাস করি।

এছাড়া বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীরা বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করে শীর্ষ স্থান অর্জণ করে। অভিভাবক মহল মনে করেন শিক্ষিকাদের আন্তুরিক প্রচেষ্টার কারনে এ সফলতা।

সংবাদটি শেয়ার করুন:


আপনার মন্তব্য দিন